Categories
বিনোদন

হোটেল রুমে পরকীয়া করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়েছিল বলিউডের ৫ জুটি

বলিউড মানেই বিতর্ক। বলিউডের বিভিন্ন গুজব সম্পর্কে নেটিজনেদের আগ্রহের সীমা নেই। এই বলিউডের অলিগলিতে ছড়িয়ে রয়েছ অনেক রহস্য। বেশ কিছু বলিউড তারকা জুটির সম্পর্কের গুঞ্জন শোনা যায় যাদের সম্পর্ক পরিণতি পায়নি। আসলে প্রিয় তারকাদের তাদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে চিরকালই কৌতূহলী থাকেন আম জনতা। এইরকম বেশ কিছু জুটির কথা রইল এখানে।

নব্বুইয়ের এর দশকে বলিউডের এক জনপ্রিয় জুটি ছিলেন করিশমা কাপুর-অজয় দেবগন। তাঁরা দুজনে তখন একের পর এক সিনেমাতে জুটি বেঁধে কাজ করেছেন। গুজব শোনা যায় পরপর পাঁচটি সিনেমাতে একসাথে কাজ করার সময়ে করিশমা কাপুর এবং অজয় দেবগন একে অন্যকে ভালবেসে ফেলেন। তবে এই সম্পর্ক নিয়ে খুব একটা সিরিয়াস ছিলেন না অজয় দেবগন। যাইহোক করিশ্মার সাথে সম্পর্কে থাকা অবস্থায় অভিনেত্রী কাজলের সাথে অজয় সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। দুজনে একই বেডরুমে থাকতেন। এই খবর পাওয়ার পরেই করিশমা কাপুর অজয় দেবগনের সাথে সম্পর্ক ভেঙে দেন। পরে ১৯৯৯ সালে অজয় দেবগন কাজলকে বিয়ে করেন।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও শাহিদ কাপুর এক সময়ে সম্পর্কে জড়িয়ে ছিলেন বলে জানা যায়। ২০১১ সালে প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার বাড়িতে যখন ইনকাম ট্যাক্স অফিসাররা রেড করেন তখন ভোর ৭:৩০ টায় প্রিয়াঙ্কার বাড়ির দরজা খোলেন জনপ্রিয় বলিউড অভিনেতা শাহিদ কাপুর। ইনকামট্যাক্স অফিসারদের প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান যে তিনি প্রিয়াঙ্কার প্রতিবেশী। তাঁর বাড়ি তিন মিনিট দূরে হওয়ায় তিনি প্রিয়াঙ্কার কাছে চলে এসেছেন। তবে শাহিদের বক্তব্যের সত্যতা নিয়ে নেটিজেনদের মধ্যে ব্যাপক সন্দেহ রয়েছে।

বলিউডের এক সময়ে ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলেন গোবিন্দা এবং রানী মুখার্জি। ‘হাদ কার দি আপনে’ সিনেমার শুটিংয়ের সময় এই জুটির মধ্যে ঘনিষ্ঠতা শুরু হয়। মিডিয়াতেও গোবিন্দা এবং রানী মুখার্জির সম্পর্ক নিয়ে তুমুল আলোচনা শুরু হয়। গোবিন্দা বিবাহিত ছিলেন। তাঁর দুই সন্তান আছে। সেই সময় একবার রানী মুখার্জির বেডরুম থেকে গোবিন্দাকে বের হতে দেখা যায়। পরে গোবিন্দা ডিভোর্স নিতে রাজি না হওয়ায় রানীর সাথে তার সম্পর্ক শেষ হয়ে যায়।

এছাড়াও বলিউড দুনিয়ার আরেক জুটি এক সময় জনপ্রিয় ছিল। এঁরা হলেন সঞ্জয় দত্ত এবং সুস্মিতা সেন। দীর্ঘদিন তাঁরা প্রেম করেছেন। তাঁরা একবার বিদেশে একসাথে ঘুরতে গিয়েছিলেন। দুজনে একই সাথে একই হোটেলে ছিলেন। কিছু রিপোর্টার সঞ্জয় দত্তকে সুস্মিতা সেনের হোটেল রুমে থাকতে দেখে ফেলেছিলেন।


সবশেষে বলা যায় নানা পাটেকার এবং আয়েশা জুলকের সম্পর্কের কথা। একসময় মনীষা কৈরালা ও নানা পাটেকারের প্রেম সম্পর্কে আবদ্ধ ছিলেন। কিন্তু গুঞ্জন শোনা যায় দুর্ভাগ্যবশত একদিন হোটেল রুমে মনীষা, নানা পাটেকার এবং আয়েশা জুলেখাকে একসাথে হাতেনাতে ধরে ফেলেন। এই ঘটনার জেরে নানা ও মনিষার সম্পর্ক ভেঙে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.