Categories
ভিডিও লাইফ স্টাইল

পাউরুটি ও ডিম দিয়ে বানিয়ে ফেলুন দুর্দান্ত স্বাদের এই মুখরোচক নাস্তা, রইল রেসিপি

সকালবেলার জলখাবার কিংবা বিকেলের স্ন্যাক্স সবেতেই পাউরুটি এবং ডিমের যুগলবন্দী বাঙালির একেবারে মনের মত পদ। সবার বাড়িতেই প্রায় ডিম এবং পাউরুটি খাদ্যতালিকায় থাকে। ডিম খুব উপকারী এবং পুষ্টিকর। অন্যদিকে পাউরুটিও খুব উপাদেয়। বিভিন্নভাবে পাঁউরুটি খাওয়া হলেও ডিমের সাথে খেতে বেশিরভাগ মানুষই পছন্দ করেন।

উপকরণ :
১.পাঁউরুটি
২.ডিম
৩.নুন
৪.গাজর
৫.চিজ
৬.টমেটো সস
৭.সেদ্ধ চিকেন
৮.বাটার
৯.অলিভ অয়েল।

প্রণালী :
প্রথমে পাউরুটিকে টুকরো টুকরো করে কেটে নিতে হবে। এর পরে একটি মিক্সিং বলে ডিম ফাটিয়ে তার মধ্যে পরিমাণমতো নুন মিশিয়ে দিতে হবে। একটি ফ্রাইং প্যানে বাটার দিয়ে পাউরুটিগুলোকে ভেজে নিতে হবে। এর পরে ২ চামচ অলিভ অয়েল এবং ফেটানো ডিম দিয়ে প্যানের ঢাকনা বন্ধ করে দিতে হবে। এইভাবে দুইপাশ ভালো করে ভেজে নিতে হবে। এর পরে এর উপরে দিয়ে দিতে হবে পরিমাণমতো বাটার, টমেটো সস। চিকেন অল্প পরিমানে সেদ্ধ করে এর মধ্যে মিশিয়ে দিতে হবে। এর ফলে আরো ভালো লাগবে খেতে। এছাড়া মুখের স্বাদের জন্য টমেটো সস এবং চিজ দেওয়া যাবে। অল্প পরিমানে গাজর গ্রেট করে ঢাকনা চাপা দিয়ে কিছুক্ষন রান্না করলেই তৈরী হয়ে যাবে সুস্বাদু এবং স্বাস্থ্যকর এই জলখাবারটি।
গাজর, বাটার এবং ডিমের উপকারিতা একসাথে পাওয়া যাবে এই একটি পদের মধ্যে। অন্যদিকে চিকেনের স্বাদও পাওয়া যাবে ভরপুর। সেদ্ধ হওয়ার কারণে সেটি স্বাস্থ্যের পক্ষে আরো ভালো হবে।

Categories
লাইফ স্টাইল

মাত্র এই কয়েকটি উপকরণ দিয়ে বানিয়ে ফেলুন ‘বেগুন বাহার’, ভাতের সাথে জাস্ট জমে যাবে

আমরা কম বেশি অনেকেই বেগুন খেতে ভালোবাসি। কিন্তু প্রতিদিন বেগুন ভাজা, বেগুনের তরকারি খেতে কারোরই ভালো লাগে না। তাই আজকের এই প্রতিবেদনে একটু অন্যরকম স্বাদের মশালাদার নিরামিষ বেগুনের রেসিপি শেয়ার করা হলো। যা খেতে যেমন দুর্দান্ত তেমনি খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বানিয়ে নেওয়া যায়।

উপকরণ :
১) বেগুন
২) ছোলার ডাল
৩) চিনে বাদাম
৪) টকদই
৫) পোস্ত
৬) কাঁচালঙ্কা
৭) কারিপাতা
৮) হলুদ গুঁড়ো
৯) লঙ্কাগুঁড়ো
১০) জিরেগুঁড়ো
১১) ধনেগুঁড়ো
১২) চালের গুঁড়ো
১৩) নুন
১৪) চিনি
১৫) শুকনো লঙ্কা
১৬) কালো সর্ষে
১৭) সর্ষের তেল

প্রণালী :
প্রথমে বাজার থেকে কিনে আনা সরু সরু বেগুনগুলোকে ধুয়ে পরিষ্কার করে লম্বা লম্বা করে কেটে নিয়ে নুন, হলুদ মাখিয়ে কিছুক্ষণের জন্য রেখে দিন। এরপর কড়াইতে তেল গরম করে নিয়ে ছোলার ডাল, চিনে বাদাম দিয়ে ভেজে নিন। এখন এতে পোস্ত দিয়ে নেড়েচেড়ে নামিয়ে নিন। এরপর একটা প্লেটে বেগুনের পিসগুলো নিয়ে তাতে চালের গুঁড়ো ও চিনি মাখিয়ে নিয়ে মাঝারি আঁচে এপাশ-ওপাশ উল্টে ভেজে নিন। এর পাশাপাশি একটা বাটিতে টক দই, জিরেগুঁড়ো, ধনেগুঁড়ো, লঙ্কা গুঁড়ো,হলুদগুঁড়ো, নুন, চিনি দিয়ে মিশিয়ে একটা মিশ্রণ তৈরি করে নিন।

এখন ওই চিনেবাদাম ভাজা তেলে কালো সর্ষে, শুকনো লঙ্কা ও কারিপাতা ফোড়ন দিয়ে ফেটানো টক দইয়ের মিশ্রণ ও জল দিয়ে কম আঁচে রান্না করে নিন। এখন এতে পোস্ত,বাদাম ও ডালের গুঁড়ো যোগ করে কিছুক্ষণ নেড়েচেড়ে ভেজে রাখা বেগুনগুলো দিয়ে আবারও রান্না করে নিন। এরপর গরম গরম পরিবেশন করুন বেগুনের এই অসাধারণ স্বাদের রেসিপি।

Categories
লাইফ স্টাইল

ডিম ও ময়দা দিয়ে বানিয়ে ফেলুন দুর্দান্ত স্বাদের এই সকালের জলখাবার, শিখে নিন রেসিপি

প্রতিদিন সকালের জলখাবারে (Breakfast) বা সন্ধ্যে বেলার টিফিনে কি বানানো যেতে পারে তা নিয়ে বাড়ির গৃহিনীদের চিন্তার অবকাশ থাকে না। আবার প্রতিদিন একই রকমের খাবার খেতেও মন লাগে না আমাদের। তাই আজকের এই প্রতিবেদনে একটু অন্যরকম স্বাদের মজাদার চটজলদি জলখাবারের রেসিপি শেয়ার করা হলো যা বাড়ির ছোট থেকে বড় সকলেই একেবারে আঙ্গুল চেটে খাবে। বাড়িতে হঠাৎ করে কোনো অতিথি এলেও খুব সহজে এটি বানিয়ে নেওয়া যেতে পারে।

উপকরণ:
১) ময়দা
২) ডিম
৩) গরম মশলা গুঁড়ো
৪) গোলমরিচ গুঁড়ো
৫) নুন
৬) কাঁচালঙ্কা
৭) গাজরকুঁচি
৮) পেঁয়াজ কুঁচি
৯) সাদা তেল

প্রণালী:
প্রথমে একটি পাত্রে ডিম ও স্বাদমতো নুন দিয়ে ভালো করে ফেটিয়ে নিন। এরপর এতে এক কাপ মত জল ও ময়দা অল্প অল্প করে দিয়ে মিশিয়ে নিন। এখন একে একে গরম মসলা গুঁড়ো, গোলমরিচ গুঁড়ো এড করে ভালো করে মিশিয়ে নিন। তারপর একে একে পেঁয়াজ কুঁচি , বাঁধাকপি পাতা কুঁচি,গাজর কুঁচি, কাঁচা লঙ্কা কুঁচি দিয়ে একটি ব্যাটার তৈরি করে নিন। এরপর কড়াইতে তেল গরম করে নিন।

এবার ওই গরম তেলে ব্যাটারটি ছড়িয়ে কম আঁচে ভেজে নিন। এখন এপিঠ ওপিঠ উল্টেপাল্টে ভেজে নিলেই তৈরি হয়ে যাবে এই অসাধারণ স্বাদের সকালের জলখাবারটি। এরপর গরম গরম পরিবেশন করুন এই লোভনীয় রেসিপিটি।

Categories
লাইফ স্টাইল

মসুর ডাল এবং মুড়ি দিয়ে বানিয়ে ফেলুন দুর্দান্ত স্বাদের এই ইউনিক মুখরোচক, শিখে নিন রেসিপি

বিকেলের জলখাবার বা স্ন্যাক্সের (Snacks) জন্য মুখরোচক খাবার খেতে সকলেই পছন্দ করেন। কিন্তু নিয়মিত বাইরের তেলেভাজাজাতীয় খাবার খেলে তা যে শরীরের ওপর ক্ষতিকারক প্রভাব ফেলবে এই বিষয়টি কারোরই অজানা নয়। আজ তাই আপনাদের সঙ্গে ভাগ করে নেবো মুড়ি ও মুসুর ডাল দিয়ে বানানো এক অভিনব স্ন্যাক্সের রেসিপি যা বানানো খুব সহজ। মুড়ি ও মুসুর ডালের মুখরোচক এই কাটলেট একবার খেলে এর স্বাদ মুখে লেগে থাকবে।

•উপকরণ:
১) মুড়ি
২) মুসুর ডাল
৩) পেঁয়াজ কুচি
৪) গাজর
৫) ধনেপাতা কুচি
৬) নুন
৭) চিলি ফ্লেক্স
৮) ভাজা মশলা গুঁড়ো
৯) গরম মশলা গুঁড়ো
১০) বেসন
১১) তেল

•প্রণালী:
প্রথমেই ১ বাটি মুড়ি মিক্সার গ্রাইন্ডারে দিয়ে মিহি গুঁড়ো করে নিতে হবে। মুড়ি গুঁড়ো হয়ে গেলে অন্য একটি পাত্রে ঢেলে রাখতে হবে। অপরদিকে, ১/২ কাপ মুসুর ডাল ধুয়ে ১৫-২০ মিনিট জলে ভিজিয়ে রাখতে হবে। নির্দিষ্ট সময় ভিজিয়ে রাখার পর মুসুর ডাল মিক্সার গ্রাইন্ডারে দিয়ে জল ছাড়াই পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। এবারে আগে থেকে প্রস্তুত করে রাখা মুড়ির গুঁড়োর মধ্যে মুসুর ডালের এই পেস্ট দিয়ে দিতে হবে। মুড়ির গুঁড়ো ও মুসুর ডালের পেস্ট খুব ভালো করে চামচ দিয়ে মিশিয়ে নিতে হবে।

এরপরে ওই মিশ্রণের মধ্যে একটি মাঝারি সাইজের পেঁয়াজ কুচি, কিছু পরিমাণ গ্রেট করে নেওয়া গাজর, কিছু পরিমাণ ধনেপাতা কুচি, স্বাদ অনুযায়ী নুন, ১ চামচ চিলি ফ্লেক্স, ১/৪ চামচ ভাজা মশলা গুঁড়ো (গোটা জিরে ও গোটা ধনে শুকনো খোলায় নেড়ে গুঁড়ো করে এই মশলা বানাতে হবে), ১/৪ চামচ গরম মশলা গুঁড়ো ও ২ চামচ বেসন দিয়ে সবকিছু খুব ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে।

এবারে হাতে সামান্য তেল লাগিয়ে এই মিশ্রণ থেকে কিছু পরিমাণ করে নিয়ে হাতে করে চেপে চেপে প্রথমে গোল বল ও তারপর লম্বা বা চৌকো কাটলেটের আকৃতি দিতে হবে। এইভাবে পুরো মিশ্রণ থেকে যতগুলি সম্ভব কাটলেট বানিয়ে নিতে হবে। এরপর গ্যাসে ফ্রাইং প্যান বসিয়ে পরিমাণ অনুযায়ী তেল দিয়ে গরম করে নিতে হবে। তেল গরম হয়ে গেলে তার মধ্যে একসাথে চার-পাঁচটি কাটলেট দিয়ে দিতে হবে। বেশ খানিকক্ষণ সময় নিয়ে প্রত্যেকটি কাটলেট উল্টেপাল্টে খুব ভালো করে ভেজে নিতে হবে।

বাদামি রঙ না আসা পর্যন্ত প্রত্যেকটি কাটলেট ভাজতে হবে। ভাজা হয়ে গেলে নামিয়ে নিয়ে পছন্দমতো সস বা কাসুন্দির সঙ্গে পরিবেশন করুন মুড়ি ও মুসুর ডালের এই অভিনব কাটলেট।

Categories
লাইফ স্টাইল

মাত্র এই কয়েকটা উপকরণ দিয়ে বাড়িতেই বানিয়ে ফেলুন দুর্দান্ত স্বাদের নিরামিষ ‘পনির মহারানী’, শিখে নিন রেসিপি

বিশেষ নিরামিষ (Veg) দিনে খাওয়ার জন্য বিভিন্ন বাড়িতে বিভিন্ন রকম পদ রান্না করা হয়। আজ তেমনই পনিরের এক দুর্দান্ত নিরামিষ রেসিপি আপনাদের জন্য বর্ণনা করা হবে। পরোটা, নান, ফ্রায়েড রাইস বা পোলাও দিয়ে খাওয়ার জন্য এই ‘পনির মহারানী’ একদম আদর্শ এক পদ।

•উপকরণ:
১)পনির
২)নুন
৩)শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো
৪)গরম মশলা গুঁড়ো
৫) টকদই
৬)বেসন
৭)তেল
৮)গোটা জিরে
৯)গোটা ধনে
১০)গোটা মৌরি
১১)কসৌরি মেথি
১২)আদা
১৩)টমেটো
১৪)কাঁচালঙ্কা
১৫)আমন্ড
১৬)কাজু
১৭)দুধ
১৮)সা-জিরে
১৯)হিং পাউডার
২০)চিনি
২১)জল
২২)চিলি ফ্লেক্স

•প্রনালী:

প্রথমেই ৭০০-৭৫০ গ্রাম পনির ছোট ছোট টুকরো করে কেটে নিতে হবে। আপনারা নিজেদের ইচ্ছেমতো পনিরের পরিমাণ কম বা বেশি নিতে পারেন, সেক্ষেত্রে অন্যান্য উপাদানের পরিমাণের‌ও রকমফের করে নেবেন। পনির কাটা হয়ে গেলে টুকরোগুলোর ওপর ১/২ চামচ নুন, ১/২ চামচ শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো, ১/৪ চামচ গরম মশলা গুঁড়ো ও ২ চামচ টকদই দিয়ে খুব ভালো করে প্রত্যেকটি টুকরোর ওপর মাখিয়ে নিতে হবে। পনিরের টুকরোগুলো এরপর ১০-১৫ মিনিট রেখে ম্যারিনেট করে নিতে হবে।

অন্যদিকে, একটি পাত্রে ২ চামচ বেসন নিয়ে ম্যারিনেট করে রাখা পনিরের টুকরোগুলো তার মধ্যে দিয়ে কোটিং করে নিতে হবে। এরপর গ্যাসে কড়াই বসিয়ে পরিমাণ অনুযায়ী তেল দিয়ে গরম করে নিতে হবে। তেল গরম হয়ে গেলে তার মধ্যে পনিরের টুকরোগুলো দিয়ে ভালো করে উল্টেপাল্টে ভেজে নিতে হবে। পনির ভাজা হয়ে গেলে তেল ঝরিয়ে তুলে নিতে হবে। এর সাথেই রান্নায় ব্যবহারের জন্য ১ চামচ গোটা জিরে, ১ চামচ গোটা ধনে, ১ চামচ গোটা মৌরি ও কিছু পরিমাণ কসৌরি মেথি শুকনো ফ্রাইং প্যানে খানিকক্ষণ নেড়ে নিয়ে মিক্সার গ্রাইন্ডারে‌ দিয়ে গুঁড়ো করে নিতে হবে। এরপর মিক্সার গ্রাইন্ডারে‌ ৩-৪ টুকরো আদা, একটি টমেটোর ছোট ছোট টুকরো ও দুই-তিনটে গোটা কাঁচালঙ্কা দিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে।

এছাড়াও, মিক্সার গ্রাইন্ডারে‌ আবার দশ-বারোটি ভিজিয়ে রাখা খোসাছাড়ানো আমন্ড, দশ-বারোটি কাজু ও ১/২ কাপ দুধ দিয়ে মিহি করে পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। অন্যদিকে, ফ্রাইং প্যানে পনির ভাজার তেলেই ১/২ চামচ সা-জিরে ও ১/৪ চামচ হিং পাউডার দিয়ে খানিকক্ষণ নেড়ে নিতে হবে। কিছুক্ষণ পরেই আদা-টমেটো-কাঁচালঙ্কার পেস্ট দিয়ে নাড়াচাড়া করতে হবে। এবারে কড়াইয়ে ভাজা মশলার গুঁড়ো বেশিরভাগটাই দিয়ে মেশানোর পর ভালো করে কষিয়ে নিতে হবে। মশলা কষানোর পরে কাজু-বাদামের পেস্ট দিয়ে আবার মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর কড়াইয়ে স্বাদ অনুযায়ী নুন, স্বাদ অনুযায়ী চিনি ও পরিমাণ অনুযায়ী জল দিয়ে সবকিছুর সঙ্গে মিশিয়ে নেওয়ার পর আগে থেকে ভেজে রাখা পনিরের টুকরোগুলো দিয়ে দিতে হবে। ঝোলের সঙ্গে পনিরের টুকরোগুলো হালকা হাতে মিশিয়ে দিয়ে তারপর স্বাদ অনুযায়ী নুন, ১/২ চামচ চিলি ফ্লেক্স ও কিছু পরিমাণ ভাজা মশলার গুঁড়ো দিয়ে আবার মেশাতে হবে। সবকিছু একসাথে ৩-৪ মিনিট ফুটিয়ে নিলেই তৈরি হয়ে যাবে ‘পনির মহারানী’।

Categories
লাইফ স্টাইল

খুব সহজেই বানিয়ে ফেলুন ঐতিহ্যবাহী ঠাকুরবাড়ির স্পেশাল ‘ছানার ডালনা’, শিখে নিন রেসিপি

প্রতিদিন আমিষ পদ খেতে খেতে আমাদের সকলেরই একঘেয়েমি চলে আসে। আবার রোজকার মাছ-মাংস থেকে স্বাদ ফেরানোর জন্য আমরা মাঝেমধ্যেই বিভিন্ন রকমের নিরামিষ পদ রান্না করে থাকি। ঠাকুরের নিরামিষ ভোগে আজকের প্রতিবেদনে শেয়ার করা এই রেসিপিটি আপনি একবার ট্রাই করলে এর স্বাদ জীবনেও ভুলবেন না। আসুন জেনে নেওয়া যাক নরম তুলতুলে ছানার ডালনার রেসিপি।

উপকরণ :
১) দুধ
২) আলু
৩) আদা
৪) হলুদ গুঁড়ো
৫) জিরে গুঁড়ো
৬) ধনে গুঁড়ো
৭) শুকনোলঙ্কা
৮) কাঁচালঙ্কা
৯) দারচিনি
১০) লবঙ্গ
১১) এলাচ
১২) তেজপাতা
১৩) ঘি
১৪) তেল

প্রণালী :

প্রথমে একটি পাত্রে ভালো করে দুধ জাল দিয়ে ছানা পাউডার দিয়ে ছানা বানিয়ে নিতে হবে। তারপর একটি পাত্রে শুকনো লঙ্কা,গোটা জিরা, গোটা ধনে, আদা,গরম জল দিয়ে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রেখে একসাথে পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। এর পাশাপাশি দারচিনি লবঙ্গ এলাচেরও একটি পেস্ট বানিয়ে নিন। এখন জল ঝরিয়ে রাখা ছানাগুলোকে নিয়ে লেচির মতো করে চৌকো আকারে বানিয়ে নিতে হবে।

এরপর কড়াইতে তেল গরম করে এগুলোকে ভেজে নিতে হবে। এবার ভেজে রাখা ছানা টুকরোগুলোকে নুন গরম জলে কিছুক্ষণের জন্য ভিজিয়ে রাখুন। এরপর কড়াইয়ের তেলে নুন,হলুদ দিয়ে আলু গুলোকে ভেজে নিন। এখন ওই তেলে শুকনো লঙ্কা, তেজপাতা ফোড়ন দিয়ে আগে থেকে বানিয়ে রাখা মশলার পেস্ট, নুন, হলুদ গুঁড়ো, ভেজে রাখা আলু ও জল দিয়ে কিছুক্ষণের জন্য ঢেকে রান্না করে নিতে হবে।

এখন ছানার টুকরোগুলো এতে এড করে ওপর থেকে গরম মশলা ও ঘি ছড়িয়ে আবারো কিছুক্ষণের জন্য রান্না করে নিলেই তৈরি হয়ে যাবে অসাধারণ ঠাকুরবাড়ি স্টাইল এর এই রেসিপিটি। যা দুপুরবেলায় ভাতের পাতে একেবারে চেটেপুটে খাবেন।

Categories
লাইফ স্টাইল

সন্ধ্যেবেলা চায়ের সাথে খাওয়ার জন্য বানিয়ে ফেলুন দুর্দান্ত স্বাদের ‘এগ ফিঙ্গার’, শিখে নিন রেসিপি

মুখরোচক স্ন্যাকস (Snacks) হিসেবে ফিস ফিঙ্গার বা পটেটো ফিঙ্গার জনপ্রিয় দুই পদ। প্রায় সব জায়গাতেই দোকানে ও রেস্টুরেন্ট এই দুই স্ন্যাকস পাওয়া যায়। আজ আপনাদের সঙ্গে এইরকম এক পদ ‘এগ ফিঙ্গার’-এর (Egg Finger) রেসিপি ভাগ করে নেবো। এই রেসিপি দেখে বাড়িতেই বানানো যাবে ডিম দিয়ে তৈরি দারুণ এই স্ন্যাকস।

•উপকরণ:
১)সাদা তেল
২)আদাবাটা
৩)রসুনবাটা
৪)পেঁয়াজ বাটা
৫)টমেটো বাটা
৬)হলুদ গুঁড়ো
৭)শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো
৮)গোলমরিচ গুঁড়ো
৯)নুন
১০)চিনি
১১)আমচুর পাউডার
১২)কাঁচালঙ্কা কুচি
১৩)পছন্দের সবজি
১৪)ডিম
১৫)জল
১৬) কর্নফ্লাওয়ার
১৭) বিস্কুটের গুঁড়ো

•প্রনালী:

প্রথমেই গ্যাসে কড়াই বসিয়ে পরিমাণ অনুযায়ী সামান্য সাদা তেল দিয়ে গরম করে নিতে হবে। তেল গরম হয়ে গেলে কড়াইয়ে একে একে ১ চামচ গোটা আদাবাটা, ১ চামচ রসুনবাটা, ১ চামচ পেঁয়াজ বাটা, ১ চামচ টমেটো বাটা, ১ চামচ হলুদ গুঁড়ো, ১/২ শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো, স্বাদ অনুযায়ী গোলমরিচ গুঁড়ো, স্বাদ অনুযায়ী নুন, সামান্য চিনি, স্বাদ অনুযায়ী আমচুর পাউডার, ইচ্ছে অনুযায়ী কাঁচালঙ্কা কুচি দিয়ে সবকিছু খুব ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে। এরপরে ইচ্ছে অনুযায়ী পছন্দের সবজি ছোট ছোট কুচি করে কেটে কড়াইয়ে দিয়ে সব মশলার সঙ্গে মেশাতে হবে। মশলা ও সবজি বেশ খানিকক্ষণ সময় নিয়ে ভালো করে কষিয়ে নিতে হবে। সবকিছু কষানো হয়ে গেলে তুলে নিয়ে অন্য পাত্রে তুলে রাখতে হবে।

অন্যদিকে, একটি টিফিন কৌটোর মধ্যে সামান্য তেল ব্রাশ করে দিয়ে চারটি ডিম ভেঙে দিয়ে একটু ফেটিয়ে নিতে হবে। এরপরে ডিমের মধ্যে আগে থেকে কষিয়ে রাখা সবজি ও মশলা দিয়ে মিশিয়ে নিতে হবে। এরপরে গ্যাসে একটি পাত্রে বসিয়ে পরিমাণ অনুযায়ী জল দিয়ে গরম করে নিতে হবে। জল ফুটতে শুরু করলে টিফিন কৌটো পাত্রের মধ্যে দিয়ে ২০-২৫ মিনিট রেখে দিতে হবে। এরপর কৌটোর ঢাকা খুলে জমাটবাঁধা ডিমের মিশ্রণ লম্বা ও ছোট টুকরো করে কেটে নিতে হবে। এরপরে প্রত্যেকটি টুকরো প্রথমে কর্নফ্লাওয়ারের গোলায় ডুবিয়ে বিস্কুটের গুঁড়ো মাখিয়ে কোটিং করে নিতে হবে। এবারে গ্যাসে কড়াই বসিয়ে পরিমাণ অনুযায়ী তেল দিয়ে গরম করে নিয়ে প্রত্যেকটি কোটিং করা টুকরো দিয়ে উল্টেপাল্টে লালচে করে ভেজে নিলেই প্রস্তুত হয়ে যাবে দারুণ স্বাদের ‘এগ ফিঙ্গার’।

Categories
লাইফ স্টাইল

এইভাবে মাছের ডিমের ঝাল বানালে স্বাদ হবে দুর্দান্ত, জমে যাবে গরম ভাতের সাথে

মাছের (Fish) বিভিন্ন রকম পদ হামেশাই সব বাড়িতে প্রস্তুত করা হয়। মাছের ডিম‌ও (Fish’s Egg) যদি ভালো করে রান্না করা হয় তবে তাই দিয়েই ভাত খেয়ে নেওয়া যায়। আজ আপনাদের সঙ্গে তেমনই এক রেসিপি, ‘মাছের ডিমের ঝাল’ ভাগ করে নেবো।

উপকরণ:
১)মাছের ডিম
২)নুন
৩) হলুদ গুঁড়ো
৪)শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো
৫)পেঁয়াজ
৬)আলু
৭)বেসন
৮)বেকিং সোডা
৯)তেল
১০)কালোজিরে
১১)রসুনবাটা
১২)গোটা কাঁচালঙ্কা
১৩)সর্ষেবাটা
১৪)জল
১৫)ধনেপাতা কুচি
১৬)সর্ষের তেল

প্রণালী:
প্রথমে ১৫০-২০০ গ্রাম মাছের ডিম ভালো করে ধুয়ে জল ঝরিয়ে নিতে হবে। এরপরে একটি পাত্রে মাছের ডিম রেখে তার মধ্যে স্বাদ অনুযায়ী নুন, সামান্য হলুদ গুঁড়ো, ১/৪ চামচ শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো, একটি ছোট সাইজের পেঁয়াজ কুচি, একটি মাঝারি সাইজের আলু সেদ্ধ ও ৪ চামচ বেসন দিয়ে সবকিছু খুব ভালো করে হাত দিয়ে মিশিয়ে মেখে নিতে হবে। এরপরে ওই মিশ্রণের মধ্যে এক চিমটি বেকিং সোডা মিশিয়ে দিতে হবে।

এবারে গ্যাসে কড়াই বসিয়ে পরিমাণ অনুযায়ী তেল দিয়ে গরম করে নিতে হবে। তেল গরম হয়ে গেলে ওই মিশ্রণ থেকে কিছু পরিমাণ করে তুলে বড়ার আকারে ছাড়তে হবে। বেশ কিছুক্ষণ সময় নিয়ে প্রত্যেকটি বড়া খুব ভালো করে উল্টেপাল্টে ভেজে নিতে হবে। এইভাবে পুরো মিশ্রণ থেকে যতগুলি সম্ভব বড়া ভেজে নিতে হবে। বড়া ভাজা হয়ে গেলে তেল ঝরিয়ে অন্য পাত্রে তুলে রাখতে হবে। এরপর কড়াইয়ে ওই তেলেই একটি বড়ো সাইজের আলু খোসা ছাড়িয়ে লম্বা লম্বা টুকরো করে কেটে দিয়ে হালকা লালচে করে ভাজতে হবে। আলু ভালো করে ভাজা হয়ে গেলে তুলে নিতে হবে।

এবারে কড়াইয়ের তেলের পরিমাণ কমিয়ে দিয়ে একে একে ১/৪ চামচ কালোজিরে ও ১ চামচ রসুনবাটা দিয়ে ১-২ মিনিট নাড়াচাড়া করে নিতে হবে। তারপর একটি পেঁয়াজ গ্রেটারে ঘষে নিয়ে কড়াইয়ে দিয়ে আরো কিছুক্ষণ নেড়েচেড়ে নিতে হবে। এবার ১/৪ চামচ হলুদ গুঁড়ো ও ১/২ চামচ শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো দিয়ে আবারও মিশিয়ে সবকিছু একসাথে ভালো করে কষিয়ে নিতে হবে। এরপর কড়াইয়ে আগে থেকে ভেজে রাখা আলুর টুকরোগুলো দিয়ে মশলার সাথে মিশিয়ে নিতে হবে। এর সাথেই ইচ্ছে অনুযায়ী কয়েকটি গোটা কাঁচালঙ্কা ও স্বাদ অনুযায়ী নুন দিয়ে মেশাতে হবে।

এবারে কড়াইয়ে দিয়ে দিতে হবে ২ চামচ সর্ষেবাটা ও পরিমাণ অনুযায়ী জল। কিছুক্ষণ সময় নিয়ে ঝোঋ খুব ভালো করে ফুটিয়ে নিতে হবে। ঝোল ফোটানো হয়ে এলে তার মধ্যে আগে থেকে ভেজে রাখা মাছের ডিমের বড়াগুলো দিয়ে দিতে হবে। ঝোলের সাথে বড়াগুলো মিশিয়ে দিয়ে গ্যাসের আঁচ মাঝারি রেখে ৫-৬ মিনিট ধরে রান্না করে নিতে হবে। নামানোর আগে ওপর থেকে কিছু পরিমাণ ধনেপাতা কুচি ও ১ চামচ সর্ষের তেল ছড়িয়ে মিশিয়ে দিলেই তৈরি হয়ে যাবে ‘মাছের ডিমের ঝাল’।

Categories
লাইফ স্টাইল

এইভাবে সর্ষে দিয়ে বেগুনের তরকারি বানালে স্বাদ হবে দুর্দান্ত, হাত চাটবে আট থেকে আশি, শিখে নিন রেসিপি

বেগুন (Brinhal) অনেকেরই পছন্দের তরকারির তালিকায় রয়েছে।আজ আপনাদের সঙ্গে তাই বেগুনের এমন এক দুর্দান্ত রেসিপি ভাগ করে নেবো যা বিশেষ নিরামিষ দিনে ভাত দিয়ে খাওয়ার জন্য আদর্শ। অল্প কিছু উপকরণ দিয়ে খুব কম সময়েই বানিয়ে নেওয়া যাবে এই ‘সর্ষে বেগুন ভাপা’।

উপকরণ:
১)বেগুন
২)নুন
৩)হলুদ গুঁড়ো
৪)চিনি
৫)শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো
৬)তেল
৭)সর্ষে
৮)পোস্ত
৯)নারকেল কোরা
১০)কাঁচালঙ্কা
১১)জল
১২)টক দ‌ই
১৩)সর্ষের তেল

প্রণালী:
প্রথমে দুই-তিনটি মাঝারি সাইজের বেগুন লম্বা লম্বা করে কেটে ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। এবারে প্রত্যেকটি বেগুনের টুকরো সামান্য নুন, হলুদ গুঁড়ো, চিনি ও শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো মাখিয়ে রাখতে হবে। এরপর গ্যাসে কড়াই বসিয়ে পরিমাণ অনুযায়ী তেল দিয়ে গরম করে নিতে হবে। তেল গরম হয়ে গেলে বেগুনের টুকরোগুলো কড়াইতে দিয়ে দিতে হবে। বেশ খানিকক্ষণ সময় নিয়ে বেগুনের টুকরোগুলো উল্টেপাল্টে খুব ভালো করে ভেজে নিতে হবে। বেগুন ভাজা হয়ে গেলে তেল ঝরিয়ে অন্য একটি পাত্রে তুলে রাখতে হবে।

এবারে রান্নায় ব্যবহারের জন্য এক মশলার পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। মশলার এই পেস্ট বানানোর জন্য মিক্সার গ্রাইন্ডারে কিছু পরিমাণ সর্ষে, পোস্ত, নারকেল কোরা ও দুই-তিনটি কাঁচালঙ্কা দিয়ে সামান্য পরিমাণ জল মিশিয়ে মিহি পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। এবারে এই পেস্ট মিক্সার গ্রাইন্ডার থেকে অন্য একটি পাত্রে ঢেলে নিয়ে তার মধ্যে ২ চামচ টক দই ও ২ চামচ সর্ষের তেল দিয়ে দিতে হবে। সবকিছু খুব ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে ওই পেস্টের মধ্যে আরো খানিকটা জল দিয়ে মিশ্রণ পাতলা করে নিতে হবে।

এবারে একটি টিফিন কৌটোয় এই মিশ্রণ ঢেলে নিয়ে তার মধ্যে আগে থেকে ভেজে রাখা বেগুনের টুকরোগুলো দিয়ে হালকা হাতে মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর গ্যাসে একটি কড়াই বসে তার মধ্যে কিছু পরিমাণ জল দিয়ে গরম করে নিতে হবে। জল গরম হয়ে গেলে কড়াইয়ে ওই টিফিন কৌটো রেখে কড়াই ঢাকা দিয়ে রেখে রান্না করে নিতে হবে। ১০-১৫ মিনিট এভাবে ঢাকা দিয়ে রেখে তারপর কৌটোর ঢাকা খুলে অন্য পাত্রে ঢেলে পরিবেশন করে ফেলুন দারুণ স্বাদের ‘সর্ষে বেগুন ভাপা’।

Categories
লাইফ স্টাইল

এইভাবে পোস্ত দিয়ে পটলের তরকারি বানালে স্বাদ হবে দুর্দান্ত, হাত চাটবে আট থেকে আশি, শিখে নিন রেসিপি

রোজ মাছ, মাংস খেয়ে একঘেয়ে হয়ে গেলে স্বাদ বদলাতে নিত্য নতুন খাবার ট্রাই করেন অনেকেই। আজ তাই আলু ও পটলের অসাধারণ স্বাদের নিরামিষ একটি রেসিপি বলবো। এটি হল ‛আলু পটলের পোস্ত’। চলুন তবে দেখে নেওয়া যাক রেসিপিটি।

উপকরণ:
১.আলু ৪ টি
২.পটল ২৫০ গ্রাম
৩.পেঁয়াজ ১ টি
৪.টমেটো ২ টি
৫.নুন স্বাদমতো
৬.চিনি স্বাদমতো
৭.হলুদ গুঁড়ো ১ চা চামচ
৮.রসুন কুচি ২ কোয়া
৯.আদা বাটা ১/২ চা চামচ
১০.কাশ্মীরি লঙ্কার গুঁড়ো ১ চা চামচ
১১.জিরে গুঁড়ো ১/২ চা চামচ
১২.ধনে গুঁড়ো ১/২ চা চামচ
১৩.কাঁচালঙ্কা ৬ টি
১৪.পোস্ত ২ টেবিল চামচ
১৫.শুকনোলঙ্কা ১ টি
১৬.সাদা তেল পরিমাণ মত

প্রণালী:

প্রথমেই ৪ টে মাঝারি সাইজের আলু ও পটলকে লম্বা করে কেটে নিতে হবে। এরপর ২৫০ গ্রাম পটলকে সরু ও লম্বা করে কেটে নিতে হবে। তারপর ১ টি পেঁয়াজ ও ২ টো টমেটোকেও কেটে নিতে হবে। এরপর কড়াইতে ১ টেবিল চামচ সাদা তেল গরম করে ১/২ টেবিল চামচ নুন ও ১/৪ টেবিল চামচ হলুদ গুঁড়ো দিয়ে নাড়াচাড়া করে নিতে হবে। তারপর পটল গুলো দিয়ে ৩-৪ মিনিট ভেজে তুলে নিতে হবে।

এরপর কড়াইতে আরও ১ টেবিল চামচ তেল গরম করে আলু গুলোকেও নুন-হলুদ দিয়ে ভেজে তুলে নিতে হবে। তারপর কড়াইতে ২ টেবিল চামচ তেল গরম করে তাতে ১ টা শুকনোলঙ্কা ফোড়ন দিয়ে ২ কোয়া রসুন কুচি, ১/২ চা চামচ আদাবাটা দিয়ে নাড়াচাড়া করে নিতে হবে। তারপর পেঁয়াজ কুচি দিয়ে নরম করে ভেজে নিতে হবে। এরপর টমেটো কুচি ও ১/২ চা চামচ নুন, ১ চা চামচ কাশ্মীরি লাল লঙ্কার গুঁড়ো, ১/২ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো, ১/২ চা চামচ ধনে গুঁড়ো, ১/২ চা চামচ জিরে গুঁড়ো দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে কিছুক্ষণ কষিয়ে রান্না করে নিতে হবে।

একটি মিক্সিং জারে ২ টেবিল চামচ পোস্ত, ৩ টে কাঁচালঙ্কা ও জল দিয়ে ভালো করে পেস্ট আগেই তৈরি করে নিতে হবে। এরপর বেটে রাখা পোস্ত কড়াইতে দিয়ে ২ মিনিট কষিয়ে নিতে হবে। তারপর ভেজে রাখা আলু ও পটল দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে কষিয়ে নিতে হবে। এরপর কিছুটা জল, স্বাদমতো নুন, চিনি, ৩ টে চেরা কাঁচালঙ্কা দিয়ে ঢেকে ৫ মিনিট রান্না করতে হবে। তারপর ঢাকনা খুলে নাড়াচাড়া করে নামিয়ে নিলেই একেবারে তৈরি দুরন্ত স্বাদের আলু ও পটলের পোস্ত।