Categories
বিনোদন

‘ফোন সেক্সে মেলেনি কাজ’, বলিউডের নোংরা কেচ্ছা ফাঁস করে দিলেন রাধিকা আপ্তে

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে বলিউডের অন্ধকার দিক নিয়ে অভিনেত্রী রাধিকা আপ্তের (Radhika Apte) বিস্ফোরক মন্তব্য। তাঁর এই বক্তব্যকে ঘিরে বর্তমানে শোরগোল পড়ে গিয়েছে বলিউডে।

থিয়েটারে অভিনয় দিয়ে নিজের কেরিয়ার শুরু করেছিলেন রাধিকা। এর পরে ২০০৫ সালে তাঁকে প্রথম সিনেমার পর্দায় দেখতে পাওয়া গিয়েছিল ‘বাহ লাইফ হো তো এইসি’ (Vaah! Life Ho Toh Aisi!)- তে । এর পরে বিভিন্ন সিনেমায় নানা রকমের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। ‘বদলাপুর’ (Badlapur) সিনেমায় পার্শ্বচরিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি ‘মাঝি দ্য মাউন্টেন ম্যান’ (Manjhi – The Mountain Man) সিনেমায় একেবারে অন্যরূপে ধরা দিয়েছেন। এছাড়া ‘শোর ইন দ্যা সিটি’ (Shor in the City) , ‘প্যাড ম্যান’ ( Pad Man) প্রভৃতি সিনেমায় তাঁর অসাধারণ অভিনয় দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছিল। ২০১৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি ‘পার্চড’ (Parched) সিনেমায় তাঁর সাহসী অভিনয় বিতর্কের সূচনা করেছিল। ছবি মুক্তির আগেই ফাঁস হয়ে গিয়েছিল অভিনেতা আদিল হুসেনের (Adil Hussain) সাথে তাঁর অন্তরঙ্গ দৃশ্য। তবে শুধুমাত্র বলিউডেই নয়, বেশ কয়েকটি আঞ্চলিক ভাষার সিনেমাতেও তিনি অভিনয় করেছেন। ‘অন্তহীন’ (Antaheen) , ‘রূপকথা নয় ‘ (Rupkatha Noy)-এর মত বাঙালি সিনেমার সঙ্গে বেশ কিছু মারাঠি এবং তেলেগু সিনেমাতেও অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে রাধিকাকে।

সিনেমা জগতে নিজের অভিনয় দক্ষতার কারণে যেমন তাঁর পরিচিতি রয়েছে, তেমনি তাঁকে নিয়ে বহুবার বির্তকও সৃষ্টি হয়েছে। এক সাক্ষাৎকারে অভিনেত্রী জানিয়েছিলেন যে ‘দেব ডি’ (Dev.D) সিনেমার অডিশনে তাঁকে ফোন সেক্স করতে বলেছিলেন পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ (Anurag Kashyap)। এই বিষয়ে তাঁর কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা ছিল না বলেও ওই সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন অভিনেত্রী। তবে সেটা ব্যক্তিগতভাবে নাকি সিনেমার প্রয়োজনে সে বিষয়ে কিছু জানাননি তিনি। কিন্তু তাঁকে শেষ পর্যন্ত ওই সিনেমায় নেওয়া হয়নি বলেও অভিযোগ জানিয়েছেন। তাঁর এই মন্তব্যকে ঘিরে ভালো রকমের বিতর্ক দানা বেঁধেছে। তবে বিতর্ক এবং রাধিকা এখন প্রায় সমার্থক হয়ে গিয়েছে। একসময় অভিনেতা তুষার কাপুরের (Tusshar Kapoor) সাথে তাঁর প্রেমের গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছিল বলিউডে।

তবে এই সম্পর্ক নিয়েই কেউই পরবর্তীকালে ব্যক্তিগতভাবে কিছু প্রকাশ করেন নি। ব্রিটিশ আমেরিকান সিনেমা ‘দ্য ওয়েডিং গেস্ট’ (The Wedding Guest) সিনেমায় অভিনেতা দেব প্যাটেলের (Dev Patel) সাথে তাঁর ঘনিষ্ঠ দৃশ্য নিয়ে সমালোচনার শিকার হতে হয়েছিল তাঁকে। বর্তমানে নিজের ব্যক্তিগত এবং পেশাদার কারণে কয়েকবার বিতর্কের সম্মুখীন হলেও আসন্ন বেশ কয়েকটি সিনেমা নিয়ে বেশ ব্যস্ত রয়েছেন রাধিকা । এর মধ্যে অন্যতম হল বিক্রম ভেদা’ (Vikram Vedha) যা এখন মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। এছাড়াও ‘মিসেস আন্ডারকভার’ (Mrs. Undercover) এবং ‘মনিকা ও মাই ডার্লিং’ (Monica, O My Darling) এর মত সিনেমাতেও অভিনয় করছেন তিনি।

বলিউডের নানা অন্ধকার দিক নিয়ে মাঝে মধ্যেই সরব হয়েছেন অভিনেতারা। ক্যামেরার পিছনের এইসব ঘটনা সামনে আসলেই অনেক রকমের বির্তকের সূচনা হয়। অনেক না জানা ঘটনা এবং তথ্য সামনে আসে সিনেমাপ্রেমী মানুষের কাছে। মাঝে মধ্যে সেটি সিনেমার প্রচারের অঙ্গ হলেও আদতে এই ঘটনাগুলির কিছুটা সত্যতা থাকতেও পারে।

Categories
বিনোদন

দেবের সঙ্গে শুটিংয়ের চলাকালীন যা করেছিলেন কোয়েল, আজও ভুলতে পারেননি অভিনেত্রী

সম্প্রতি নিজের অভিনয় জীবনের এক মজার অভিজ্ঞতা সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করলেন অভিনেত্রী কোয়েল মল্লিক (Koel Mallick)। এর আগেও বেশ কিছু কথা অনুরাগীদের মধ্যে ভাগ করে নিয়েছিলেন অভিনেত্রী। কিন্তু এইবারের ঘটনা বেশ অন্যরকম।

২০০৩ সালে ‘নাটের গুরু’ (Nater Guru) সিনেমার মধ্যে দিয়ে সিনেমা জগতে পা রেখেছিলেন বর্ষীয়ান অভিনেতা রঞ্জিত মল্লিকের (Ranjit Mallick) কন্যা কোয়েল। এর পরে এখনও পর্যন্ত দর্শকদের অনেক হিট সিনেমা উপহার দিয়েছেন। তাঁর অভিনীত সিনেমাগুলির মধ্যে অন্যতম হল ‘বন্ধন’ (Bandhan), ‘শুধু তুমি’ (Shudhu Tumi), ‘মানিক’(Manik), ‘প্রেমের কাহিনী’ (Premer Kahini) , ‘সাত পাঁকে বাঁধা’ (Saat Paake Bandha) প্রভৃতি। ২০১৩ সালে প্রযোজক নিসপাল সিংয়ের (Nispal Singh) সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন কোয়েল। বিয়ের পরেও অনেক সিনেমায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় অভিনয় করেছেন তিনি। তবে ‘মিতিন মাসি’ (Mitin Mashi) সিনেমায় তাঁকে একেবারে অন্যরকমভাবে পেয়েছিল দর্শক। চিরাচরিত নায়িকার ইমেজ ছেড়ে বুদ্ধিমতী এবং সাহসী মহিলা গোয়েন্দার চরিত্রে তাঁর অসাধারণ অভিনয় মন কেড়ে নিয়েছিল দর্শকদের। এছাড়া ‘রক্ত রহস্য’ (Rawkto Rawhoshyo) , ‘সাগরদ্বীপের যখের ধন’ (Sagardwipey Jawker Dhan) কিংবা ‘বনি’ (Bony) -এর মতো সিনেমাতেও তাঁকে অন্যরূপে দেখতে পেয়েছিল দর্শক।

নিজের দীর্ঘ সফল অভিনয় জীবনে টলিউডের বেশ অনেক নায়কের সাথেই কাজ করেছিলেন কোয়েল। তবে কেরিয়ারের শুরুতে দেবের (Dev) সঙ্গেই বেশিভাগ ছবিতে জুটি বেঁধেছিলেন তিনি। তাঁদের দুজনের এই জুটি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল দর্শকদের কাছে। ১৪ বছর আগে মুক্তি পেয়েছিল ‘মন মানে না’ (Mon Mane Na) সিনেমাটি। সেই সিনেমার নস্ট্যালজিয়া এখনও বর্তমান দর্শকদের কাছে। সেই ছবির সঙ্গেই জড়িত একটি মজার কাহিনী জানতে পারা গেল অভিনেত্রীর কাছ থেকে। এই ছবির একটি দৃশ্যে বাসের মধ্যে পূর্বনির্ধারিত সিটে বসার কথা ছিল নায়ক দেবের। কিন্তু তিনি তখন সহযাত্রীদের সাথে ঝগড়ায় ব্যস্ত। সিনেমার গল্প অনুযায়ী সেই সুযোগে দেবের সিটে বসে পড়বেন কোয়েল। শুটিংয়ের সময় অভিনেত্রী বাসের বাইরে পরিচালকের নির্দেশের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে ছিলেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওটিতে কোয়েল জানিয়েছেন, ভেতরের আওয়াজের কারণে শট নেওয়ার জন্য পরিচালক যে তাঁর নাম ধরে ডাকছিলেন সেটা তিনি শুনতে পাননি। তিনি তখন প্রকৃতির শোভা দেখে মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিলেন। অনেক পরে পরিচালকের ডাকে তাঁর সম্বিৎ ফেরে এবং শুটিং শুরু করেন। শুটিং ভুলে প্রকৃতির দৃশ্য দেখার জন্য পরে ক্ষমাও চেয়ে নিয়েছিলেন তিনি।

সিনেমায় নায়ক নায়িকের কেমিস্ট্রি কিংবা তাঁদের অভিনয় যেমন দর্শকদের আনন্দ দেয় তেমনি ক্যামেরার পিছনে ঘটে যাওয়া ঘটনা জানতে পারলেও বেশ মজা পান তাঁরা। মাঝে মধ্যেই সিনেমার এইরকম অনেক না জানা ঘটনা সামনে আসে অনুরাগীদের যা পুরনো স্মৃতিকে নতুন করে জাগিয়ে তোলে।

Categories
বিনোদন

সুপারস্টার দেবের সঙ্গে ঝামেলা! প্রকাশ্যে মুখ খুললেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়

আগামী ছবির কারণে পুরনো তিক্ততা ভুলে আবার নতুন করে কাছাকাছি এলেন সুপারস্টার দেব (Dev ) এবং ‘বুম্বাদা’ প্রসেনজিৎ চট্টপাধ্যায় (Prosenjit Chatterjee)। এই খবরে স্বভাবতই দারুণ খুশি সিনেমাপ্রেমী দর্শকেরা।

অভিনয়ের পাশাপাশি প্রযোজক হিসাবেও নাম করেছেন অভিনেতা দেব। বাবার সঙ্গে ‘দেব এন্টারটেইনমেন্ট ভেঞ্চার্স’ (Dev Entertainment Ventures) নামে ২০১৭ সালে এই সংস্থা খুলেছিলেন অভিনেতা। ২০০৪ সালে ‘অগ্নিশপথ’ (Agnishapath) সিনেমার মধ্যে দিয়ে অভিনয় জগতে এসেছিলেন দেব। এর পরে ‘আই লাভ ইউ’ (I Love You), ‘প্রেমের কাহিনী’ (Premer Kahini), ‘মন মানে না’ (Mon Mane Na), ‘চ্যালেঞ্জ’ (Challenge), ‘চ্যাম্প’ (Chaamp) ,’কবীর’ (Kabir), সহ একাধিক সিনেমায় নিজের অভিনয় দক্ষতা প্রমাণ করেছেন অভিনেতা। অভিনয় জীবনে সফল হওয়ার পরেই নিজের প্রযোজনা সংস্থা খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি। অন্যদিকে বিগত কয়েক দশক ধরে টালিগঞ্জ ইন্ডাস্ট্রিতে রাজত্ব করছেন অভিনেতা প্রসেনজিৎ। হৃষিকেশ মুখার্জি (Hrishikesh Mukherjee) পরিচালিত ‘ছোট্ট জিজ্ঞাসা’ (Chotto Jigyasa) সিনেমায় প্রথমবার শিশুশিল্পী হিসেবে আত্মপ্রকাশ ঘটেছিল তাঁর। এর পরে বাংলা সিনেমাকে একের পর এক হিট বাংলা সিনেমা উপহার দিয়েছেন টলিউডে ‘বুম্বাদা’ নামে সর্বাধিক পরিচিত প্রসেনজিৎ। ‘অমর সঙ্গী’ (Amar Sangi) , ‘চোখের বালি’ (Chokher Bali ), ‘দোসর’ (Dosar), ‘সব চরিত্র কাল্পনিক’ (Shob Charitro Kalponik), ‘অটোগ্রাফ’ (Autograph) ‘ক্ষত’ (Khawto), প্রাক্তন (Praktan) , ‘জাতিস্মর’ (Jaatishwar) প্রভৃতি সিনেমায় অসাধারণ অভিনয়ের জন্য অনেক পুরস্কারও পেয়েছিলেন তিনি।

বাংলা সিনেমা জগতের এই দুই অভিনেতাকে কমলেশ্বর মুখার্জি (Kamaleshwar Mukherjee) পরিচালিত ‘ককপিট’ (Cockpit) সিনেমাতেই একসঙ্গে দেখতে পাওয়া গিয়েছিল। এই সিনেমাটি দেবের প্রযোজিত দ্বিতীয় সিনেমা ছিল। উল্লেখযোগ্য কোনো ভূমিকার পরিবর্তে এই সিনেমায় অতিথি শিল্পী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বুম্বাদা। এর পরেই এই দুই অভিনেতার মধ্যে সম্পর্কের অবনতি ঘটে বলে জানা গিয়েছিল। তবে ২০২২ সালে এর সম্পূর্ণ বিপরীত চিত্র ধরা পড়েছে। নন্দনে দুই অভিনেতাই সাদা জামা এবং নীল জিন্সে এক ফ্রেমে ধরা দিলেন। নিজেদের আসন্ন ছবি উপলক্ষ্যেই এই মিলন বলে জানা গিয়েছে। চলতি বছরের দুর্গাপূজাতে মুক্তি পেতে চলেছে পথিকৃৎ বসুর (Pathikrit Basu) নতুন ছবি ‘কাছের মানুষ’ (Kacher Manush)। এই সিনেমাতেই দেব এবং প্রসেনজিৎকে আবারো একসাথে অভিনয় করতে দেখা যাবে। বৃহস্পতিবার এই ছবির প্রচারে অন্য মেজাজে দেখতে পাওয়া গেল দুজনকেই। দেবের সাথে সম্পর্কের অবনতি প্রসঙ্গে এক সাংবাদিক সম্মেলনে প্রসেনজিৎ জানিয়েছেন, তাঁরা হলেন রান্নাঘরের দুটি বাসনের মতো। একসাথে থাকলে ঠোকাঠুকি অনিবার্য। দেব এবং প্রসেনজিৎ ছাড়াও এই ছবিতে অভিনয় করবেন ঈশা সাহা ( Ishaa Saha) এবং সুস্মিতা চট্টোপাধ্যায় (Susmita Chattopadhyay)। ‘গোলন্দাজ’ (Golondaaj) ছবির পরে আবার জুটি বাঁধছেন দেব এবং ঈশা। সব মিলিয়ে এই ছবির দিকে বর্তমানে অনেক আশা নিয়ে তাকিয়ে রয়েছেন দর্শক এবং ছবির কলাকুশলীরা।

একই ইন্ডাস্ট্রির দুই নায়কের মধ্যে মনোমালিন্যের ঘটনা এই প্রথম নয়। অনেক ভালো জুটিকেও কয়েকটি সিনেমার পরে আর একসাথে অভিনয় করতে দেখতে পাওয়া যায়নি। তবে সিনেমার স্বার্থে নিজেরদের মধ্যেকার তিক্ত সম্পর্ককে ভুলে একসাথে অভিনয় করেছেন অনেক নায়ক নায়িকারাই। এর ফলে সিনেমার মান যেমন উন্নত হয়েছে, তেমনি দর্শক নিজেদের প্রিয় নায়কদের একসাথে দেখতে পেয়ে খুব আনন্দও পেয়েছেন ।

Categories
বিনোদন

অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে শ্যুটিংয়ের সময় বেবি বাম্প লুকাতে ব্যর্থ, সমালোচনার শিকার অভিনেত্রী হেমা মালিনী

বর্ষীয়ান জনপ্রিয় অভিনেত্রী হেমা মালিনীকে (Hema Malini) নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ্যে আসতেই শোরগোল পরে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ার অন্দরে। এই খবরে বেশ অবাক হয়েছেন অভিনেত্রীর অনুরাগীরাও। বেশ কিছু হিট হিন্দি ছবিতে নায়িকার চরিত্রে অভিনয় করে বিখ্যাত হলেও তিনি তাঁর অভিনয় জীবন শুরু করেছিলেন তামিল সিনেমা ‘ইধু সাথিয়াম’ (Idhu Sathiyam) সিনেমার মধ্যে দিয়ে।

১৯৬৮ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি ‘সপ্ন কে সওদাগর’ (Sapno Ka Saudagar) ছিল তাঁর প্রথম হিন্দি সিনেমা। এই ছবিতে তাঁর বিপরীতে ছিলেন অভিনেতা রাজ কাপুর (Raj Kapoor)। নিজের দীর্ঘ সফল অভিনয় জীবনে অনেক নায়কের বিপরীতে অভিনয় করলেও ধর্মেন্দ্রর (Dharmendra) সাথে তাঁর জুটি ৯০ এর দশকে চূড়ান্ত জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। তাঁদের অভিনীত সিনেমাগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল ‘শোলে’ (Sholay) , ‘সীতা ঔর গীতা’ (Seeta Aur Geeta) , ‘রাজা জানি’ (Raja Jani) প্রভৃতি। অভিনয়ের সূত্র ধরেই ধর্মেন্দ্রর সাথে সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন অভিনেত্রী।

বিবাহিত হওয়া সত্ত্বেও হেমাকে বিয়ে করার জন্য সংসার এবং ধর্ম দুটোই ত্যাগ করেছিলেন ধর্মেন্দ্র। ধর্মেন্দ্রর প্রথম স্ত্রী প্রকাশ কৌরের (Prakash Kaur) কোনো আপত্তি ছিল না এই বিয়েতে। ১৯৮০ সালে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন এই জনপ্রিয় জুটি। তাঁদের দুই কন্যা সন্তান বর্তমান। নিজের অভিনয় জীবনে সফল ছবিগুলির মধ্যে অন্যতম ছিল ‘সত্তে পে সত্তা’ (Satte Pe Satta )।

বিগ বি অমিতাভ বচ্চনের (Amitabh Bachchan) নায়িকা ছিলেন এই সিনেমায়। সংবাদসূত্রে জানা যায় এই সিনেমার শুটিংয়ের সময় অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন হেমা। কিন্তু এই অবস্থাতেও তাঁকে কাজ চালিয়ে নিয়ে যেতে হয়েছিল। এমনকি পিছান সম্ভব হয়নি শুটিংয়ের তারিখও। কারণ প্রযোজনা সংস্থার সাথে চুক্তিবদ্ধ ছিলেন তিনি। তার উপরে সেইসময় প্রযুক্তি এতো উন্নত ছিল না। ফলে সিনেমার সময় প্রকাশ্যেই এসেছিল তাঁর বেবিবাম্প। শাল দিয়েও লুকিয়ে রাখতে ব্যর্থ হয়েছিলেন। এই সত্যি ঘটনা সামনে আসতেই সমালোচিত হয়েছিলেন হেমা। তবে অমিতাভ -হেমা অভিনীত সিনেমাটি সুপার হিট হয়েছিল।


জনপ্রিয় অভিনেত্রীর পাশাপাশি তিনি একজন প্রসিদ্ধ নৃত্যশিল্পী। ৭৩ বছরে এসে এখনো অনেকের ‘ড্রিম গার্ল’ তিনি। বির্তক নায়ক নায়িকাদের জীবনের সাথে ওতপ্রোতভাবে যুক্ত। তাঁদের নিয়ে হামেশাই গসিপের অন্ত থাকে না। তবে নিজের অভিনয় দক্ষতার কারণে বলিউডপ্রেমী মানুষদের কাছে যে ভাবমূর্তি বানিয়েছেন হেমা, তাতে এইসব গসিপের পরেও এর কোনো পরিবর্তন ঘটবে না।

Categories
বিনোদন

আলিয়ার বেবিবাম্প নিয়ে কুমন্তব্য, চাপে পড়ে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইলেন রণবীর কাপুর

কিছুদিন আগে নিজের স্ত্রী আলিয়া ভাটের (Alia Bhatt) বেবিবাম্প নিয়ে মন্তব্য করে নেটিজেনদের কটাক্ষের শিকার হয়েছিলেন অভিনেতা রণবীর কাপুর (Ranbir Kapoor)। এইবারে সাংবাদিক সম্মেলনে নিজের এই মন্তব্যের কারণে অনুরাগীদের কাছে ক্ষমা চাইলেন অভিনেতা।

পরিচালক অয়ন মুখার্জি (Ayan Mukerji) পরিচালিত’ ব্রহ্মাস্ত্র’ (Brahmāstra) ছবির শুটিং চলাকালীন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন আলিয়া এবং রণবীর। দীর্ঘদিন সেই সম্পর্ক সবার কাছ থেকে লুকিয়ে রাখার পরে চলতি বছরের এপ্রিল মাসে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন তাঁরা। বিয়ের কয়েকমাস পরেই নতুন সদস্য আগমনের খবরও সোশ্যাল মিডিয়ায় জানিয়েছেন কপুর দম্পতি। পরের মাসে মুক্তি পাবে ছবিটি। এখন এই ছবির প্রমোশনে ব্যস্ত নায়ক নায়িকা দুজনেই।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Manav Manglani (@manav.manglani)

আসন্ন ছবির কারণে এবং বাবা হওয়ার সংবাদ ভাইরাল হয়ে যাওয়ার পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ ট্রেন্ডিংয়ে রয়েছেন অভিনেতা। তবে কিছুদিন আগে প্রকাশ্যে মজা করে করা তাঁর মন্তব্যকে ঘিরে বর্তমানে উত্তাল সামাজিক মাধ্যম। আলিয়ার ওজন বৃদ্ধি নিয়ে কুরুচিকর মন্তব্য করেছেন বলে মনে করছেন নেটিজেনদের একাংশ। ছবির প্রচারে এখন নানা জায়গায় কপুর দম্পতিকে দেখতে পাওয়া গিয়েছে। তবে ব্যাপকভাবে প্রমোশনে যেতে পারছেন না ‘রালিয়া’ । রণবীরকে এই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে উত্তরে তিনি আলিয়ার বেবিবাম্পের দিকেই ইঙ্গিত করেছিলেন। তবে সেটি ভালো লাগেনি নেটিজেনদের। গত বুধবার চেন্নাইতে ছবির প্রচারে হাজির হয়েছিলেন আলিয়া এবং রণবীর। সেইসময় নায়ক নায়িকা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণের পরিচালক এস এস রাজামৌলী (S. S. Rajamouli) এবং নাগার্জুন (Nagarjuna)।

সাংবাদিক সম্মেলনেই নিজের করা মন্তব্যের কারণে সবার কাছে ক্ষমা চেয়েছেন রণবীর। তিনি জানিয়েছেন নিছক মজা করেই তিনি এই কথা বলেছিলেন। তবে যারা তাঁর এই মন্তব্যে দুঃখ পেয়েছেন তাদের কাছে তিনি ক্ষমাপ্রার্থী। আলিয়াও তাঁর এই মজার ছলে বলা কথায় বেশ অবাক হয়েছিলেন। রণবীরের ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডলে এই ভিডিও ভাইরাল হতেই নিজেদের মন্তব্য জানিয়েছিলেন নেটদুনিয়ার মানুষেরা। অনেকের মতে গর্ভাবস্থা কোনো দিক থেকেই মজার বিষয় নয়। আবার অনেকে বলেছিলেন একজন অন্তঃসত্ত্বা মহিলার সম্পর্কে এইরকম কথা বলা উচিত হয়নি অভিনেতার।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Ranbir Kapoor✨ (@ranbirkapoor143_)

অভিনয় দক্ষতা এবং চার্মিং লুকের জন্য অনেক মহিলারই হার্টথ্রব রণবীর। সেই মহিলাদের গর্ভাবস্থা নিয়ে কথা বলায় তাঁর ইমেজের যে অনেকটাই ক্ষতি হল সেটা স্বীকার করে নেওয়াই যায়। তবে অভিনেতা কখনোই নিজের মহিলা ফ্যান ফলোয়ার্সদের মন খারাপ করতে চাইবেন না। ক্ষমা চাওয়ার পরে তাঁর উপরে ক্ষুব্ধ মহিলা অনুরাগীদের ক্ষোভ অনেকটাই কমে এসেছে বলে অনুমান । তবে ভবিষ্যতে এইরকম মজা করার আগে রণবীর যে বারবার ভাববেন সেটা বলাই বাহুল্য।

Categories
বিনোদন ভিডিও

রঞ্জিত মল্লিকের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুললেন স্ত্রী দীপা মল্লিক

অভিনেতা হিসেবে রঞ্জিত মল্লিককে (Ranjit Mallick) সবাই চিনলেও ব্যক্তি হিসাবে তিনি কেমন সেটা কাছের মানুষ ছাড়া সবার কাছেই প্রায় অজানা। জনপ্রিয় এই অভিনেতার না জানা দিক নিয়ে প্রথমবার কথা বললেন সহধর্মিণী দীপা মল্লিক (Deepa Mallick)।

টলিউডের বর্ষীয়ান অভিনেতা রঞ্জিত মল্লিক দীর্ঘদিন ধরে বাংলা সিনেমায় তাঁর অসাধারণ অভিনয় দক্ষতার পরিচয় দিয়ে গিয়েছেন। ১৯৭১ সালে মৃনাল সেন (Mrinal Sen) পরিচালিত ‘ইন্টারভিউ’ (Interview) সিনেমার মধ্যে দিয়ে বাংলা সিনেমা জগতে তাঁর পদার্পন ঘটেছিল। এর পরে ‘ইন্দ্রজিৎ’ (Indrajit), ‘শাখা প্রশাখা’ (Shakha Proshakha ), ‘সন্তান’ (Santan ) , ‘নিয়তি’ (Niyoti) , ‘জীবন নিয়ে খেলা’ (Jibon Niye Khela ) সহ একাধিক সিনেমায় তাঁর অসাধারণ অভিনয় আজও মানুষের মনে গেঁথে রয়েছে। তবে ‘শত্রু’ (Shatru ) সিনেমায় শুভঙ্কর স্যান্যাল নামে এক সৎ পুলিশ অফিসারের চরিত্র তাঁকে একসময় বেশি পরিচিতি দিয়েছিল।

বর্তমানেও তিনি অভিনয় জগতের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। তবে আগে যেমন প্রধান ভূমিকায় অভিনয় করতেন এখন সেই ভূমিকায় তাঁকে অভিনয় করতে দেখা যায়না । সংবাদসূত্রের খবর অনুযায়ী দীর্ঘ ১৪ বছর পরে আবার প্রধান ভূমিকায় দেখতে পাওয়া যাবে তাঁকে। পুলিশ অফিসার শুভঙ্কর স্যানালের পরিবর্তে আইনজীবী শুভঙ্কর স্যানাল হিসেবে নতুনভাবে আত্মপ্রকাশ ঘটবে তাঁর। টলিউড ইন্ডাস্ট্রির সাথে দীর্ঘদিন জড়িত থাকার সুবাদে অভিনয়ের বাইরেও তাঁকে ব্যক্তিগতভাবে অনেকেই চেনেন। তা সত্ত্বেও চেনা গন্ডির বাইরে ব্যক্তি রঞ্জিত মল্লিক সেইভাবে কখনো প্রকাশ্যে আসেননি। এতদিন বাদে প্রধান চরিত্রে তাঁর ফিরে আসা নিয়ে কথা বললেন স্ত্রী দীপা মল্লিক। এক সাক্ষৎকারে অভিনেতার স্ত্রী জানিয়েছেন স্ক্রিপ্টের ব্যাপারে বরাবরই একটু খুঁতখুঁতে অভিনেতা। ভালো স্ক্রিপ্ট না হলে কাজ করতে রাজি হন না। এই চরিত্রে অভিনয়ের প্রধান কারণ হিসেবে দীপাদেবী জানিয়েছেন চরিত্রটি তাঁর মনের মতো হয়েছে বলেই তিনি রাজি হয়েছেন। বর্তমানের সামাজিক দুরাবস্থা তাঁকে বেশ কষ্ট দেয়। আইনজীবী হিসাবে সেইসব দুর্নীতির প্রতিবাদ করার সুযোগ পাবেন অভিনয়ের মাধ্যমে।

 

শত্রু সিনেমাটি মুক্তির পরেই বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল মূলত পুলিশ অফিসার শুভঙ্কর স্যানালের চরিত্রে রঞ্জিতবাবুর অসাধারণ অভিনয়ের কারণে। সিনেমার সাথে সাথে চরিত্রটিও মানুষের কাছে বাস্তবে প্রতিবাদের প্রতীক হয়ে দাঁড়িয়েছিল। আইকনিক এই চরিত্র নিয়েও নিজের মনের কথা ওই সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন অভিনেত্রী কোয়েল মল্লিকের (Koel Mallick) মা। মহানায়ক উত্তম কুমারের (Uttam Kumar) প্রয়ানের পরেই মুক্তি পেয়েছিল সিনেমাটি। সর্বকালের সেরা অভিনেতার এইভাবে চলে যাওয়াতে শুধুমাত্র বাংলা সিনেমা জগৎ নয়, সমগ্র সিনেমাপ্রেমী মানুষই শোকে বিহ্বল হয়ে গিয়েছিলেন। এমতবস্থায় তাঁর অভিনীত সিনেমাটি মানুষের মনে কতটা জায়গা করে নিতে পারবে এই নিয়ে সন্দেহ ছিল। তবে স্ক্রিপ্ট এবং চরিত্রের দৃঢ়তার কারণে এই সিনেমাটির সাফল্য নিয়ে বেশ আশাবাদী ছিলেন রঞ্জিতবাবু। বহু বছর পরে একই নামে আর একজন প্রতিবাদী মানুষকে দেখে দর্শকদের যে আবারো ভালো লাগবে সেটা বলাই বাহুল্য।

স্বর্ণযুগের প্রথম সারির অভিনেতাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন রঞ্জিত মল্লিক। পার্শ্বচরিত্র ছাড়াও বেশ কিছু সিনেমায় নায়কের চরিত্রে তাঁর অভিনয় এবং সংলাপ দর্শকদের মনে জায়গা করে নিয়েছে। প্রিয় নায়কের এইভাবে আবার ফিরে আসাকে দর্শক খুব ভালোবেসেই গ্রহণ করবে বলে আশা করা যায়।

Categories
বিনোদন

Mimi Chakraborty: নতুন সিদ্ধান্ত নিলেন মিমি

বাংলা চলচ্চিত্র জগতের অত্যন্ত জনপ্রিয় মুখ মিমি চক্রবর্তী। বিনোদনের জগত ছাড়া পা দিয়েছেন রাজনীতির ময়দানেও। সেখানেও সফল তিনি। মিমি চক্রবর্তীর অভিনয় নিয়ে কোন কথা বলা চলে না। ‘বোঝে না সে বোঝে না’, ‘পোস্ত’-র মতো চলচ্চিত্র নজর কেড়েছে দর্শকদের। তবে সম্প্রতি শোনা যাচ্ছে সুন্দরী এই অভিনেত্রী আমিষ খাবার ছেড়ে নিরামিষের পথ বেছে নিয়েছেন।

রাজ্যের সাংসদ অভিনেত্রী জানিয়েছেন, “আমি ছোট থেকে জৈন হোস্টেলে থেকেছি। সেখানে নিরামিষ খেয়েছি বহুদিন। তাছাড়া আমার নিরামিষ খেতে ভালো লাগে”। পাশাপাশি অভিনেত্রী আরও জানিয়েছেন, “নিরামিষ খেলে শরীর ভালো থাকে, স্বাস্থ্যের জন্য নিরামিষ খাবার খুবই উপকারি”।

সাধারণত অভিনেতা-অভিনেত্রীদের ডায়েটের মধ্যে থাকতে হয়। নিয়মিত খেতে হয় প্রোটিন যুক্ত খাবার আর নিরামিষ খাবারের মতো স্বাস্থ্যকর এবং ডায়েট সম্মত খাবার হয় না। মিমি আরও জানিয়েছেন, “গত বিধানসভা নির্বাচনের সময় আমাকে অনেক জায়গাই যেতে হয়েছিল, সেই সময় শরীরকে সুস্থ রাখা খুবই দরকার। তাই ওই সময়ও আমি টানা দুইমাস নিরামিষ খাবার খেয়েছিলাম”। তবে অভিনেত্রী একেবারেই যে আমিষ খাবার খাওয়া ছেড়ে দিলেন তা নয়। তাঁর কথায়, তিনি আপাতত নিরামিষ খাবেন যতদিন তাঁর পক্ষে সম্ভব হবে। ইতিমধ্যেই তাঁর খাবারের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে সবুজ শাক সবজি, ওটস, পনিরের মতো সামগ্রী।

Categories
বিনোদন ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

মাত্র ১৪ বছর বয়সে দুর্দান্ত গান গেয়ে মঞ্চ মাতালেন শ্রেয়া ঘোষাল, ভাইরাল পুরনো ভিডিও

কিন্নরকন্ঠী শ্রেয়া ঘোষাল বর্তমানে দেশের সেরা গায়িকা। সবমিলিয়ে এগারটি ভাষায় দুই হাজার চারশো এর বেশি গান গেয়েছেন তিনি। গোটা বিশ্ব জুড়ে অগুণতি মানুষ শ্রেয়ার গানের ভক্ত। অনেকেই শ্রেয়াকে সুর সম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকরের উত্তরসূরী বলে মনে করেন।
মাত্র ১৪ বছর বয়সে দুর্দান্ত গান গেয়ে মঞ্চ কাঁপিয়েছিলেন শ্রেয়া ঘোষাল। সম্প্রতি ভাইরাল হল সেই পুরনো ভিডিও।

 শ্রেয়া মাত্র ষোলো বছর বয়সে সারেগামা নামের একটি বিখ্যাত সঙ্গীত প্রতিযোগিতার জেতেন। আর বর্তমানে সেই সারেগামাপা এর একটি পারফরমেন্স সোশ্যাল মিডিয়াতে ব্যাপক ভাইরাল হয়েছে। এই ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে শ্রেয়া একটি রাজস্থানি ফোক গান গেয়ে শোনালেন। সাথে সাথেই উপস্থিত দর্শকরা তাঁকে করতালি দিয়ে সমর্থন করলেন। শ্রেয়ার পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন গায়ক ও সঞ্চালক সোনু নিগম। তিনি শ্রেয়াকে জিজ্ঞেস করলেন বাঙালি হয়ে কিভাবে শ্রেয়া এত সুন্দর রাজস্থানি ভাষায় গান গাইলেন। শ্রেয়ার উত্তর দেন যে তিনি দেশের সব ভাষাই ভালোবাসেন এজন্য এই গানটি গাইতে পারলেন। তবে রাজস্থানী ভাষায় স্বচ্ছন্দে গান গাইতে পারার আরেকটি কারণ আছে। একজন বাঙালি হলেও দীর্ঘদিন বাবার কাজের সূত্রে শ্রেয়া রাজস্থানী রাওয়াতভাতারেতে বড়ো হয়েছিলেন। সে কারনেই রাজস্থানি ভাষাতে তিনি স্বচ্ছন্দ্য। সেমিফাইনালের সেই এপিসোডে উপস্থিত ছিলেন উষা খান্না, সাবির কুমারের মতো তাবড় তাবড় সঙ্গীতশিল্পী।

সারেগামা জেতার কয়েক বছরের মধ্যেই শ্রেয়া হিন্দি ছবির প্রধাণ প্লেব্যাক গায়িকা হিসেবে নিজের জায়গা তৈরী করে নিয়েছিলেন। এখনও পর্যন্ত শুধুমাত্র হিন্দি ভাষাতেই ১১০০ এর বেশি গান গেয়েছে শ্রেয়া। মারাঠি গান ‘ গানরাজ রঙ্গী নাচাতো’ প্রথমবার প্লে ব্যাক করেন তিনি। পরবর্তীকালে সঞ্জয় লীলা বনশালীর ছবি দেবদাস এর মাধ্যমে শ্রেয়া বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে প্লেব্যাক গায়িকা হিসেবে পা রাখেন। ২০০২ সালে মুক্তি পাওয়া ‘দেবদাস’ সিনেমায় ‘পারো’ চরিত্রের জন্য ঐশ্বর্য রাইয়ের হয়ে ইসমাইল দরবারের সুরে ৫ টি গান গেয়েছিলেন। প্রত্যেকটি গান ছিল অপূর্ব। তারপর থেকে শ্রেয়া ঘোষালকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।

ইন্ডাস্ট্রিতে পা রাখার এত বছর পরেও শ্রেয়া আজও ভীষণ জনপ্রিয়। তাঁর গাওয়া গান শ্রোতাদের অসম্ভব আনন্দ দেয়। এজন্য শ্রেয়ার অল্প বয়সের গাওয়া একটি স্টেজ পারফরম্যান্স হঠাৎ করে ভাইরাল হল।

Categories
বিনোদন

তৃতীয়বার মা হওয়া প্রসঙ্গে মুখ খুললেন সইফ পত্নী করিনা কাপুর খান

বলিউড সেলিব্রেটিদের জীবন নিয়ে মানুষের অনন্ত কৌতূহল। সামান্য কিছু হলে তা যেন খবর হয়ে ওঠে এবং নিমেষেই ভাইরাল হয়ে যায়। চলতে থাকে তুমুল জল্পনা।

দিন কয়েক ধরেই করিনা কাপুর খানের তৃতীয় বার মা হওয়ার খবরে উত্তাল বি টাউন। যদিও এই খবর আদতে সত্যি না মিথ্যে তা যাচাই করা বাকি। অনুরাগীদের অবশ্য তাতে বিশেষ কিছু যায় আসে না। পতৌদি পরিবারে নতুন সদস্য আগমনের আনন্দে মেতেছে উঠেছেন অনুরাগীরা। এই নিয়ে অনেকে সমালোচনা করছেন। আর তার একটাই কারণ হল করিনার ঈষৎ স্ফীত পেট।

তবে, এত জল্পনা-কল্পনার পর আসল কথাটা জানা গেল। আদৌ কি মা হতে চলেছেন করিনা? এবার সেই প্রশ্নের উত্তরই খোলসা করে জানালেন সইফ পত্নী। বুধবার মধ্যরাতে করিনা ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে একটি পোস্ট করেন। যেখানে তিনি লিখেছেন যে ‛পাস্তা আর ওয়াইন খাওয়ায় আমাকে ওরকম দেখাচ্ছিল। আপনারা শান্ত হন। আমি অন্তঃসত্ত্বা নই। উফ। সইফ বলেছে দেশের জনসংখ্যা বৃদ্ধিতে ওর অনেক অবদান’।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য ২০১২ সালের ১৬ অক্টোবর বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন সইফ ও করিনা। এরপর ২০১৬ সালে পুত্র তৈমুর খানের জন্ম দেন বেগম করিনা। এরপর ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তাদের কোলে আসে দ্বিতীয় সন্তান জাহাঙ্গীর আলি খান ওরফে জেহ। বর্তমানে কেরিয়ার, সংসার ও ছেলেদের নিয়ে সুখে জীবন কাটাচ্ছেন অভিনেত্রী। আর তারই মাঝে ইংল্যান্ড বেড়িয়ে এলেন। এই পারিবারিক সফর চুটিয়ে উপভোগ করছেন করিনা।

Categories
বিনোদন

শেষের মুখে ‘মিঠাই’? নেটদুনিয়ার গুঞ্জন প্রসঙ্গে মুখ খুললেন স্বয়ং পরিচালক রাজেন্দ্র প্রসাদ দাস

বর্তমান সময়ে টেলিভিশনের পর্দায় বাংলা ধারাবাহিকগুলির মধ্যে একটি অন্যতম জনপ্রিয় ধারাবাহিক হলো ‘মিঠাই’ (Mithai)। সিদ্ধার্থ মোদক এবং মিঠাইয়ের মিষ্টি প্রেম-কামী কাহিনীতে আচ্ছন্ন হয়ে আছে গোটা বাংলার দর্শক। একটা সময় চ্যানেল টপার এবং বেঙ্গল টপার হওয়া এই ধারাবাহিকের জনপ্রিয়তা মাঝখানে বেশ কিছুটা নিম্নমুখী হয়েছে। কিছুদিন হল টিআরপি রেটিংয়ে প্রায় মুখ থুবড়ে পড়েছে এই ধারাবাহিকটি। যখন একটা সময় এই ধারাবাহিক দেখার জন্য মুখিয়ে থাকতো দর্শকেরা এখন মিঠাই এর জায়গা দখল করছে আরো অন্যান্য ধারাবাহিক। দর্শকদের গল্পের মোড় পছন্দ না হওয়ার জন্যই পিছিয়ে পড়ছে মিঠাই। ইতিমধ্যেই অনেক জায়গায় গুঞ্জন শুরু হয়েছে যে ধারাবাহিকটি শেষ হয়ে যাবে।

তবে পরিচালক বিভিন্নভাবে গল্পের মোড় ঘোরাচ্ছেন। যাতে করে আবারও টপার হতে পারে মোদক পরিবার। গল্পে দেখানো হয়েছে কাহিনীর মূল ভিলেন ওমি আগারওয়াল জেল থেকে মুক্তি পেয়েছেন। ওমির উদ্দেশ্য মিঠাই পরিবারকে ধ্বংস করে দেওয়া। আপাতত ধারাবাহিকে শ্রীনিপা ও রুদ্রর বিয়েকে কেন্দ্র করে টানটান উত্তেজনা চলছে। তবে বিয়ের অনুষ্ঠানে একটি জঘন্য কাজ ঘটিয়ে ফেলে ওমি আগরওয়াল। সিদ্ধার্থকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়তে গেলে মিঠাইরানী সবটা দেখে ফেলে এবং তার ‘উচ্ছেবাবু’কে বাঁচাতে গিয়ে গুলি লাগে মিঠাই এর। গুলিবিদ্ধ মিঠাই লুটিয়ে পড়ে মাটিতে। আর এখান থেকে শুরু হয়েছে গুঞ্জন। অনেকেই বলছেন নায়িকা হয়তো মরে যাবে, আর তাহলেই গল্পর যবনিকা পাত হবে।

আপাতত মিঠাই এবং পিলু ধারাবাহিকের পরিচালক রাজেন্দ্র প্রসাদ দাস বলছেন মিঠাই এর অনুগামীদের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে বই কমছে না। দর্শকেরা সারাক্ষণই ধারাবাহিককে চোখে হারাচ্ছেন। আর তাই নায়িকার গুলি লাগার কাহিনীতে সবাই আশঙ্কা করছেন যে ধারাবাহিক শেষ হয়ে যাবে। তবে নায়িকার গুলি লেগেছে মানেই ধারাবাহিক শেষ নয়। মিঠাই ধারাবাহিকের রহস্যময় কাহিনী কোন দিকে ঘোরে তা দেখতে গেলে আপাতত দর্শকদের চোখ রাখতেই হবে টেলিভিশনের পর্দায়।