Categories
টেক আপডেট নিউজ

পুজোর আগেই গ্ৰাহকদের জন্য বিরাট সুখবর, আগস্টেই 5G পরিষেবা লঞ্চ করছে জিও

আগামী মাসেই আসতে চলেছে ভারতের অন্যতম বিখ্যাত টেলিকম সংস্থা রিলায়েন্স জিওর (Reliance Jio) ৫জি পরিষেবা। এই খবরে স্বভাবতই খুশি এই সংস্থার গ্রাহকরা। কারণ গ্রাহকদের অনেকদিনের প্রতীক্ষার অবসান হতে চলেছে।

দেশের প্রথম সারির টেলিকম সংস্থাগুলির মধ্যে অন্যতম হলো মুকেশ আম্বানির ( Mukesh Ambani) জিও। উন্নত গ্রাহক পরিষেবা এবং নেটওয়ার্কের কারণে বাকি প্রতিযোগীদের পিছনে ফেলে দিয়ে একেবারে প্রথমে উঠে এসেছে এই সংস্থাটি । বর্তমানে ৪জি (4G) পরিষেবার পরিবর্তে ৫জি (5G) পরিষেবা আনার চেষ্টা করছে সমস্ত টেলিকম সংস্থা। প্রতিযোগিতার বাজারে পিছিয়ে নেই এই সংস্থাটিও। স্পেক্ট্রাম ভাগ হয়ে যাওয়ার পরেই সমস্ত টেলিকম সংস্থাগুলিকে যত দ্রুত সম্ভব এই পরিষেবা চালু করার জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন টেলিকম মন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব (Ashwini Vaishnaw)। স্বাধীনতা দিবসের দিনই এই পরিষেবা উদ্বোধনের কথা ছিল মাননীয় প্রধামনন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির (Narendra Modi)। কিন্তু সমস্ত পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলি প্রস্তুত না থাকায় সেটি সম্ভব হয়নি। তবে সেইদিনই প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ভারতে ৫জি পরিষেবা চালু করতে সরকার বদ্ধপরিকর।

আগামী ২৯ শে অগাস্ট অনুষ্ঠিত হবে রিলায়েন্সের বার্ষিক মিটিং। সেইখানেই সম্ভবত ঘোষণা করা হবে এই ৫জি পরিষেবার কথা। তবে এখনো জিওর তরফ থেকে জানা যায়নি যে শুরুর দিকেই তারা এক হাজার শহরে এই ৫জি পরিষেবা দিতে পারবে কিনা। সংবাদসূত্রের খবর অনুযায়ী প্রাথমিক পর্যায়ে দিল্লী, বেঙ্গালুরু , চণ্ডীগড়, হায়দ্রাবাদ সহ ১৩ টি শহরে তারা ৫জি পরিষেবা পৌঁছে দেবে। এই ১৩টি শহরের মধ্যে রয়েছে কলকাতাও। ইতিমধ্যে রিলায়েন্সের অন্যতম প্রতিযোগী এয়ারটেল (Airtel) জানিয়েছে তারা অগাস্ট মাসের মধ্যে এই পরিষেবা চালু করে দেবে। যদিও সরকারিভাবে কোনো তারিখ ঘোষণা করা হয়নি সংস্থাটির পক্ষ থেকে। ৫জি ইনস্পেকট্রাম নিলামের পরে অনুমান করা হচ্ছে আজাদি কা অমৃত মহোৎসবের (Azadi Ka Amrit Mahotsav) সঙ্গেই শুরু হতে পারে তাদের এই ৫জি পরিষেবার যাত্রা।

গ্রাহকদের ৫জি পরিষেবা দেওয়ার দৌড়ে এয়ারটেল কিংবা জিওর সঙ্গে রয়েছে ভোডাফোন , বিএসএনএল সহ একাধিক সংস্থা। সবাই নতুন এই পরিষেবাকে যত দ্রুত সম্ভব গ্রাহকদের কাছে পৌঁছে দেবার চেষ্টা করছে। নিলামের মাধ্যমে স্প্রেকট্রাম বণ্টন করার জন্য এই সব সংস্থার কাছ থেকে এর মধ্যেই ১৭ হাজার ৮৭৬ কোটি টাকা পেয়েছে ডিওটি (DoT)। ৪জি জমানা শেষ হওয়ার পরে গ্রাহকরাও ৫জি পরিষেবার জন্য অধীর আগ্রহ অপেক্ষা করছেন। এইবারে দেখার কোনো সংস্থা এই ৫জি পরিষেবার দৌড়ে এগিয়ে যায়।