Categories
নিউজ

গরুপাচার কাণ্ডে গ্রেফতার গৃহকর্তা, ফাঁকা বাড়ির দরজায় হাজির অবলা গরু

অনুব্রত মণ্ডল (Anubrata Mandal) বর্তমান পশ্চিমবঙ্গ রাজনীতির এক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও জাঁদরেল নাম। তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের বীরভূম জেলা সভাপতির পদে আসীন রয়েছেন‌। তবে বীরভূম জেলার গণ্ডি ছাপিয়ে তাঁর দাপট সারা রাজ্যেই বজায় রয়েছে। আজ অর্থাৎ বৃহস্পতিবার অনুব্রতকে তাঁর বাসস্থান থেকে সিবিআই গ্রেফতার করেছে, এই খবর নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই রাজ্য আজ উত্তাল হয়ে রয়েছে।

এই কথা সকলেরই জানা যে গরুপাচার মামলায় আটক করা হয়েছে অনুব্রতকে। আজ সকালে সিবিআই আধিকারিকরা প্রায় শতাধিক কেন্দ্রীয় জ‌ওয়ান নিয়ে হাজির হয়েছিলেন অনুব্রতর বোলপুরের নীচুপট্টি এলাকার বাড়িতে, সেখান থেকেই তাঁকে দুর্গাপুর হয়ে নিয়ে যাওয়া হয় আসানসোলে। সিবিআইয়ের তদন্তকারী আধিকারিকরা যখন ‘কেষ্ট দা’-কে তাঁর বাড়ি থেকে বের করে নিয়ে যাচ্ছিলেন, সেই সময় প্রচুর মানুষ তাঁর বাড়ির সামনে ভিড় জমিয়েছিলেন। এমন কী যে রাস্তা দিয়ে অনুব্রতকে গাড়ি করে দিয়ে যাওয়া হয়েছিল সেই রাস্তার দুই পাশেও অনেক মানুষ দাঁড়িয়ে ছিলেন। বিজেপি ও বাম সমর্থকরা তাঁদের দলীয় পতাকা নিয়ে দাঁড়িয়ে অনুব্রতের উদ্দেশ্যে ‘গরু চোর, গরু চোর’ বলে চিৎকার করতে থাকেন।

তবে এই সব কিছুকে ছাপিয়ে গিয়েছে এক অদ্ভুত ঘটনা। অনুব্রতকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়ার কিছুক্ষণ পরেই স্বাভাবিকভাবে এলাকা ফাঁকা হয়ে যায়। এরপরেই হঠাৎ তৃণমূলের নেতার বাড়ির দরজায় এক গরুর দেখা মেলে। সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় নিমেষের মধ্যে ভাইরাল হয়ে গেলে তা নিয়ে মজার রোল ওঠে। নেটিজেনদের কারোর মতে, বহুদিন পর ওই গরুটি অবশেষে নিশ্চিন্তে বাইরে বেরোতে পেরেছে; আবার কারোর মতে ওই গরুটি আসলে খোঁজখবর নিতে এসেছে। এই বিষয়ে বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষ বিদ্রুপ করে বলেছেন, “অনুব্রতকে সিবিআই তুলে নিয়ে যেখানে যেখানে যাচ্ছে সেখানে মানুষ চোর-চোর বলে চিৎকার করছে। ওই গরুটিও হয়তো চোর খুঁজতেই এসেছে। এক দিকে মানুষের ক্ষোভ দেখা যাচ্ছে। তেমনই এটা প্রকৃতিও ক্ষোভ দেখাচ্ছে।”