Categories
অফবিট ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

প্রকৃতির মাঝে গল্পে মত্ত বাদাম কাকু ও মাছ কাকু, রইল ভিডিও

সম্প্রতি ‘বাদাম কাকু’ ভুবন বাদ্যকারের (Bhuban Badyakar) সাথে এক ভিডিওতে দেখতে পাওয়া গিয়েছে ‘মাছ কাকু’ বলে পরিচিত কুশল বাদ্যকারকে (Kushal Badyakar)। বর্তমান যুগের এই দুই সেনসেশনকে একসাথে দেখতে পেয়ে স্বভাবতই বেশ উচ্ছসিত নেটিজেনরা।

জীবিকা নির্বাহের জন্য সাইকেলে করে বাদাম বিক্রি করতেন বীরভূমের দুবরাজপুরের বাসিন্দা ভুবন বাদ্যকার। তাঁর গাওয়া ‘কাঁচা বাদাম’ (Kacha Badam) গানটি জনপ্রিয় হয়ে যাওয়ার পরে রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। তাঁর এই গানটির জনপ্রিয়তা একসময় দেশ কালের গণ্ডি ছাড়িয়ে বিদেশেও ছড়িয়ে পড়েছিল। কিছুদিন আগে নিজের একক অ্যালবামও প্রকাশিত হয়েছিল তাঁর। অন্যদিকে পশ্চিম বর্ধমানের মাছ ব্যবসায়ীর ক্ষেত্রেও একইরকম ঘটনা ঘটেছে। মাছ বিক্রি করার সময় কুশলবাবু ক্রেতাদের উদ্দেশ্যে যে গান করতেন একসময় সেই গানই তাঁকে প্রচারের আলোয় নিয়ে এসেছিল। কিছুদিন আগে কুশলবাবুও নিজের একটি গানের অ্যালবাম প্রকাশ করার সুযোগ পেয়েছেন।

আরবিএইচ ক্রিয়েশন (RBH CREATION ) নামে ইউটিউব চ্যানেল থেকে যে ভিডিওটি বর্তমানে বেশ ভাইরাল হয়েছে তাতে এই দুই শিল্পীকে একসাথে নিজেরদের মতো করে সময় কাটাতে দেখা গিয়েছে। এমনকি জমাটি আড্ডার সাথে তাঁরা একসাথে গান বাজনাও করেছেন । গানের কারণেই তাঁদের খ্যাতি আর গানের জন্যই তাঁদের কাছাকাছি আসা বলে জানিয়েছেন এই দুই শিল্পী। বর্তমানে প্রজন্মের এই গায়কদের একসাথে গান গাইতে দেখে অনুরাগীরা যে বেশ আনন্দিত সেটা ভিডিওটির লাইকস এবং কমেন্টস থেকেই বোঝা গিয়েছে। গানের পাশাপাশি বর্তমানে ভুবনবাবু যাত্রা পালার সাথেও জড়িত। ‘খোকাবাবুর খেলাঘর’ নামে যাত্রাপালাতে তাঁকে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে। যাত্রার কারণেই দেউল পার্কে এসেছিলেন ভুবনবাবু। সেইখানেই তাঁর সাথে দেখা করতে হাজির হয়েছিলেন কুশলবাবু।

সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে অনেক অনামী কিন্তু প্রতিভাবান শিল্পীরা পরিচিতি পায়। তাই প্রতিভা বিকাশের মঞ্চ হিসাবে এইসব শিল্পীদের কাছে সামাজিক মাধ্যমই সবচেয়ে বড়ো ভরসার জায়গা হয়ে উঠেছে। ইন্টারনেট এবং মুঠোফোনের যুগলবন্দিতে এইভাবেই আগামী দিনেও খ্যাতি পাবে বাদাম কাকু কিংবা মাছ কাকু অথবা ভিন্ন পেশার কোন মানুষ।

Categories
বিনোদন ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

বাড়ির ছাদে শালিক পাখির সঙ্গে কথোপকথন ভুবন বাদ্যকরের, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

সম্প্রতি জনপ্রিয় শিল্পী ভুবন বাদ্যকারের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। পাখিদের সাথে সময় কাটানোর সময় ক্যামেরাবন্দি হয়েছিলেন এই শিল্পী।

জীবিকা নির্বাহের জন্য একসময় কাঁচা বাদাম বিক্রি করতেন ভুবনবাবু। বাদাম বিক্রি করার সময় তাঁর গাওয়া গান একসময় ভাইরাল হয়ে যায় চতুর্দিকে। রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে গিয়েছিলেন গানের দৌলতে। তাঁর গানের জনপ্রিয়তা একসময় ছাড়িয়েছিল দেশ কালের গণ্ডিও। এর পরে অ্যালবামে গান গাওয়ার সুযোগ পেয়ে আরো বেশি পরিচিতি পেয়েছিলেন। পেশাদার জগতে সাফল্য পাওয়ার পরে বর্তমানে তাঁর আর্থিক উন্নতিও হয়েছে। নিজের পুরনো বাড়িকে নতুনভাবে সাজিয়েছেন। গানের পাশাপাশি যাত্রাতেও যোগ দিয়েছেন সম্প্রতি।

বেশ কিছুদিন আগে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে একটি ভিডিও আপলোড করেছিলেন ভুবনবাবু। সেই ভিডিওটিতে দেখতে পাওয়া গিয়েছে ছাদের উপরে উঠে পাখিদের সাথে কথা বলার চেষ্টা করছেন শিল্পী। এমনকি পাখিদের খাবার খাওয়ানোর সময় দর্শকদের সাথেও কথা বলছিলেন। পাখিদের খাবার খাইয়ে বেশ খুশি তিনি। তাঁর মুখের অভিব্যক্তিতেই স্পষ্ট হয়ে উঠেছে মনের আনন্দ। বর্তমানে নিজের এই চ্যানেল থেকে ভালো পরিমানে পরিচিতি পেয়েছেন ভুবনবাবু। চ্যানেল থেকে উপার্জনও মন্দ নয় তাঁর। আগে শুধুমাত্র বাংলাতেই কথা বলতেন। এখন হিন্দিতেও কথা বলার চেষ্টা করেন তিনি। সব মিলিয়ে বেশ ভালোভাবেই দিন কাটছে তাঁর।

প্রতিভা মানুষের জীবনকে কতটা বদলে দিতে পারে সেটার সবচেয়ে বড় উদাহরণ হলেন ভুবনবাবু। সামাজিক মাধ্যমে জনপ্রিয়তা পাওয়ার পরে তাঁর জীবনযাত্রা যেমন বদলে গিয়েছে তেমনি তাঁর কাজের পরিধিও বৃদ্ধি পেয়েছে আগে থেকে অনেক বেশি।

Categories
অফবিট ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

আলু পোস্ত বৌদির সঙ্গে জুটি বেঁধে ফের ভাইরাল বাদাম কাকু, রিলিজ হল ভুবন বাদ্যকরের নতুন মিউজিক ভিডিও

ভুবন বাদ্যকর (Bhuban Badyakar) আরো একবার নেটদুনিয়া কাঁপিয়ে দিয়েছেন! গত কয়েক মাস আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় এক সাধারণ বাদাম বিক্রেতার গান ব্যাপক ভাইরাল হয়েছিল। বীরভূম জেলার দুবরাজপুর ব্লকের লক্ষ্মীনারায়ণপুর গ্রামের বিক্রেতা ভুবন বাদ্যকর (Bhuban Badyakar) নিজের ব্যবসার কৌশল হিসেবে গান তৈরি করে সেই গান রাস্তায় ঘুরে ঘুরে গেয়ে বাদাম বিক্রি করতেন। পথচলতি কোনো মানুষ অথবা কোনো ক্রেতা তাঁর গান গাওয়ার ভিডিও রেকর্ড করে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন। তারপরের ঘটনা সকলেরই জানা। খুব কম সময়ের মধ্যেই ভুবনের গানের ভিডিও বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে ছড়িয়ে পড়ে। গানটি পরিচিত হয় ‘কাঁচা বাদাম’ (Kancha Badam) নামে। এই গান বহুদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রেন্ডিং হিসেবে চলেছিল। ভুবন নিজেও বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করেছেন। বিভিন্ন অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে টেলিভিশনের পর্দাতেও তাঁর দেখা মিলেছে।

এবারে ভুবনকে দেখা গিয়েছে নেটদুনিয়ার আরেক জনপ্রিয় মুখ ‘আলু পোস্ত বৌদি’ ওরফে রিম্পির (Rimpi) সাথে। এই সুন্দরী যুবতী ‘ইউনিক ভিলেজ ফুড’ নামক ইউটিউব চ্যানেল থেকে খোলামেলা পোশাকে রান্নার ভিডিও পোস্ট করে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। রান্নার পদ্ধতির থেকে তাঁর পোশাক ও হটনেস নেটিজেনদের কাছে অধিক আকর্ষণীয় হয়ে দাঁড়ায়। রান্নার রেসিপি বর্ণনার পরিবর্তে এবারে রিম্পিকে ভুবনের গানের তালে তালে নাচতে দেখা গিয়েছে। ভুবন ও রিম্পির এই মিউজিক ভিডিও প্রকাশিত হ‌ওয়ার খুব কম ময়ের মধ্যেই ঝড়ের গতিতে ভাইরাল হয়ে যায়।

গত বৃহস্পতিবার ‘টাইমস মিউজিক বাংলা’ নামক ইউটিউব চ্যানেল থেকে রিলিজ হয়েছে ভুবন ও রিম্পির মিউজিক ভিডিও ‘চু কিত কিত’ (Chu Kit Kit)। ভিডিওতে ভুবনকে নিজের বাইকে বাদাম ব্যবসায়ীর রূপেই দেখা গিয়েছে ও তিনি নিজের কাঁচা বাদাম নিয়েই নতুন এই গান গেয়েছেন। ভুবনের গানে বিভিন্ন ডিজাইনের পোশাক পরে ‘আলু পোস্ত বৌদি’ রিম্পি তুমুল শরীরি হিল্লোল তুলে নাচ করেছেন। ভিডিওতে ব্যাকগ্রাউন্ড ডান্সার হিসেবে আরো কয়েকজন সুন্দরী যুবতীকে দেখা গিয়েছে। সৌম্যজিৎ গাঙ্গুলী পরিচালিত এই মিউজিক ভিডিও এই মুহূর্তে নেটদুনিয়ায় ব্যাপক ভাইরাল হয়ে চলেছে।

Categories
ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

লাখ টাকার অট্টালিকায় চোখধাঁধানো অন্দরমহল, বাদাম কাকুর নতুন বাড়ি দেখলে চোখ উঠবে কপালে

বীরভূম জেলার বাসিন্দা ভুবন বাদ্যকর (Bhuban Badyakar) রাতারাতি কিভাবে সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে সেলিব্রিটি হয়ে উঠেছেন সেই গল্প হয়তো আজ কারোরই অজানা নয়। নিতান্ত পেটের তাগিদে তিনি রাস্তায় রাস্তায় বাদাম ফেরি করতেন আর বাদাম বিক্রি করার জন্য আপন কথা এবং সুরে যে গান রচনা করেছিলেন সেই গানই যে তাঁকে রাতারাতি সেলিব্রিটি করে দেবে সে কথা হয়তো স্বপ্নেও ভাবেননি ভুবনবাবু। নিজের ব্যবসা বাড়ানোর কৌশল হিসেবেই তিনি এই গান গাইতে শুরু করেছিলেন। কিন্তু সেই গান যে সারা ভারতবর্ষে পরিচিতি পাবে তা তিনি কখনো ভাবেননি। অত্যন্ত অল্প সময়ের মধ্যেই তাঁর গান নেট মাধ্যমে দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়েছিল। আজকে ছোট থেকে বড় সকলের মুখে মুখে ভুবনবাবুর ‘কাঁচা বাদাম'(Kancha Badam)। সোশ্যাল মিডিয়ায় এখনো পর্যন্ত সাধারণ মানুষ থেকে সেলিব্রিটি অনেকেই এই গানটিকে নিজের মত গেয়ে অথবা এই গানের ওপর নাচ করে ভিডিও শেয়ার করেছেন। পশ্চিমবঙ্গ হয়ে ভারতবর্ষের গণ্ডি ছাড়িয়ে বিদেশেও পাড়ি দিয়েছে ভুবনবাবুর এই গান।

স্বাভাবিকভাবেই বীরভূমের দুবরাজপুর ব্লকের বাসিন্দা ভুবনবাবুর অবস্থার পরিবর্তন ঘটেছে। দীর্ঘদিন তিনি যে অর্থনৈতিক সংকটে ভুগেছেন তা আজকে কিছুটা হলেও দূর হয়েছে। মাটির বাড়ির বদলে পাকা বাড়ি হয়েছে তাঁর। এক নামী ইন্টিরিয়র ডিজাইনার তাঁর বাড়ির অন্দরমহল সাজিয়েছেন। একথা ইউটিউবে এসে জানিয়েছেন ভুবন বাবু। বাড়ির ভেতর টাইলস দিয়ে সাজানো হয়েছে এবং ছাদে লেখা আছে ‘রাধে রাধে’। ইতিমধ্যেই ভুবনবাবুর এই সাফল্যে অত্যন্ত খুশি তাঁর অনুরাগীরা। তাঁর সমস্ত বাদ্যযন্ত্র এক জায়গায় সুন্দর করে সাজিয়ে রাখা হয়েছে। অনেকেই তাঁকে শুভেচ্ছা বার্তা জানিয়েছেন।

বর্তমানে বেশ কিছু মিউজিক অ্যালবামে তিনি কাজ করছেন। এছাড়া টেলিভিশনের রিয়ালিটি শোতেও তিনি অংশগ্রহণ করছেন। ছোট পর্দাতে তাঁকে দেখা যাওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন রকম স্টেজ শোতে ও পারফরম্যান্স করার জন্য ডাক পড়ছে ভুবনবাবুর। তাই ধীরে ধীরে আর্থিক দিক থেকে উন্নতি ঘটছে তাঁর। নিতান্ত এক বাদাম বিক্রেতা থেকে আজ তিনি বড়লোক হয়ে গেছেন। ভাগ্যের চাকা ঘুরে তাঁকে এভাবেই করে তুলেছে এক সফল মানুষ।

Categories
ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

বাদাম কাকিমা এখন অতীত! ‘আলুপোস্ত গার্ল’ রিম্পির সাথে জুটি বাঁধতে চলেছেন বাদাম কাকু, রইল ভিডিও

বীরভূমের দুবরাজপুর ব্লকের ভুবন বাদ্যকর (Bhuban Badyakar) আজ সেলিব্রেটি। রাতারাতি সাধারণ বাদাম বিক্রেতা থেকে সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে আজ তিনি লাখপতি হয়ে উঠেছেন। কয়েকদিন আগেও যাঁকে কেউ চিনতো না আজকে সারা ভারতবর্ষ তাঁকে এক নামে চেনে। পরিচিতি এবং খ্যাতির সাথে সাথে আজ তাঁর ভাগ্য বদলে গেছে। সেলিব্রিটির তকমা পেয়ে আজ তিনি টিভি চ্যানেলে মুখ দেখাচ্ছেন। বিভিন্ন রিয়ালিটিতে উপস্থিত থাকতে পারছেন। এমনকি মাটির ঘর ভেঙে আজ তিনি পাকা বাড়িও তৈরি করে ফেলেছেন।

একটা সময় যেই ভুবন বাদ্যকর কাঁচা বাড়িতে থাকতেন আজ দামী ইন্টেরিয়র ডেকোরেশন করা পাকা বাড়িতে রয়েছেন। তাঁর সেই সুন্দর সাজানো বাড়ি ছোট রাজপ্রাসাদ বলা চলে। আইফোন ব্যবহার করছেন তিনি। কিছুদিন আগে তিনি যে ইউটিউব চ্যানেল খুলেছেন সেই চ্যানেলও অত্যন্ত অল্প সময়ের মধ্যেই একলক্ষ সাবস্ক্রাইবার পূর্ণ করে সিলভার প্লে বটন পেয়ে গেছে। এভাবেই রাতারাতি তাঁর ভাগ্যের চাকা ঘুরে বাদাম কাকু হয়ে উঠেছেন সেলিব্রেটি।

সবচেয়ে বড় কথা বিভিন্ন রকমের জিনিসে সুসজ্জিত তাঁর এই নতুন বাড়িতে আরো একটি বিশেষ জিনিস সংযোজন হয়েছে সেটি হল বহুমূল্যবান একটি লকার। তবে সেই লকার নিজের গাটের কড়ি খরচ করে কেনেননি ভুবনবাবু। খড়্গপুরে রাজা শামারিয়া নামক এক ব্যবসায়ী নিজে গিয়ে ভুবন কাকুকে এই লকারটি উপহার দেন। অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি লকারটির ওজন প্রায় দু কুইন্টালের ও বেশি।শোনা যাচ্ছে ওই ব্যবসায়ী নিজের কারখানাতেই লকারটি তৈরি করেছেন। সুরক্ষিত রাখার জন্য চাবি ছাড়াও আছে নম্বর সিস্টেম। শোনা যাচ্ছে ওই ব্যবসায়ী অনেক দিন আগেই ভুবন বাদ্যকরকে এই লকার দেবেন বলে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছিলেন। আর সেই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করার জন্যই এই দিন ভুবন বাবুর বাড়িতে তিনি ওই লকারটি পৌঁছে দেন।

Categories
ভাইরাল ভিডিও ভিডিও

ঘুরে গেল ভাগ্যের চাকা, ভুবন বাদ্যকরের মতোই স্টুডিওতে গান রেকর্ডিং করলেন মিলন কুমার, ভাইরাল ভিডিও

পূর্ব বর্ধমানের নিত্যানন্দপুরের বাসিন্দা মিলন কুমার পেশায় গায়ক। লোকাল ট্রেনে গান গাওয়াই তাঁর রুজিরুটি। পরিবারের সাথে একটি অত্যন্ত সাধারণ জীবন বাঁচেন তিনি। এই সাধারণ জীবনই হঠাৎ একদিন বদলে গেল। মিলনের গাওয়া একটি গানের ভিডিও ভাইরাল হয়ে রাতারাতি মিলন কুমারকে দেশ জুড়ে খ্যাতি এনে দিল।

ছোট থেকেই গানের প্রতি আগ্রহ ছিল মিলনের। তবে আর্থিক অনটনের জন্য গান কোনদিন শেখা হয়নি তাঁর। মিলনের গান শেখা যেটুকু সে তাঁর বাবা রাজীব শেখের কাছে। তবে গানের প্রতি ভালবাসা কোন কমতি ছিলনা। এজন্য ভবিষ্যতে গানকেই পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন গানওয়ালা ওরফে মিলন কুমার। লোকাল ট্রেনে সারাদিন গান ফেরি করেন তিনি। কিশোরকুমার, কুমার শানু থেকে সদ্য প্রয়াত কেকে, মিলন কুমার সবার গানই গাইতেন। যাত্রীরা তাঁর গান শুনে খুশি হয়ে টাকা দিতেন। কেউ টাকা না দিলেও মিলনের মুখের হাসি থাকত অমলিন। তিনি মনের আনন্দে গান শোনাতেন যাত্রীদের বা তাঁর শ্রোতাদের। অথচ মিলনের অভাবের সংসার। অসুস্থ বাবা, মা, বোন, স্ত্রী, দুটি সন্তান নিয়ে তাঁর বড় পরিবার। সেই তুলনায় রোজগার সামান্য। বাঁশ আর ত্রিপল দিয়ে তৈরী বাড়িতে তিনি তাঁর পরিবার নিয়ে বাস করেন। মিলনে গান গেয়ে রোজগারের টাকায় স্ত্রী রুবিনাকে সংসার চালাতে রীতিমতো হিমসিম খেতে হয়। এই আর্থিক অনটন স্বত্ত্বেও গানকে ছাড়েননি মিলন কুমার। পেশা বদলের কথা ভাবেননি। সঙ্গীতের প্রতি মিলনের এই নিষ্ঠাই একদিন মিলন কুমারকে রাতারাতি বিখ্যাত করে দিল বলা যায়।

সদ্য প্রয়াত গায়ক কেকে এর গাওয়া একটি জনপ্রিয় গান ‘হাঁ তু হ্যায় হাঁ তু হ্যায় মেরে খাবো মে তু হ্যায়’ লোকাল ট্রেনের কামরায় মাইক নিয়ে মনের আনন্দে প্রাণ ঢেলে গাইছিলেন মিলন। তাঁর গাওয়া গানটি রেকর্ড করে কেউ ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করেন। দ্রুত ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে যায়। মিলনের গানের ফ্যান হয়ে যান অজশ্র মানুষ। বর্তমানে মিলন কুমার তাঁর স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে এগুচ্ছেন। তিনি এখন একাধিক স্টুডিওর সাথে চুক্তিবদ্ধ। তিনি স্টুডিও ভয়েস রেকর্ডিং সংস্থার সাথে ‘নতুন কথা নতুন সুর’ নামে একটি গান ইতিমধ্যেই রেকর্ড করেছেন। বেঙ্গলি রিমিক্স মিউজিক সংস্থা থেকে তাঁর ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

আজকের যুগে সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে সাধারণ মানুষ তার প্রতিভা দেখানোর একটা মঞ্চ পেয়েছেন। এই সুযোগের সদব্যবহার করে অনেকেই সাফল্য পাচ্ছেন। রানু মণ্ডল, ভুবন দাতোকরের পরে মিলনের ভাইরাল ভিডিওটি সেই কথাই আবার প্রমাণ করল।