×
Categories
ভিডিও

সবুজ প্রকৃতির মাঝে ‘কালো জলে কুচলা তলে’ গানে নেচে দুই সুন্দরী যুবতী, দেখে নিন ভিডিও

বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়া (Social Media) আমাদের ভিতরের লুকানো প্রতিভা তুলে ধরার প্লাটফর্ম হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমাদের সকলের মধ্যেই কিছু না কিছু সুপ্ত প্রতিভা থাকে। যা আমরা হয়তো সঠিকভাবে প্রদর্শন করতে পারিনা। কিন্তু আজকাল সোশ্যাল মিডিয়ার হাত ধরে সে সমস্ত প্রতিভার আত্মপ্রকাশ হয়। আজকাল সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন রকমের ভিডিও ভাইরাল হয়ে থাকে। সে সমস্ত ভিডিওতে দেখা যায় অনেকেই নানানরকমের শিল্পকলা কে তুলে ধরছেন। বর্তমানে আমরা সোশ্যাল মিডিয়ার সাইটে অ্যাকাউন্ট খুলে থাকি। আর সেই জন্যই এই সমস্ত ভিডিও গুলি আমরা দেখতে পাই। নাচ-গান- আঁকা -আবৃত্তি ইত্যাদি শিল্পীসত্তা সোশ্যাল মিডিয়ার হাত ধরে আজকে লাখ লাখ মানুষের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে।

এক কথায় বলতে গেলে ইয়াং জেনারেশনের কাছে সোশ্যাল মিডিয়া একপ্রকার উপার্জনের মাধ্যম হয়ে উঠেছে। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় দুই যুবতী নাচের ভিডিও তুমুলভাবে ভাইরাল হয়েছে। নেটিজেনদের কাছে এই যুবতীদের নাচের ভিডিও অত্যন্ত বাহবা পেয়েছে। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় বাউল গানের সাথে নৃত্যরত দুই যুবতীর নাচের ভিডিও তুমুল পরিমাণে ভাইরাল হয়েছে। ভাইরাল হওয়া ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে কালো শাড়ি, ঘিয়া রঙের ব্লাউস এবং মাথায় হলুদ ফুল এবং সঙ্গে মানানসই গয়না পরে ‘কালো জলে কুচলা তলে’ গানের সাথে দুইসুন্দরী যুবতী খোলা আকাশের নিচে অপূর্ব সুন্দর ভঙ্গিমায় নাচছেন।

বলাবাহুল্য এই গানটি অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি বাউল গান। সেই গানের সাথে দুই সুন্দরী যুবতীর অপূর্বসুন্দর ভঙ্গিমায় এই নাচ সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোড়ন ফেলে দিয়েছে। ভিডিওটিতে নৃত্যরত দুই যুবতী নাম তনুশ্রী এবং রাখি বাউল। গানের সাথে নাচবার জন্য যেরকম সাজসজ্জার প্রয়োজন এই দুই যুবতী ঠিক সেইভাবেই সেজেছিলেন। এক বছর আগে এই দুই যুবতী ‘ ফোক প্রক্রিয়েশন’ নামক ইউটিউব চ্যানেল থেকে ভিডিওটি শেয়ার করে ছিলেন। এক বছর আগের ভিডিও হলেও বর্তমানে ভিডিওটির ভিউ প্রায় ৩৬ লাখের কাছাকাছি।

Categories
বাজারদর

সোনার দামে বড় ধরনের পরিবর্তন, রেকর্ড দরের থেকে কমল ৫,০৩৭ টাকা

গতকালই বড়োসড়ো পতন হয়েছিল স্বর্ণের দামের গ্রাফের। আজ বুধবার সপ্তাহের তৃতীয় কর্মদিবসে ফের ঊর্ধ্বমুখী সোনার দামের গ্রাফ। শুধুমাত্র ঊর্ধ্বমুখী নয়, মাত্র কয়েক ঘন্টায় বেড়েছে অবিশ্বাস্য সোনার দাম। আজ বুধবার এমসিএক্স সূচক অনুযায়ী ১০ গ্রাম গোল্ড ফিউচার্সের দাম ৩৫০ টাকা বেড়ে নতুন দাম দাঁড়িয়েছে ৫১,১৬৩ টাকা। গতকালকে বাজার বন্ধের সময় ১০ গ্রাম সোনার দাম ১.২ শতাংশ কমে নতুন দাম হয়েছিল ৫০,৯২৮ টাকা। সেখান থেকে হলুদ ধাতুর দাম এক সময় নেমে গিয়েছিল ৫০,৩৫৪ টাকা। যা গত এক মাসে সর্বনিম্ন স্তরে ঘোরাফেরা করছিল।

প্রসঙ্গত, ২০২০ করোনার প্রথম ঢেউয়ে লকডাউনের সময় ১০ গ্রাম স্বর্ণের দাম ঊর্ধ্বমুখী হতে হতে আগস্ট এর দ্বিতীয় সপ্তাহের পৌঁছে গিয়েছিল ৫৬,২০০ টাকার ঘরে। যা এখনো অবধি রেকর্ড দর হিসাবে বিবেচিত হয়ে আসছে। আজ বুধবার, সপ্তাহের তৃতীয় কর্মদিবসে স্বর্ণের দাম রেকর্ড দরের থেকে কম রয়েছে ৫,০৩৭ টাকা।

আজ বুধবার সেই একই অবস্থান ইতিবাচক প্রবণতা বজায় থাকলেও তার মাঝেই মাত্র কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ১০ গ্রাম সোনার দাম বেড়ে গিয়েছে ৮০০ টাকা। যা দেখে রীতিমতো ক্রেতা এবং বিক্রেতা উভয়েই চক্ষু চড়কগাছ। বেশ কিছুদিন ধরে সোনার দাম কমলে যে শাস্তি পেয়েছিল সকলেই তা আবারও নিমেষের মধ্যে ভেঙে গুঁড়িয়ে দিয়েছে সোনার দামের গ্রাফ। যদিও বিশ্ববাজারের অবিচল রয়েছে সোনার দাম। গত সেখানে এক আউন্স স্পট গোল্ড এর দাম দাঁড়িয়েছে ১,৯২০.৬ ডলার। সোনার মতনই একই ছবি বজায় রেখেছেন রুপোর দামের গ্রাফ ও। ১ কিলোগ্রাম রুপোর দাম ৪১০ টাকা বেড়ে নতুন দাম দাঁড়িয়েছে ৬৭,৩৫৭ টাকা।

Categories
বিনোদন

বিমানবন্দরে হেনস্থার শিকার অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা, ক্ষোভে ফেটে পড়লেন সোশ্যাল মিডিয়ায়

শহর ছাড়তে গিয়ে কলকাতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে হেনস্থার শিকার হলেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। আজ সোশ্যাল মিডিয়ায় এই অভিযোগে সরব হলেন অভিনেত্রী। একটি সিনেমার শুটিংয়ে তার মৌলি যাওয়ার কথা ছিল। সেই সিনেমার শুটিং এর উদ্দেশ্যে তিনি বিমানবন্দরে উপস্থিত হন।

ইন্ডাস্ট্রিতে এখন তার জুড়ি মেলা ভার। ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত এমনই একজন অভিনেত্রী যিনি অভিনয়ের খাতিরে তথাকথিত সকল গ্ল্যামার এর মুখোশ ছেড়ে বেরিয়ে আসতে সাবলীল। শুটিংয়ের জন্য বিদেশ ভ্রমণ তার নিত্যদিনের ঘটনা। যদিও আজ তাকে যে সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় এত বছর বিদেশ যাত্রার ইতিহাসে তাকে কোনদিনও হতে হয়নি। এই ঘটনায় অভিনেত্রী খুবই আঘাত পান এবং চমকে ওঠেন। বিমানবন্দরেই তার সাথে এমন আচরণ করা হয় যে তিনি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন। বিমানবন্দরেই কান্নায় ফুঁসে ওঠেন তিনি। বিমানবন্দরের আধিকারিকদের হাজার অনুরোধ সত্বেও বিমানে ওঠা তার আর হয়ে ওঠে না।

ভোর ৫.৪০ এর ফ্লাইটে তিনি আমেদাবাদের উদ্দেশ্যে রওনা দেবেন। গতকাল রাত পর্যন্ত এটাই ঠিক ছিল। বিমানটি আমেদাবাদে অবতরণের সময় ছিল সকাল ৭.৪৫। অভিনেত্রী নিজের বোর্ডিং সময়ের পরে বিমান বন্দরে এসে উপস্থিত হন। তার বোর্ডিং সময় ছিল ৪.৫৫। তিনি যখন বিমান বন্দরে আসেন তখন সময় ৫.১০। আর এতেই বিমানবন্দরে উপস্থিত থাকা আধিকারিকগন তাকে বিমান বন্দরে প্রবেশ করতে বাধা দান করে। অভিনেত্রী এও জানান যে গত সাত আট দিন ধরে তিনি বিমান যাত্রা করছেন। কার কাছে সাম্মানিক পাসপোর্টও রয়েছে। অভিনেত্রীর জোরালো দাবী যে তিনি বিমানের বোর্ডিং টাইমের আগেই পৌঁছে গিয়েছিলেন। কোন ভুল বোঝাবুঝির জন্য তাকে বিমানে উঠতে দেওয়া হয়নি। এত বছর ধরে তিনি বিমান যাত্রা করছেন এই ঘটনা প্রথম। আর এতেই মানসিকভাবে তিনি বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন।

সেই বিমান সংস্থার উপর যাবতীয় রাগ সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে উগরে দিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন তিনি। টলিউড ইন্ডাস্ট্রি প্রথম সারির অভিনেত্রীকে এভাবে বিমানবন্দরে হেনস্থার মুখে পড়ার কারণে এয়ারপোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়ায় আধিকারিকদের ও কাঠ লগড়ায় তুলেছেন অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত।

Categories
বিনোদন

আপনার পছন্দের ইউটিউবারদের মোট সম্পত্তির পরিমাণ কত জেনে নিন বিস্তারিত!

বর্তমান সময়ে মানুষ এখন সোশ্যাল মিডিয়ার বেশিরভাগ সময়টাই ইউটিউবে কাটাতে পছন্দ করেন। ইউটিউব আইকনে একটা ক্লিকে ধরা দেয় অসংখ্য ইউটিউবার। প্রত্যেকের ভিন্ন ভিন্ন কন্টেন্ট নিয়ে আনন্দ দেওয়ার জন্য হাজির হয়। কালকের ইউটিউবার রাতারাতি হয়ে ওঠে সেলিব্রিটি। জনপ্রিয়তার নিরিখে তো অনেক ইউটিউবার বিভিন্ন তাবড় তাবড় বলিউড সেলিব্রিটিকে পিছনে ফেলে দেন। ইউটিউব থেকে যে ভালো পরিমাণে টাকার অংক এরা করেন তা এইসকল ইউটিউবারদের জীবনযাপন দেখলেই বোঝা যায়। কিন্তু আপনার পছন্দের ইউটিউবারদের ব্যক্তিগত সম্পত্তির হিসাব জানেন কি? কম বেশী সকল বিখ্যাত ইউটিউবে কোটি টাকার মালিক। তাদের আসল সম্পত্তির খতিয়ান দেখলে সাধারণ মানুষের চোখ কপালে উঠবে বাধ্য। চলুন দেখে নিই সম্পত্তির নিরিখে কে কোথায় দাঁড়িয়ে।

ইউটিউবের অন্যতম জনপ্রিয় মুখ অমিত ভাদানা। তার সাবস্ক্রাইবারের সংখ্যা ২.৪ মিলিয়ন। আইন নিয়ে পড়াশোনা করতে করতে ডাবস্ম্যাশ নামক একটি অ্যাপের মাধ্যমে ইউটিউবের জগতে পা রাখেন তিনি। তার ব্যক্তিগত সম্পত্তির মূল্যায়ন প্রায় ৪৭ কোটি টাকার কাছাকাছি হবে।

২.গৌরব চৌধুরী/ টেকনিক্যাল গুরুজি

বিভিন্ন মোবাইলের রিভিউ করার জন্যই মূলত ইউটিউবের দুনিয়ায় তার আত্মপ্রকাশ। কোন মোবাইল কেনার আগে সেই মোবাইলটি কিরকম সেটা যাচাই করে নেবার জন্য মধ্যবিত্ত ভারতীয়র তার এই ইউটিউব চ্যানেলটি আশ্রয়স্থল। তার সূক্ষ্ম রিভিউয়ের গুনে তাকে চোখ বুজে ভরসা করে দর্শকেরা। ফোনের পাশাপাশি অন্যান্য ইলেকট্রিক্যাল গেজেট যেমন মিউজিক সিস্টেম, হেডফোন, ল্যাপটপ, ঘড়ি ইত্যাদি তিনি দিয়ে থাকেন। তার সাবস্ক্রাইবারের সংখ্যা হল ২২ মিলিয়ন অর্থাৎ ২.২ কোটি।

টেকনিক্যাল গুরুজি বাদে তার নিজের নামের একটি চ্যানেল রয়েছে যেখানে সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা হল 5 মিলিয়ন। মাত্র ৩১ বছর বয়সে তিনি ৩২৬ কোটি টাকার মালিক। ইউটিউব থেকেই তিনি প্রতি মাসে দেড় থেকে দু কোটি টাকা রোজগার করেন।

৩. অজেয় নাগর/ ক্যারিমিনাটি

যখন ইউটিউবে যাত্রা শুরু করেছিলেন তখন তিনি ভাবতে পারেনি যে এতটা জনপ্রিয় হয়ে উঠতে পারবেন কোনদিন। ক্যারিমিনাটি নামে ইউটিউব এর দুনিয়ায় তিনি বহুলভাবে খ্যাত। এছাড়া তাঁর একটি অন্য চ্যানেল রয়েছে যেখানে তিনি গেমের লাইভ স্ট্রিমিং করেন। সেই চ্যানেলের নাম ক্যারি ইজ লাইভ। তাঁর ঝুলিতে রয়েছে প্রায় ত্রিশ মিলিয়ন সাবস্ক্রাইবার। মানুষকে শুধু আনন্দ দিয়ে, হাসিয়ে মাত্র ২২ বছর বয়সে তিনি ৩০ কোটি টাকারও বেশি সম্পত্তি করে ফেলেছেন।

৪.আশিস চাঁচলানি

ভুবন বামের পর সর্বাধিক জনপ্রিয় ইউটিউবার বোধহয় তিনি। তার জনপ্রিয়তা আকাশছোঁয়া। কোন একটি ভিডিও আপলোড করার সঙ্গে সঙ্গেই তা উঠে আসে ট্রেন্ডিং লিস্টে। ‘বিজলী কা বিল ক্যা তেরা বাপ ভরেগা?’ তার এই বিখ্যাত ডায়ালগ এখন চলতি দুনিয়ায় খুব ভাইরাল। তার মোট সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ৩০ কোটি খাতায়-কলমে বয়স তার ২৮ কিন্তু এত কম বয়সে তিনি যে সম্পত্তি তৈরি করতে পেরেছেন তা অবাক করে দেয় সাধারণ জনতাকে।

৫.নিশা মধুলিকা

মূলত তিনি তার চ্যানেলে খাবার বিষয়ে নানা কাজ করেন। পেশায় নিশা মধুলিকা একজন শেফ এবং একটি রেস্তোরাঁর এডভাইজার। ইউটিউবে তার ১০ মিলিয়নের কাছাকাছি সাবস্ক্রাইবার রয়েছে। তার মোট সম্পত্তির হিসাব প্রায় ৩৩ কোটি টাকার সমান।

Categories
বিনোদন

শোকের ছায়া টলিউডে, মধ্যরাতে প্রয়াত জনপ্রিয় অভিনেতা অভিষেক চট্টোপাধ্যায়

কিংবদন্তি অভিনেতা অভিষেক চট্টোপাধ্যায়। কাজ করেছেন বহু সিনেমায়। নিজের সময় তিনি বিখ্যাত অভিনেতা ছিলেন। প্রসেনজিৎ ঋতুপর্ণার সিনেমায় তাকে চুটিয়ে অভিনয় করতে দেখা যায়। তার এই আকস্মিক প্রয়াণে খবর নাড়িয়ে দিয়েছে গোটা টলিউড ইন্ডাস্ট্রিকে। বর্ষীয়ান অভিনেতা গতকাল মধ্যরাতে পার্থিব শরীর স্তব্ধ করে দিয়ে পরলোকগমন করেন। কিন্তু হঠাৎ করে কি এমন হল যে অকালেই তাকে এভাবে চলে যেতে হল?

Sanbad24 online-এর বিশেষ সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী বুধবার সকাল থেকেই তিনি ছিলেন অসুস্থ। যদিও তিনি এই অসুস্থতা নিয়ে শুটিংয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু শুটিং ফ্লোরে গিয়ে তার আরও শরীর খারাপ করে তাই বাড়ি ফিরে আসেন। বাড়িতে গিয়ে সঙ্গে সঙ্গে তার চিকিৎসার জন্য যাবতীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়। কিন্তু শেষরক্ষা আর হল কোথায়? সবাইকে অবাক করে দিয়ে গতকাল মধ্যরাত্রে চিরঘুমের দেশে পাড়ি দেন তিনি। মাত্র ৫৭ বছর বয়সে জীবনাবসান ঘটে তার। কিছু বোঝার আগেই তিনি সবাইকে ছেড়ে চলে গেলেন।

টলিউডে একের পর এক হিট ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। তরুণ মজুমদারের মত কিংবদন্তি পরিচালকের হাত ধরে তিনি যাত্রা শুরু করেন অভিনয় জগতে। পথ ভোলা ছবির মাধ্যমে তার আত্মপ্রকাশ। প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় এবং তার হিরো ভিলেন হিসেবে যুগলবন্দী ছিল চোখে পড়ার মতো। ঋতুপর্ণ ঘোষের মতো পরিচালকের সাথে কাজ করেছেন তিনি দহন সিনেমায়।

এখন তাকে সেরকম একটা সিনেমার পর্দায় দেখা যেত না। কিন্তু দর্শক দের কাছে তিনি চিরদিনই নতুন রূপে ধরা দিয়েছেন। সম্প্রতি তাকে শেষবারের জন্য দেখা গিয়েছিল খড়কুটো এবং মোহর ধারাবাহিকে। সেখানেও তার চরিত্র ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়।

সবই তো চলছিলো ঠিক? কিন্তু জীবনযাপন ঠিক নিয়মে চলতে থাকে তখন একটা ঝড় এসে সব এলোমেলো করে দেয়। ৫৭ বছরে কেন অভিনেতাকে অকালে চলে যেতে হল তার কোন কারণ এখনও জানা যায়নি। কোন নির্দিষ্ট কারণে অভিনেতার মৃত্যু ঘটলো তা এখনও স্পষ্ট নয়। তার মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ টলিপাড়া। কেউই তার এই আকস্মিক প্রয়াণে মেনে নিতে পারছেন না। হুপহাপ টিমের পক্ষ থেকে তাঁর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করি আমরা সবাই এবং পরিবারের প্রতি সমবেদনা। ওপারে ভালো থাকবেন, অভিনয়ে থাকবেন। কারণ জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তিনি অভিনয় করে গিয়েছিলেন।

Categories
ভাইরাল ভিডিও

মন ফাগুনে নয়া মোড়! নিজের প্রিয়দর্শিনীকে কাছে পেয়ে ফের বিয়ের প্রস্তাব ঋষির

মন ফাগুনে নয়া মোড়! নিজের প্রিয়দর্শিনীকে কাছে পেয়ে ফের বিয়ের প্রস্তাব দিলেন ঋষি! ব্যাপারটা কি! স্টার জলসার অন্যতম ধারাবাহিক ‘মন ফাগুন’ (Mon Phagun)! টিআরপির দৌড়ে এই ধারাবাহিকও পিছিয়ে নেই। সেরা দশে বেশ ভালোই জায়গা করে নিয়েছে ঋষি-পিহুর জুটি! ছোটবেলার দুই বন্ধু হারিয়ে যায়, বড়বেলায় ভাগ্যের ফেরে আবার তাঁদের সঙ্গেই বিয়ে হওয়া, কিন্তু কেউ তাঁদের ছোটবেলার পরিচয় সম্বন্ধে অবগত নয়! এই নিয়েই গল্পের বাঁধন!

একটা অ্যাকসিডেন্টে ঋষি-পিহু আলাদা হয়ে যায়। ছোটবেলা থেকেই তাঁদের অটুট সম্পর্ক। কিন্তু একটা দুর্ঘটনা সব ছিন্নভিন্ন করে দেয়। ঋষি জানতে পারে পিহু মারা গিয়েছে। কিন্তু পিহু মারা যায়নি, সে এটার মাসির কাছে মানুষ হয়েছে। বড় হয়ে ঘটনাচক্রে ঋষি-পিহুর ফের আলাপ হয় এবং তাঁদের বিয়েও হয়। তবে বিয়ের কিছুদিন পরেই পিহু, ঋষির পরিচয় জানতে পারলেও ঋষির পিহুর পরিচয় জানতে অনেকটাই দেরি হয়ে যায়!

তবে এখন সবটাই জানাজানি হয়েছে, নায়ক-নায়িকা তাঁদের ছোটবেলার ভালোবাসাকে ফিরে পেয়েছে। তবে তাঁদের পরিবারের রয়েছে প্রচুর শত্রু! তাঁরা রীতিমতো ঋষি-পিহুর সংসার তছনছ করতে উঠে পড়ে লেগেছে! তার মধ্যে এখন প্রতিটি ধারাবাহিকেই চলছে রঙের উৎসব পালন।

তাই এখন ঋষি-পিহুর জীবনেও এসেছে নতুন বসন্ত, নিজেদের ভালোবাসাকে ফিরে পেয়ে একে অপরকে যেন চোখে হারাচ্ছেন তাঁরা। আর সম্প্রতি প্রোমোতে উঠে এল, বাড়ির সবাইকে আড়াল করে ঋষি-পিহু কোথাও একটা নিরিবিলিতে গিয়ে রোমান্সে মেতেছেন, এমনকি প্রিয়দর্শিনীকে ফিরে পেয়ে ঋষি ফের বিয়ে করতে চাইলেন তাঁকে। বাকিটা আগামী এপিসোডগুলিতেই ধরা দেবে, ঋষি-পিহুর জীবনে নতুন কি ঝড় আসতে চলেছে, সেটা জানতেও উৎসুক দর্শকমন্ডলী।

Categories
ভাইরাল ভিডিও

খড়ির কথা মেনে রাহুলকে দ্যুতি ও তার সন্তানের দায়িত্ব নেওয়ার নির্দেশ দিল ঋদ্ধিমান, রইল ভিডিও

স্টার জলসার (Star Jalsha) অন্যতম জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘গাঁটছড়া’ (Gantchhora)। যতো দিন যাচ্ছে ততই যেন মানুষের মন কাড়ছে এটি। আর ধারাবাহিকের একের পর এক টু‌ইস্ট দর্শকদের চোখ আটকে রাখছে টিভির পর্দায়। তাই তো সন্ধ্যা ৭টা বাজলেই টিভির সামনে বসে পড়েন অনুগামীরা। আবারও এক নতুন টু‌ইস্ট নিয়ে হাজির হলো এটি, সম্প্রতি তার‌ই একটি প্রোমো উঠে আসল নেট দুনিয়াই। যেখানে দেখা যাচ্ছে খড়ির কথা মেনে রাহুলকে দ্যুতি ও তার সন্তানের দায়িত্ব নেওয়ার নির্দেশ দিল ঋদ্ধি।

কিছুদিন ধরেই রাহুলের মুখোশ খোলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিল খড়ি, কিন্তু কিছুতেই সফল হচ্ছিল না। পরর্বতী ক্ষেত্রে দ্যুতি রাহুলের আসল চরিত্র সম্পর্কে জানতে পারলে খড়ির দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়। তবু শত চেষ্টা করেও ফের ব্যর্থ হয় দুজনে। বাড়ির সকলের কাছে রাহুল একের পর এক ভুল প্রমাণ দিয়ে মিথ্যবাদী প্রমাণ করে খড়ি ও তাঁর বোন দ্যুতিকে।

আর তখনই দ্যুতির মা হ‌ওয়ার কথা প্রকাশ্যে আসে। এর পরেই ঋদ্ধিমান খড়ির পাশে এসে দাঁড়ান এবং রাহুলকে সকলের সামনে বলেন- ‘হয় তুই দ্যুতিকে বিয়ে করে ওকে আর ওর সন্তানকে অধিকার দিবি নয়তো পরিবারের সব সম্পত্তির অধিকার হারাবি তুই।’ আর পরক্ষণেই খড়ির দিকে চেয়ে ঋদ্ধিমান খড়িকে বলল, ‘এই সিদ্ধান্তের জন্য আমাকে যেন পশ্চাতে না হয়।’ এর উত্তরে খড়ি বলল কথা দিলাম। তাদের এই কথোপকথন দেখে স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে খড়ির উপর সমস্ত দায়িত্ব দিয়ে গেলেন ঋদ্ধি বাবু।

‘গাঁটছড়া’ ধারাবাহিকের দর্শকেরা এতদিন চেয়েছিলেন যাতে ঋদ্ধি ও খড়ির মধ্যে সব ভুল বোঝাবুঝি দূর হয়ে সুন্দর সম্পর্ক গড়ে ওঠে। আর এই লেটেস্ট প্রোমো সামনে আসতেই যেন এক নতুন আশার আলো দেখা যাচ্ছে। দর্শকদের মনে প্রশ্ন উঠছে- তাহলে কি ধারাবাহিকের নতুন মোড় ঋদ্ধি ও খড়ির ভালোবাসার গল্প এগিয়ে নিয়ে যেতে চলেছে? নাকি আসবে আবারো এক নতুন চমক!

Categories
নিউজ

বাড়তে পারে উষ্ণতার পারদ, ঘূর্ণিঝড়ের কতটা প্রভাব পড়বে বাংলায় উপর!

সম্প্রতি আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন বঙ্গোপসাগরে তৈরি হচ্ছে ঘূর্ণিঝড় অশনি। দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া সেই ঘূর্ণিঝড় আস্তে আস্তে শক্তি বাড়িয়ে নিম্নচাপে পরিণত হবে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা। এই ঘূর্ণিঝড়ের অবস্থান এখন দক্ষিণ আরব সাগর এবং দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরের মধ্যস্থলে।

কিন্তু এই ঘূর্ণিঝড়ে বিশেষ কিছু সুবিধা হবে না পশ্চিমবঙ্গের। বরং উত্তরোত্তর তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাবে বলেই জানিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর। আলিপুর আবহাওয়া দফতরের অধিকর্তা জানিয়েছেন, সামনের সপ্তাহে কিছুটা তাপমাত্রার পরিবর্তন হতে পারে কারণ প্রচুর জলীয় বাষ্প ঢুকতে পারে দক্ষিণবঙ্গের কিছু উপকূলবর্তী জেলাগুলিতে।

আজ রবিবার সপ্তমে থাকবে আবহাওয়ার পারদ। নাজেহাল ভ্যাপসা গরমে হাঁসফাঁস করতে হবে শহরবাসীকে। আর্দ্রতা জনিত অস্বস্তিও বজায় থাকবে। সোম থেকে বুধবার এই তিন দিন নিম্নচাপের জেরে আকাশ আংশিক মেঘলা থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই স্পষ্টত যে অস্বস্তি বাড়বে তা বোঝাই যাচ্ছে।

বসন্তকে বলা হয় ঋতুরাজ। কিন্তু ঋতুরাজ যেন এবার বেশ অভিমানী। গত শুক্রবার চলে গিয়েছে দোল। কিন্তু বাংলার মানুষ যেন এখনও ঠিক করে বসন্তকে পায়নি। গ্রীষ্মের একচেটিয়া দাবদাহে যেন চাপা পড়ে গিয়েছে বসন্তের আমেজ।

আপাতত আবহাওয়াতে শুষ্ক এবং উষ্ণ অবস্থায় বজায় থাকবে বলে জানিয়েছেন হাওয়া অফিস। আজ কলকাতায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা হতে পারে ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা হতে পারে ২৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রি বেশি। তবে রাতের দিকে কিছুটা হলেও তাপমাত্রা কমবে ফলে বসন্তের সামান্য আমেজ পেতে পারে বঙ্গবাসী। উত্তরের জেলাগুলিতে সামান্য বৃষ্টির সম্ভাবনা আগামী দিনে থাকছে। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৯২ শতাংশ, ন্যূনতম ২৪ শতাংশ।

নিম্নচাপ বা ঘূর্ণিঝড়ের সরাসরি প্রভাব না পড়লেও বঙ্গোপসাগর থেকে প্রচুর জলীয় বাষ্প ঢুকবে আমাদের রাজ্যে। এর ফলে শুষ্ক আবহাওয়ার মাঝেই জলীয়বাষ্প বাড়তে থাকায় অস্বস্তিতে ধীরে বাড়বে। ২২ মার্চ মঙ্গলবার আংশিক মেঘলা আকাশের সম্ভাবনা রয়েছে উপকূলের জেলাগুলিতে। আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে আগামী কয়েকদিন ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি, প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা। সঙ্গে ৭০ থেকে ১০০ কিলোমিটার গতিবেগে ঝোড়ো হাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

Categories
Featured

বয়স শুধু সংখ্যা মাত্র! ৭১- বছর বয়সেও পা দিয়েও চালাতে পারেন JCB ও বুলডোজার সহ ২০ ধরনের গাড়ি

পুরুষতান্ত্রিক সমাজে মেয়েরা যে ধীরে ধীরে এগিয়ে যাচ্ছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। বিভিন্ন ভাবে পারদর্শী করে তুলছে নিজেদের, ছেলেদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এগিয়ে চলছে। এবার সেই নিদর্শন আর‌ও সুস্পষ্ট হয়ে উঠলো এই ঘটনার মাধ্যমে।রাধামণি আম্মা চালাতে পারেন JCB, বুলডোজারের মতো গাড়ি।

সমাজে এখন‌ও নারী-পুরুষের ভেদাভেদ রয়েছে তা আর‌ও সুস্পষ্ট হয়ে ওঠে কর্মের ভেদাভেদ লক্ষ্য করলেই। নির্দিষ্ট কিছু কর্মকে বেঁধে দেওয়া হয়েছে নারীদের জন্য, তাই তো গাড়ি চালানো আজ‌ও পুরুষদের কর্ম বলে মনে করা হয়। তবে সেই ধারণাকে সম্পূর্ণ ভেঙে দিলেন তিনি।

তামিলনাড়ুর থপ্পুমপাদির বাসিন্দা রাধামণি আম্মা। বয়স ৭১ বছর, তাতে কি! বয়সটাও তাঁর কাছে তুচ্ছ হয়ে দাঁড়িয়েছে কেননা এই বয়সেও কোনো কিছুর পরোয়া না করেই চালাচ্ছেন রোডরোলার, জে সি বি , বুলডোজার, ট্রাক এর মতো ভারী গাড়ি। যেগুলির স্টিয়ারিং হাতে সাধারণত দেখা মেলে পুরুষদের।

সমাজে এখন‌ও নারী-পুরুষের ভেদাভেদ রয়েছে তা আর‌ও সুস্পষ্ট হয়ে ওঠে কর্মের ভেদাভেদ লক্ষ্য করলেই। নির্দিষ্ট কিছু কর্মকে বেঁধে দেওয়া হয়েছে নারীদের জন্য, তাই তো গাড়ি চালানো আজ‌ও পুরুষদের কর্ম বলে মনে করা হয়। তবে সেই ধারণাকে সম্পূর্ণ ভেঙে দিলেন তিনি।

তামিলনাড়ুর থপ্পুমপাদির বাসিন্দা রাধামণি আম্মা। বয়স ৭১ বছর, তাতে কি! বয়সটাও তাঁর কাছে তুচ্ছ হয়ে দাঁড়িয়েছে কেননা এই বয়সেও কোনো কিছুর পরোয়া না করেই চালাচ্ছেন রোডরোলার, জে সি বি , বুলডোজার, ট্রাক এর মতো ভারী গাড়ি। যেগুলির স্টিয়ারিং হাতে সাধারণত দেখা মেলে পুরুষদের।

একটি সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, মূলত স্বামীর নির্দেশেই ৩০ বছর বয়সে থেকে শুরু করেন গাড়ি চালাতে। তবে ধীরে ধীরে তা শখে পরিণত হতে থাকে। ১৯৮১ সালে মোটরবাইক চালানোর প্রথম লাইসেন্স মেলে। ঠিক তার ৭ বছর পর অর্থাৎ ১৯৮৮ সালে হাতে পান ভারী গাড়ি চালানোর লাইসেন্স। বর্তমানে তাঁর কাছে রয়েছে ১১ ধরণের ভারী গাড়ি চালানোর লাইসেন্স। শুধু তাই নয় আর্থমুভার, ফর্কলিফট, মোবাইল ক্রেন, ট্রেইলার এর মতো ২০ ধরণের ভারী গাড়ি চালাতে তিনি সক্ষম ,যা সত্যিই অকল্পনীয়। হাজাডার্স টন পণ্য পরিবহনের লাইসেন্স পান ২০২১ সালে। এখানেই থেমে থাকেন নি তিনি। ড্রাইভিং শেখানোর একটি প্রতিষ্ঠান‌ও রয়েছে তাঁর, যেটি স্বামীর সহায়তায় ১৮৭৮ সালে চালু করেন। অনেকে যা ভাবতেই পারেন না সেই আসাধ্য সাধন করছেন তিনি।

Categories
বিনোদন

ফুটপাত থেকে রাজপ্রাসাদ, সিনেমার গল্পকেও হার মানাবে মিঠুনের দত্তক কন্যার জীবনকাহিনী

 

টলি বলি দুই মিলিয়ে এককালে রাজ করেছেন তিনি। সামান্য একজন স্ট্রিট ডান্সার থেকে হয়ে উঠেছিলেন বলিউড ও টলিউডের স্টার। তাই হয়তো তাকে বলিউডের ডিসকো ডান্সার বলেই বেশিরভাগ মানুষ চেনে। এতক্ষণে হয়তো বুঝে গিয়েছেন এখানে কার কথা বলছি তিনি আর কেউ নন সকলের প্রিয় অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী।

 

তবে এককালে দুই ইন্ডাস্ট্রি জুড়ে রাজ করলেও বর্তমানে সিনেমার পর্দায় তার সেভাবে দেখা মেলে না। তবে বেশ কিছু ডান্স রিয়েলিটি শো-তে তাকে মাঝে মাঝেই দেখা। এছাড়া বয়সের সাথে সাথে শরীরে বাসা বেঁধেছে বেশ কিছু রোগ। মাঝেমাঝেই সংবাদের শিরোনামে ভেসে ওঠে তার অসুস্থতার কথা। কিন্তু অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী যেরকম বড় অভিনেতা সেরকমই তার মন।

 

ঘটনাটি বেশ কয়েক বছর আগেকার। কলকাতার রাস্তার পাশে একটি ডাস্টবিনে বেশকিছু পথচারী দেখতে পান একটি কন্যা শিশুকে। মূলত কন্যা সন্তান হওয়ার জন্যই তাকে ডাস্টবিনে ফেলে দিয়েছিল তার মা-বাবা। কিন্তু সেই মেয়ের ভাগ্যে হয়তো অন্য কিছু লেখা ছিল। তাই খবর পাওয়া মাত্র পুলিশ গিয়ে উদ্ধার করে সেই শিশুকে এবং তার দায়িত্ব নেয় একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। কিন্তু ঘটনাটি অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তীর কানে যাওয়া মাত্রই চুপ করে বসে থাকেন না।

 

বহুদিন ধরেই একটি কন্যা সন্তানের আশা ছিল মিঠুন চক্রবর্তীর। তাই খবর পাওয়া মাত্রই পৌঁছে যান সেই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কাছে এবং সেই মেয়েটিকে দত্তক নেন অভিনেতা ও তার স্ত্রী যোগিতা বালি। মেয়েটিকে প্রথম দেখতেই মায়া জন্মে গিয়েছিল মিঠুন চক্রবর্তীর। তাই সারারাত মেয়েটিকে কোলে করে নিয়েই সমস্ত আইনি সমস্যা মিটিয়ে ছিলেন অভিনেতা।

সমস্ত আইনি প্রক্রিয়া শেষ করে অবশেষে বাড়ি নিয়ে যান সে কন্যাশিশুটিকে। সাথে মেয়েটিকে নিজের পরিচয় দেন এবং নাম রাখেন দিশানী চক্রবর্তী। তিন দাদার মাঝে বেশ আদরে বড় হয়েছেন দিশানী। পাশাপাশি মিঠুনেরও খুব আদুরে তার এই কন্যা‌। তাই সবসময় আদরে ভরে রাখেন মেয়েকে। অবশ্য মেয়েও বাবাকে ছাড়া কিছু বোঝেনা। দিশানীর সাথে তার বাবা অর্থাৎ অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তীর দারুন সম্পর্ক।

 

কিন্তু সেই মেয়ে এখন কোথায় তা কারো জানা নেই। সেই ছোট্ট দিশানী এখন প্রায় যুবতী হয়ে গিয়েছে। তাই সিনেমা জগতে নিজের পরিচয় তৈরি করতে রীতিমতো প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন তিনি। সেজন্য নিউইয়র্ক ফিল্ম একাডেমি থেকে ফিল্ম স্টাডি নিয়ে পড়াশোনা করছেন তিনি। যুবতী দিশানীর সাথে টলি-বলির একাধিক পরিচালক ও অভিনেতা অভিনেত্রীদের সাথে যোগাযোগ রয়েছে তার। তাই অনেকেই মনে করছেন নিজের বাবার মতোই অভিনয় জগতে বেশ নাম কামাতে চলেছেন দিশানী।

তবে ইতিমধ্যে তিনি বেশকিছু প্রজেক্টে কাজ করে ফেলেছেন। ২০১৭ সালে মুক্তি পাওয়া ‘Holy Smoke’ সিনেমায় অভিনয়ের মাধ্যমে অভিনয় জগতে পা রাখেন তিনি। যেই ছবির পরিচালক ছিলেন তার দাদা অর্থাৎ মিঠুন চক্রবর্তীর ছেলে উশমে চক্রবর্তী। এরপরও থেমে থাকেননি মিঠুন কন্যা। বেশ কিছু শর্ট ফিল্মে অভিনয় করেছেন তিনি। তবে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়াতেও বেশ জনপ্রিয় দিশানী। ইতিমধ্যেই হাজার হাজার ফলোয়ার রয়েছে তার ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে। এছাড়াও বিভিন্ন সময় বিভিন্ন হট ফটোশুট এর মাধ্যমে নেটিজেনদের মাতিয়ে রাখেন তিনি।