Categories
অফবিট ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

খোলা আকাশের নীচে দুর্দান্ত অঙ্গভঙ্গিতে অসাধারণ নাচ সুন্দরী যুবতীর, রইল ভিডিও

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে জনপ্রিয় হিন্দি গান ‘ছাম্মা ছাম্মা’ (Chamma Chamma) তে উমা মীনাক্ষী (Uma Minakshi) নামে একজন বিমানসেবিকার দুর্দান্ত নাচের ভিডিও। নেটিজেনরা বেশ মুগ্ধ হয়েছেন তাঁর নাচ দেখে।

১৯৯৮ সালে মুক্তি পেয়েছিল রাজকুমার সন্তোষী (Rajkumar Santoshi) পরিচালিত ‘চায়না গেট’ (China Gate) সিনেমাটি। এই সিনেমারই বিখ্যাত গান এটি। সমগ্র গানটি দৃশ্যায়িত হয়েছিল অভিনেত্রী উর্মিলা মাতণ্ডকর (Urmila Matondkar) উপরে। সিনেমার বাকি কলাকুশলীদের এই গানে দেখতে পাওয়া গেলেও মূল আকর্ষণ ছিলেন উর্মিলা। তাঁর নৃত্য দক্ষতায় গানটি সেইসময় খুব জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। সেই বিখ্যাত গানেই পা মেলালেন এই বিমানসেবিকা।

কথায় বলে ‘যে রাঁধে সে চুলও বাঁধে’। সেই কথাই প্রমান করে দিল এই বিমান সেবিকাটি। নিজের পেশাগত গন্ডির বাইরে বেরিয়ে একেবারে অন্য ভূমিকায় ধরা দিয়েছেন তিনি । ইতিমধ্যে তাঁর নাচের কারণে সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ ভাইরালও হয়েছেন । ভাইরাল ভিডিওটিতে বিমান সেবিকার পরনে ছিল বটল গ্রিন রঙের শর্ট স্কার্ট এবং কালো রঙের টি শার্ট। বর্ষার মরসুমে বাড়ির ছাদের উপরে এই গানে দুর্দান্ত নৃত্য পরিবেশন করেছেন তিনি। তবে এই প্রথমবার নয়। এর আগেও ইনস্টাগ্রামে বিভিন্ন নাচের রিলস আপলোড করে নেটিজেনদের মন জয় করে নিয়েছেন। তাঁর নাচের প্রতিটা স্টেপ এবং প্রকৃতির অপূর্ব শোভার মেলবন্ধনে সমগ্র ভিডিওটি বেশ মনোগ্রাহী হয়ে উঠেছে। কিছুদিন আগে ভিডিওটি আপলোড করা হলেও এর লাইকস এবং কমেন্টস ইতিমধ্যে বেশ ঈর্ষণীয় জায়গায় পৌঁছেছে। ৪৪ হাজারের উপরে মানুষ ভিডিওটিকে পছন্দ করেছেন এবং হাজারের উপরে মানুষ কমেন্টে উমার নাচের প্রশংসা করেছেন।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by UMA MEENAKSHI (@yamtha.uma)

সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে বর্তমানে ভিন্ন পেশার অনেক মানুষের একেবারে অন্য রূপও ধরা পরে সবার সামনে। চিরাচরিত রূপের থেকে অন্য রূপে তাঁদের দেখতে পেয়ে সবাই বেশ আনন্দিত হন। এইভাবেই ইন্টারনেট এবং মুঠোফোনের যুগলবন্দিতে প্রতিদিনই সামাজিক মাধ্যম আরো বেশি করে সবার কাছে অনায়াসে পৌঁছে যাচ্ছে।

Categories
অফবিট ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

মাত্র ১৫ মাস বয়সে তবলা বাজিয়ে তাক লাগাল খুদে, ঝড়ের গতিতে ভাইরাল ভিডিও

সোশ্যাল মিডিয়ায় সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে ১৫ মাস বয়সের এক খুদে তবলচির অসাধারণ উপস্থাপনা। নেটিজেনরা এই খুদে শিল্পীটির প্রতিভা দেখে মুগ্ধ।

ভাইরাল ভিডিওটি আপলোড করা হয়েছিল আসিফ ফিরদৌসী (Asif Firdousi) নামে এক ব্যক্তির ইউটিউব চ্যানেল থেকে। ভিডিওটিতে খুদে শিল্পীর পরনে ছিল সবুজ রঙের গেঞ্জি এবং নীল রঙের হাফ প্যান্ট। মেঝেতে বসে আপন মনে তবলা বাজাচ্ছে সে। এই বয়সে পরিণত মানুষের মতো তবলা বাজানো খুদেটির পক্ষে সম্ভব না হলেও চেষ্টায় কোনো খামতি রাখেনি। চিরাচরিত তবলার বোল শুনতে পাওয়া না গেলেও নেটিজেনরা বেশ প্রশংসা করেছেন খুদেটির অসাধারণ এই প্রতিভাকে। ভিডিওটিতে জনৈক কোন ব্যক্তির স্বর শুনতে পাওয়া গিয়েছে যিনি খুদেটিকে তবলার বোল ‘না ধিন ধিন না’ শেখানোর চেষ্টা করছেন। তবলায় মনের সুখে চাঁটি মারার সঙ্গে বোলটিকে নিজের মতো করে বলারও চেষ্টা করছে সে। আধো আধো বুলিতে তবলার বহু প্রচলিত বোলকে নতুনভাবে শুনতে পেয়েছে দর্শক। তবলা বাজাতে ভালোবাসলেও টানা বাজানো সম্ভব নয় বলে মাঝে মধ্যে খুদেটিকে বিশ্রাম নিতেও দেখতে পাওয়া গিয়েছিল। সব মিলিয়ে বেশ মনোগ্রাহী ভিডিও ছিল এটি যা নিমেষেই সবার মন জয় করে নিয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় সব রকমের ভিডিও ভাইরাল হয়। এর মধ্যে শিশুদের ভিডিও এক অনাবিল আনন্দ দেয় সবাইকে । এই ভিডিওটিও সেইরকমই আনন্দদায়ক একটি ভিডিও। ছোটবেলা থেকে এইসব প্রতিভাবান শিশুদের উৎসাহ দিলে ভবিষ্যতে তাদের প্রতিভার বিকাশ আরও ভালোভাবে হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে । তবে এই এই খুদেটির প্রচেষ্টা দেখে বোঝা যাচ্ছে আগে গিয়ে তার মধ্যে অনেক বড় তবলাবাদক হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতেই বর্তমানে এইরকম প্রতিভাবান শিল্পীদের খোঁজ পাওয়া যায় আর এদের ছোট্ট প্রয়াস অতি সহজেই সবার মন ছুঁয়ে যায়।

Categories
অফবিট ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

প্রকৃতির মাঝে গল্পে মত্ত বাদাম কাকু ও মাছ কাকু, রইল ভিডিও

সম্প্রতি ‘বাদাম কাকু’ ভুবন বাদ্যকারের (Bhuban Badyakar) সাথে এক ভিডিওতে দেখতে পাওয়া গিয়েছে ‘মাছ কাকু’ বলে পরিচিত কুশল বাদ্যকারকে (Kushal Badyakar)। বর্তমান যুগের এই দুই সেনসেশনকে একসাথে দেখতে পেয়ে স্বভাবতই বেশ উচ্ছসিত নেটিজেনরা।

জীবিকা নির্বাহের জন্য সাইকেলে করে বাদাম বিক্রি করতেন বীরভূমের দুবরাজপুরের বাসিন্দা ভুবন বাদ্যকার। তাঁর গাওয়া ‘কাঁচা বাদাম’ (Kacha Badam) গানটি জনপ্রিয় হয়ে যাওয়ার পরে রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। তাঁর এই গানটির জনপ্রিয়তা একসময় দেশ কালের গণ্ডি ছাড়িয়ে বিদেশেও ছড়িয়ে পড়েছিল। কিছুদিন আগে নিজের একক অ্যালবামও প্রকাশিত হয়েছিল তাঁর। অন্যদিকে পশ্চিম বর্ধমানের মাছ ব্যবসায়ীর ক্ষেত্রেও একইরকম ঘটনা ঘটেছে। মাছ বিক্রি করার সময় কুশলবাবু ক্রেতাদের উদ্দেশ্যে যে গান করতেন একসময় সেই গানই তাঁকে প্রচারের আলোয় নিয়ে এসেছিল। কিছুদিন আগে কুশলবাবুও নিজের একটি গানের অ্যালবাম প্রকাশ করার সুযোগ পেয়েছেন।

আরবিএইচ ক্রিয়েশন (RBH CREATION ) নামে ইউটিউব চ্যানেল থেকে যে ভিডিওটি বর্তমানে বেশ ভাইরাল হয়েছে তাতে এই দুই শিল্পীকে একসাথে নিজেরদের মতো করে সময় কাটাতে দেখা গিয়েছে। এমনকি জমাটি আড্ডার সাথে তাঁরা একসাথে গান বাজনাও করেছেন । গানের কারণেই তাঁদের খ্যাতি আর গানের জন্যই তাঁদের কাছাকাছি আসা বলে জানিয়েছেন এই দুই শিল্পী। বর্তমানে প্রজন্মের এই গায়কদের একসাথে গান গাইতে দেখে অনুরাগীরা যে বেশ আনন্দিত সেটা ভিডিওটির লাইকস এবং কমেন্টস থেকেই বোঝা গিয়েছে। গানের পাশাপাশি বর্তমানে ভুবনবাবু যাত্রা পালার সাথেও জড়িত। ‘খোকাবাবুর খেলাঘর’ নামে যাত্রাপালাতে তাঁকে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে। যাত্রার কারণেই দেউল পার্কে এসেছিলেন ভুবনবাবু। সেইখানেই তাঁর সাথে দেখা করতে হাজির হয়েছিলেন কুশলবাবু।

সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে অনেক অনামী কিন্তু প্রতিভাবান শিল্পীরা পরিচিতি পায়। তাই প্রতিভা বিকাশের মঞ্চ হিসাবে এইসব শিল্পীদের কাছে সামাজিক মাধ্যমই সবচেয়ে বড়ো ভরসার জায়গা হয়ে উঠেছে। ইন্টারনেট এবং মুঠোফোনের যুগলবন্দিতে এইভাবেই আগামী দিনেও খ্যাতি পাবে বাদাম কাকু কিংবা মাছ কাকু অথবা ভিন্ন পেশার কোন মানুষ।

Categories
অফবিট ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

নিজের জীবন বাজি রেখে সন্তানদের বাঁচাতে কিং কোবরার সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই মা মুরগির, ভাইরাল ভিডিও

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে মুরগির সাথে এক কেউটে সাপের লড়াইয়ের ভিডিও। সন্তানদের বাঁচাতে অসম এই লড়াইয়ে মুরগির সাহসের প্রশংসা করেছেন নেটিজেনরা।

পৃথিবীতে সন্তানকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসেন মা। সন্তানদের জন্য সবরকমের প্রতিকূল পরিস্থিতির মোকাবিলা করতেও পিছপা হন না তাঁরা। শুধুমাত্র মানুষের ক্ষেত্রেই নয় পশু পাখি সবার ক্ষেত্রেই এটি দেখতে পাওয়া যায়। সন্তানকে ভালো এবং নিরাপদে রাখার সবরকমের প্রচেষ্টা করে থাকেন মায়েরা।

‘ওয়াইল্ড কোবরা’ (Wild Cobra) নামে একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে ভাইরাল হয়েছিল ভিডিওটি। ভিডিওটিতে দেখতে পাওয়া গিয়েছে একটি মুরগির খাঁচার মধ্যে ঢুকে গিয়েছে একটি বিশালাকায় কেউটে সাপ। দশটি ছানা নিয়ে সেখানে সংসার পেতেছিল মা মুরগি। মুরগির ছানাগুলিকে শিকার করার জন্যই যে সাপের আগমন সেটা বুঝতে পেরেই ঝাঁপিয়ে পড়ে মা মুরগি। কেউটে সাপ পৃথিবীর অন্যতম বিষাক্ত সাপ, যার এক ছোবলেই মৃত্যু অনিবার্য। কিন্তু সন্তানদের রক্ষা করার জন্য নিজের আসন্ন মৃত্যুকে সামনে দেখতে পেয়েও যথাসাধ্য লড়াই করেছে মুরগিটি। নিজের ঠোঁট দিয়ে ক্রমাগত আঘাত করে গিয়েছে সাপটিকে। সাপটিও তার ফণা দিয়ে মুরগিটিকে আঘাত করেছে। তবে সাপের বারংবার ছোবল খাওয়া সত্ত্বেও নিজের সন্তানদের বাঁচাতে লড়াই চালিয়ে গিয়েছে মুরগিটি। তবে শেষ পর্যন্ত এই লড়াইয়ে মাতৃত্বের জয় হয়েছে কিনা সেটা জানা যায়নি। ভিডিওটি আপলোডের কিছুক্ষণের মধ্যে ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল। অসংখ্য লাইকস এবং কমেন্টস এসেছিল ভিডিওটিতে। প্রত্যেকেই মা মুরগির প্রশংসা করেছেন। মায়েরা সন্তানদের জন্য লড়াই করতে যে ভয় পায়না সেটা এই মুরগিটি সবাইকে দেখিয়ে দিয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে বর্তমানে বিভিন্ন ধরণের ভিডিও দেখতে পাওয়া যায়। এর মধ্যে কিছু হাড়হিম করা ভিডিও থাকে। এই ভিডিওটি দেখে মানুষের গায়ে কাঁটা দিলেও মা মুরগির এই লড়াই দেখে অনেকেই বেশ অনুপ্রাণিত হয়েছেন। মায়ের ভালোবাসা এবং স্নেহ মানুষ ভাষায় প্রকাশ করতে পারে। এমনকি প্রতিবাদ করলেও সবাই বুঝতে পারে। কিন্তু যারা পারে না তাদের প্রকাশের ভিন্ন ভাষা দেখতে পাওয়া গেল এই ভিডিওর মাধ্যমে।

Categories
অফবিট ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

সমুদ্রের পাড়ে অসাধারণ অঙ্গভঙ্গিতে বেলি ডান্স করে তাক লাগালেন সুন্দরী যুবতী, রইল ভিডিও

বেলি ড্যান্সের ড্যান্সের মাধ্যমে সোশ্যাল মিডিয়ায় নেটিজেনদের মন জিতে নিয়েছেন মার্কিন মহিলা মিস থেয়া (Miss Thea)। বেশ কিছুদিন আগে ভাইরাল হয়েছিল তাঁর নাচের ভিডিওটি। দর্শকরা ইতিমধ্যে বেশ পছন্দ করেছেন তাঁর নাচ।

বেলি ড্যান্সে তাঁর পারদর্শিতা সমগ্র উপস্থাপনার মধ্যে বারবার ফুটে উঠেছে। তার উপরে সমুদ্রের মনোরম পরিবেশ একটা আলাদা মাত্রা যোগ করেছে তাঁর নাচের মধ্যে। বেশ দৃষ্টিনন্দন পুরো উপস্থাপনাটি। থেয়া দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার একটি ড্যান্স একাডেমির ইন্সট্রাক্টর। এর পাশাপাশি তিনি একজন দক্ষ পারফর্মার। ভাইরাল ভিডিওটিতে থেয়ার পরনে ছিল কালো রঙের বিকিনি এবং স্কার্ট। থেয়া তাঁর অসাধারণ নাচের মধ্যে দিয়ে পুরনো দিনের ব্যান্ড ক্যামেলের (Camel) নস্টালজিয়া নতুন করে ফিরিয়ে এনেছেন দর্শকদের মধ্যে।

১৯৮১ সালে মুক্তি পেয়েছিল এই ব্যান্ডের অ্যালবাম ‘চামেলিওন’ (Chameleon) । থেয়া যে গানে নাচ করেছেন সেটি এই অ্যালবাম থেকেই নেওয়া। ১৯৭১ সালে তৈরী হয়েছিল প্রোগ্রেসিভ ব্যান্ড ক্যামেল। রক গান ছাড়াও জ্যাজ, ফোক কিংবা ক্লাসিকাল মিউজিকের কারণেও এই ব্যান্ডের জনপ্রিয়তা হয়েছিল আকাশছোঁয়া। যারা আগে এই ব্যান্ডের গান শোনেনি তাঁরা থেয়ার এই মনোমুগ্ধকর ভিডিওটি দেখার পরে নাচের সাথে সাথে গানটিরও প্রেমে পড়ে গিয়েছেন। দর্শক এতটাই পছন্দ করেছেন তাঁর এই পাফরম্যান্স যে ভিডিওটির লাইকস এবং ভিউস সংখ্যা বেশ ঈর্ষণীয় জায়গায় পৌঁছে গিয়েছে। বর্তমানে ভিডিওটির লাইকস সংখ্যা ২ হাজার এবং ভিউস সংখ্যা ৩ লাখের উপরে।

ভিডিওটি পুরনো দিনের ভালোলাগায় আচ্ছন্ন করে দিয়েছিল দর্শকদের। শুধুমাত্র এই ভিডিওর ক্ষেত্রেই নয় এর আগেও এইরকম হয়েছে। পুরানো দিনের হারিয়ে যাওয়া কোনো গান আবার নতুন করে ধরা দিয়েছে দর্শকদের কাছে। সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে মানুষ নতুন করে প্রেমে পড়েছে পুরানের ।

Categories
অফবিট ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

দুর্দান্ত কায়দায় বোতল দিয়ে এক ঝাঁক মাছ ধরলেন তরুণ, ঝড়ের গতিতে ভাইরাল ভিডিও

অভিনব পদ্ধতিতে মাছ ধরে নেটদুনিয়ায় তাক লাগিয়ে দিলেন এক যুবক। বর্তমানে বেশ ভাইরাল হয়ে গিয়েছে তাঁর এই ভিডিও। অনেকেই যে তাঁর এই পদ্ধতি ইতিমধ্যে প্রয়োগ করা শুরু করেছেন সেটা বলাই বাহুল্য।

মাছ ভাত প্রিয় বাঙালির মাছ না হলে খাওয়া সম্পূর্ণ হয়না। দুপুর কিংবা রাতের খাদ্যতালিকা থেকে শুরু করে কোন অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে মাছ মেনুতে থাকবেই। গ্রামে অনেকেরই নিজস্ব পুকুর রয়েছে। পুকুরের টাটকা মাছের স্বাদ এবং পুষ্টিগুণ স্বভাবতই বেশি। কিন্তু পুকুর থাকা সত্ত্বেও অনেকেই মাছ ধরার কৌশল জানেন না। সেইজন্য বাজার থেকেই মাছ কিনে আনতে হয় অধিকাংশ মানুষকে।

এই সমস্ত সমস্যার সমাধান একপ্রকার করে দিয়েছে এই যুবকটি। ‘ফিশ এন্ড ফিশিং’ (Fish and Fishing) নামে ইউটিউব চ্যানেল থেকে ভাইরাল হয়েছে যুবকটির এই ভিডিও। ভাইরাল ভিডিওটিতে দেখতে পাওয়া গিয়েছে, শুধুমাত্র বোতলের সাহায্যেই খুব অনায়াসে তিনি মাছ ধরছেন। বোতলের সাহায্যে মাছ ধরতে গেলে প্রয়োজন মাছের খাবার, প্লাস্টিকের বোতল এবং একটি সুতো। প্রথমে যুবকটি প্লাস্টিকের বোতলটিকে মাঝ বরাবর একটি বড় ছিদ্র করে নিয়েছেন। এর পরে প্লাস্টিকের বোতলের ঢাকনা ভালো করে বন্ধ করে সুতো দিয়ে বেঁধে দিয়েছে। এর ফলে মাছ বোতলের মধ্যে বন্দি হলেও বেরিয়ে আসতে পারবে না। বোতলের মুখ বেঁধে দেওয়ার আগে বোতলের মধ্যে দিয়ে দিয়েছে মাছের খাবার। খাবারের লোভে মাছ বোতলবন্দি হবে। বোতলটিকে সুতো বাঁধা অবস্থায় জলের মধ্যে চুবিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর বেশ কিছুক্ষণ পরে দেখতে পাওয়া গিয়েছে অনেক মাছ বোতলের মধ্যে ধরা পড়েছে। এইভাবেই একেবারে ঘরোয়া পদ্ধতিতে মাছ শিকার করেছেন যুবকটি।

বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে অনেকরকমের ভিডিও ভাইরাল হয়। অনেকসময় শিক্ষণীয় কিছু ভিডিও থাকে যা থেকে অনেক কিছু শেখা যায়। বর্তমানে ইন্টারনেট এবং স্মার্টফোনের যুগলবন্দিতে সামাজিক মাধ্যম মানুষের হাতের মুঠোয় চলে এসেছে। ফলে সব রকমের ভিডিও দেখার সুযোগ পাচ্ছেন সব শ্রেণীর মানুষ। সমাজের সঙ্গে তাঁদের ব্যক্তিগত অনেক উন্নতি হচ্ছে এই কারণে।

Categories
অফবিট নিউজ ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

ঘন জঙ্গলে দেখা মিলল ‘বিরল’ কালো বাঘের, নেটদুনিয়ায় তুমুল গতিতে ভাইরাল ভিডিও

সোশ্যাল মিডিয়ায় সম্প্রতি বেশ ভাইরাল কালো ডোরাকাটা বাঘের বিরল দৃশ্যের ভিডিও । ১৫ সেকেন্ডের এই ভিডিওটি সবারই মুঠোফোনে বর্তমানে বন্দি।

ভারতের জাতীয় পশু বাঘ। কিন্তু রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের গর্বে গর্বিত ভারতে বর্তমানে চোরাশিকারিদের দৌলতে বাঘ লুপ্তপ্রায় প্রাণীতে পরিণত হয়েছে। চিড়িয়াখানাতেই এখন বাঘের দেখা মেলে। এই অবস্থায় এইরকম বিরল দৃশ্যের সাক্ষী হতে পেরে নেটিজেনরা বেশ আনন্দিত। যদিও জঙ্গলের এই ক্ষিপ্র প্রাণীটিকে সবাই ভয় পায়। তা সত্ত্বেও বাঘেদের কার্যকলাপ ডিজিটাল দুনিয়ার মাধ্যমে দেখতে সবাই ভালোবাসেন।

বনবিভাগের অফিসার সুশান্ত নন্দার (Susanta Nanda) টুইটে ধরা পড়েছে বিরল প্রজাতির এই বাঘের ভিডিও। উড়িষ্যার (Odisha) সিমলিপাল জাতীয় উদ্যানে (Simlipal National Park) দেখা মিলেছে এই বাঘের। ভাইরাল হওয়া টুইটার ভিডিওতে দেখা গিয়েছে কালো রঙের বাঘটি গাছের গায়ে আঁচড় দিয়ে চলেছে। আন্তর্জাতিক ব্যাঘ্র দিবস উপলক্ষ্যে সামাজিক মাধ্যমে বেশ ভাইরাল হয়েছে কয়েক সেকেন্ডের এই ভিডিওটি। বনদপ্তরে কাজ করার সুবাদে বন্য জন্তুদের এইরকম অনেক কার্যকলাপ ক্যামেরাবন্দি করার সুযোগ পান সুশান্তবাবু। তাঁর টুইটের কারণেই মাঝে মধ্যেই এইরকম ভিডিও দেখার সুযোগ পান নেটিজেনরা। টুইটে তিনি জানিয়েছেন কালো বাঘের মধ্যে অন্যধরণের জিন বর্তমান। সেকারণে ভারতীয় বনবিভাগ এই বাঘ সংরক্ষণ এবং বংশরক্ষার দিকে বিশেষ খেয়াল দিয়েছেন। বাঘের গায়ে ডোরাকাটা দাগের রহস্যের মূল কারন হল মূলত মিউটেশন (Mutation)। এর কারণেই বাঘের গায়ের কালো ডোরাকাটা দাগ বড়ো হয়ে কালো রং ধারণ করে এবং এর মধ্যে সোনালী ডোরাকাটা দাগ দেখতে পাওয়া যায়।

সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে মানুষ ছাড়াও বন্যপ্রাণী থেকে শুরু করে বাড়ির পোষ্যদেরও নানা ধরণের ভিডিও ভাইরাল হয়। কিছু ভিডিও দেখে গায়ে কাঁটা দিলেও এইসব ভিডিওতে নেটিজেনরা লাইকস এবং কমেন্টস করেন প্রচুর।

Categories
অফবিট

দেহব্যবসা করে চালিয়েছেন পড়াশোনা, সৌন্দর্যের প্রতিযোগিতায় ৭টি আন্তর্জাতিক খেতাব জিতেছেন এই সুন্দরী

ভারতের প্রথম রূপান্তরকামী হয়ে সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় আন্তর্জাতিক খেতাব জিতেছেন মুম্বাইয়ের নাজ জোশি (Naaz Joshi)। তাঁর এই সাফল্যে গর্বিত ভারতবাসী।

ছোটবেলা থেকেই মেয়েদের সাজ পোষাক পছন্দ ছিল নাজের। তাঁর মেয়েলি ব্যবহারের কারণে তাঁর বাবা মা তাঁকে মুম্বাইয়ের এক আত্মীয়র বাড়িতে রেখে এসেছিলেন। সেইখানেই বেড়ে উঠেছেন তিনি। পরবর্তীকালে নিজের পড়াশোনার খরচ নিজেই চালানোর ব্যবস্থা করেছিলেন। এর জন্য ১২ বছর বয়স থেকে বারে নাচও করেছিলেন। মেয়েদের মতো পোষাক পড়ার সুযোগ পাওয়ায় বারের কাজকেই একসময় নিজের পেশা করে নিয়েছিলেন। পাশাপাশি চলছিল পড়াশোনাও ।

নাজ এনআইএফটির কৃতি ছাত্রী। ফ্যাশন ডিজাইনিংয়ে স্নাতক হওয়ার পরে এই দিকেই নিজের কেরিয়ার গড়ার দিকে মনোনিবেশ করেছিলেন তিনি। তবে পড়াশোনার খরচ চালাতে এবং নিজের লিঙ্গ পরিবর্তনের জন্য অর্থের জোগাড় করতে যৌনকর্মী হিসেবেও কাজ করেছিলেন । নিজের তুতো বোনের অকাল মৃত্যুর পরে মডেলিংকে নিজের পেশা হিসেবে বেছে নেন নাজ। ২০১২ সাল থেকে মডেলিং এজেন্সিতে কাজ শুরু করার দু’বছর পরে ২০১৪ সালের মে মাসে এমপ্রেস আর্থের সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন। জুন মাসে তাঁকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছিল।

মোট ১৫ টি দেশের প্রতিযোগীরা অংশ নিয়েছিলেন। সবাইকে হারিয়ে প্রতিযোগিতার প্রথম রূপান্তরকামী হিসাবে সহজেই সেরার খেতাব জিতে নিয়েছিলেন নাজ । নারীদের সাথে অংশ নেওয়ার জন্য অনেক বিদ্রুপের সম্মুখীন হতে হয়েছিল তাঁকে। সবকিছুকে তোয়াক্কা না করে ভারতকে গর্বিত করেছেন নাজ। নাজের বুদ্ধিমত্তার কারণে প্রতিযোগিতার শেষ পাঁচে থাকা কলম্বিয়া, মেক্সিকো, ব্রাজিল এবং স্পেনের সুন্দরীরা পাত্তা পাইনি তাঁর কাছে। প্রথম দিকে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল দুবাইতে। কিন্তু করোনার কারণে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হয় এই প্রতিযোগিতা। নানা ধরণের কাজ দেওয়া হয়েছিল প্রতিযোগীদের। এর পাশাপাশি ইভিনিং গাউন এবং নিজেদের জাতীয় পোশাকে দেশের সংস্কৃতিকে তুলে ধরার দায়িত্বও দেওয়া হয়েছিল প্রতিযোগীদের। সামাজিক দায়িত্ব পালনের কাজে গ্রামের মহিলাদের আত্মরক্ষার পদ্ধতি নিয়ে নিজের মতামত ব্যক্ত করে বিচারকদের মন জিতে নিয়েছিলেন নাজ। এমনকি অতিমারী এবং লকডাউন নিয়েও তাঁর চিন্তাভাবনা প্রসংশিত হয়েছিল সেখানে। এর আগে ২০২০ সালে নাজ জিতেছিলেন মিস ইউনিভার্স ডাইভারসিটির খেতাব। ২০১৭ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত পরপর তিনবার এই খেতাব জিতেছিলেন নাজ। এছাড়া মিস রিপাবলিক ইন্টারন্যাশনাল সৌন্দর্যে রাষ্ট্রদূত হিসেবেও উপস্থিত হয়েছিলেন তিনি ।

পেশাগতভাবে সফল হলেও এখনও তাঁর সামাজিক অবস্থা খুব ভালো নয়। কারণ এখনো সমাজ তাঁদের মত রূপান্তরকামীদের আলাদা নজরে বিচার করে। বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার হয়ে নিয়মিত রূপান্তরকামীদের হয়ে কাজ চলেছেন নাজ। বর্তমানে উন্নত চিকিৎসা পদ্ধতির কারণে দুটি কন্যা সন্তানের জননী তিনি।

Categories
অফবিট ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

হাঁটুর বয়সী যুবকের সঙ্গে ‘রঙ্গবতী’ গানে উদ্দাম নাচ রানু মন্ডলের, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

‘গোত্র’ (GOTRO) সিনেমার রঙ্গবতী (Rangabati) গানে হাঁটুর বয়সী এক যুবকের সাথে তাল মেলালেন রানাঘাটের ইউটিউব সেনসেশন রাণু মন্ডল (Ranu Mondal)। বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ ভাইরাল তাঁর এই নাচের ভিডিও।

রানাঘাট স্টেশনে গান গেয়ে একসময় জীবিকা নির্বাহ করতেন তিনি । সেইখান থেকে বলিউডে গান গাওয়ার সুযোগ অনেকটাই স্বপ্নের মতো। বলিউডের নামি সুরকার এবং সংগীত পরিচালক হিমেশ রেশমিয়ার (Himesh Reshammiya) সাথে বেশ কিছু অ্যালবামে গান গাওয়ার পরে হারিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। গান গেয়ে সঞ্চিত অর্থও একসময় শেষ হয়ে যাওয়ায় বেশ অর্থকষ্টে ভুগছেন বর্তমানে। তবে এককালের এই মিউজিক সেনসেশনকে এখন ভুলতে পারেননি যুবা ইউটিউবাররা।

‘আদি ক্রিয়েশন’ (Adi creation) নামে একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে ভাইরাল হয়েছে রাণু মন্ডলের নাচের ভিডিওটি। জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত গায়িকা ইমন চক্রবর্তীর (Iman Chakraborty ) সাথে এই গানে গলা মিলিয়েছেন সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায়(Surojit Chatterjee)। গানটি মুক্তির পরেই বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। এই ভিডিওতে রাণুকে বেশ অন্যরকম লেগেছে। তাঁর সাজ পোষাকও ছিল ভিন্ন। নাচের সময় তাঁর পরনে ছিল লাল-কালো শাড়ি, সিন্থেটিক ব্লাউজ এবং মানানসই মেকাপ ও কানের দুল। সব মিলিয়ে সবার পরিচিত রাণুর লুকটাই একেবারে আলাদা হয়ে গিয়েছিল। এই যুবকের সাথে এর আগেও রাণুর একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল যেখানে রাণুকে বধূবেশে দেখতে পাওয়া গিয়েছিল। বর্তমানে এই ভিডিওটির লাইকস এবং কমেন্টস সংখ্যা বেশ ভালো জায়গায় পৌঁছে গিয়েছে। তবে নেটিজেনদের একাংশের কটাক্ষের শিকারও হতে হয়েছে এই ভিডিওটিকে।

একসময় গানের জগতে ভালো মতন আশা জাগিয়েও হারিয়ে যেতে হয়েছিল রাণুকে। দারিদ্র্যতার মধ্যে জীবন কাটানোর পরে বর্তমানে আবার করে পুরানো জায়গায় ফিরে আসার চেষ্টা করছেন তিনি। রাণু অনুরাগীদের কাছে এটি খুব খুশির খবর।

Categories
অফবিট ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

খোলা আকাশের নিচে তুমুল রোম্যান্সে মাতলেন দুটি সাপ, মুহূর্তে ভাইরাল ভিডিও

খোলা আকাশের নিচে সাপের বিরল শঙ্খদৃশ্যের ভিডিও বর্তমানে ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সরীসৃপ প্রাণীদের মধ্যে সাপকে সবাই কম বেশি ভয় পায়। তবে দেবতা জ্ঞানে পুজোও করেন অনেকেই। সাপকে সামনাসামনি দেখে ভয় পেলেও সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট লাইকস কিবা কমেন্টস করেন নেটিজেনদের একাংশ। সাপেরদের ভিডিও নিমেষেই ভাইরাল হয়ে যায়।

এইরকমই একটি ভিডিও সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে ‘ভিলেজ ওয়াইল্ড লাইফ’ (Village Wildlife))নামে একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে যেখানে খোলা আকাশের নিচে দুটি সাপ যৌন মিলনে লিপ্ত হয়েছে। সাপেদের যৌন মিলনকে ‘শঙ্খ লাগা’ বলা হয়। এই দৃশ্যকে অনেকেই শুভ বলে মানেন। সেই কারণে এই দৃশ্য দেখার পরে অনেকেই গামছা ছুঁড়ে দেন। এতে মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হয় বলে মনে করা হয়। বাড়িতে নিষ্ঠাসহকারে পুজোও করা হয় এই গামছাটিকে। মূলত নিরীহ এবং আড়ালপ্রিয় প্রাণীটি সবার অলক্ষ্যেই যৌন মিলনে রত হয়। খোলা আকাশের নিচে এই দৃশ্য বেশ বিরল বলেই মনে করা হচ্ছে ।

শিউরে ওঠা ভিডিওটিকে বর্তমানে অনেকেই লাইকস এবং কমেন্টস করলেও চ্যানেলের উদ্দেশ্যে সতর্কবার্তাও নেটিজেনদের একাংশ। কারণ তাঁদের মতে এই দৃশ্য ভিডিও করাটা অনেকটাই ঝুঁকিপূর্ণ।