Categories
লাইফ স্টাইল

ঠাকুরবাড়ির স্পেশ্যাল রান্না পাঁচফোড়ন রুই, খেলে হাত চাটবে বাচ্চা থেকে বুড়ো, শিখে নিন রেসিপি

বাঙালি মানেই ভাতের সাথে মাছের ঝোল খেতে ভালবাসেন। বেশিরভাগ বাঙালির কাছেই দুপুরে গরম ভাত ও মাছের ঝোল সবচেয়ে প্রিয় খাবার। অনেক সময় মাংস ফেলে আমরা মাছ খাই। নিত্যনতুন মাছের পদ রাঁধতে গিন্নীরা ভালইবাসেন। তাই আজ আপনাদের বলব বিখ্যাত ঠাকুরবাড়ির হেঁসেলের ‘পাঁচফোড়ন রুই’ প্রস্তুত করার রেসিপি।

•উপকরণ:

১. রুই মাছের বড়ো টুকরো ৬ টি
২. নুন পরিমাণ মতো
৩. হলুদগুঁড়ো পরিমাণ অনুযায়ী
৪. শুকনো লঙ্কাগুঁড়ো স্বাদমতো
৫. আদাবাটা ১.৫ চামচ- ছোট
৬. ধনেগুঁড়ো ১ চামচ- ছোট
৭. জল পরিমাণ অনুযায়ী
৮. তেল পরিমাণ অনুযায়ী
৯. পটল ৩-৪ টি
১০. আলু ৩-৪ টি
১১. টমেটো ২-৩ টি
১২.পাঁচফোড়ন ২ চামচ
১৩. তেজপাতা ২-৩ টি

রান্নার প্রণালী:

প্রথমে মাছের টুকরোগুলোকে নুন, হলুদ গুঁড়ো, শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো মাখিয়ে ভালো করে ম্যারিনেট করে নিতে হবে। এরপরে রান্নার জন্য একটি মশলার মিশ্রণ তৈরী করে নিতে হবে।

মশলার মিশ্রণ তৈরী করার জন্য একটি ছোট পাত্রে আদাবাটা, ১ চামচ হলুদ গুঁড়ো, ১ চামচ শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো ও ধনে গুঁড়োর মধ্যে সামান্য পরিমান জল দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে তরল আকারে পরিণত করতে হবে।
ঝোলে দেওয়ার জন্য আলু, পটল, টমেটো আগে থেকে ফালি ফালি করে কেটে রেখে দিতে হবে।

এরপর কড়াইয়ে তেল গরম করে একে একে আগে থেকে ম্যারিনেট করে রাখা মাছের টুকরোগুলোকে ভালো করে ভেজে নিতে হবে। হালকা সোনালি রঙ না আসা পর্যন্ত এদিক-ওদিক উল্টে মাছের টুকরোগুলোকে ভাজতে হবে।

মাছ ভাজা হয়ে গেলে ওই তেলেই কেটে রাখা পটলগুলো দিয়ে হালকা ভেজে নিতে হবে। পটল ভাজা হয়ে গেলে একই তেলে আলুর টুকরোগুলোও ভেজে নিতে হবে। এরপর কড়াইয়ে আরো খানিকটা তেল দিয়ে আগে থেকে প্রস্তুত করে রাখা মশলার মিশ্রন দিয়ে ভালো করে নেড়ে দিতে হবে।

মশলা খানিকক্ষণ কষানো হয়ে গেলে তার মধ্যে টমেটোর টুকরো ও স্বাদ অনুযায়ী নুন দিয়ে নাড়তে হবে। এরপরে কড়াইয়ে আগে থেকে ভেজে রাখা আলু ও পটলের টুকরোগুলো দিয়ে আবার মশলাসমেত কষিয়ে নিতে হবে। এরপরে ঝোল বানানোর জন্য কড়াইয়ে পরিমাণ বুঝে জল দিয়ে সেটাকে ফুটিয়ে নিতে হবে। ঝোল ফুটতে শুরু করলে তার মধ্যে একে একে মাছের টুকরোগুলো দিয়ে হালকাভাবে নেড়েচেড়ে নিতে হবে। ইচ্ছে হলে ওপরে কয়েকটি কাঁচালঙ্কা দিয়ে দিতে পারেন। এরপর কড়াইটিকে খানিকক্ষণ একটি ঢাকা দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে। অন্তত ৫-৬ মিনিট ঢাকা দিয়ে রাখতে হবে।

ঝোল প্রস্তুত হয়ে গেলে অন্য একটি পাত্রে তেল গরম করে তার মধ্যে পাঁচফোড়ন ও তেজপাতা দিয়ে ভালো করে সাঁতলে নিতে হবে। পাঁচফোড়ন ও তেজপাতা খানিক ভাজা ভাজা হয়ে গেলে মাছের ঝোলে ঢেলে দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে দিতে হবে।

এরপর সবকিছু একসাথে খানিকক্ষণ ফুটিয়ে নিলেই প্রস্তুত হয়ে যাবে বিখ্যাত ঠাকুরবাড়ির হেঁসেলের তাক লাগানো ‘পাঁচফোড়ন রুই’। গরম ভাতের সঙ্গে খাওয়ার জন্য এই পদ মাছপ্রিয় বাঙালিদের কাছে অতি লোভনীয়।

Categories
লাইফ স্টাইল

গরম ভাতের সঙ্গে খাওয়ার জন্য বানিয়ে ফেলুন বাটা মাছের পাতলা ঝোল, শিখে নিন রেসিপি

কথায়ই আছে মাছে ভাতে বাঙালী। ভাতের পাতে মাছের ঝোল না হলে বাঙালীর চলে না। সেইরকম এক প্রিয় পদ হল বাটা মাছের ঝোল। চলুন আজ জেনে নিই চিরাচরিত বাটা মাছের ঝোলের রেসিপি।

উপকরণঃ
১.বাটা মাছ ৬ পিস
২.পটল ৫ টি
৩.লঙ্কাগুঁড়ো ১/২ চা চামচ
৪. হলুদগুঁড়ো ১/২ চা চামচ
৫. শুকনোলঙ্কা ১ টি
৬. নুন স্বাদমতো
৭. আলু বড় ১ টি
৮. পাঁচফোড়ন ১ চা চামচ
৮. মৌরি ১/২ চা চামচ
৯. জিরে ১/২ চা চামচ
১০. তেল পরিমাণ মত
১১. আদাবাটা ১/২ চা চামচ

পদ্ধতিঃ

প্রথমে একটা কড়ার মধ্যে তেল গরম হলে হলে তার মধ্যে আগে থেকে নুন হলুদ মাখিয়ে রাখা বাটা মাছগুলো ভালো করে ভেজে তুলে নিন।

এরপর কড়াইতে থাকা তেলের মধ্যে লম্বা লম্বা করে কাটা পটল দিয়ে ভালো করে ভেজে তুলে নিতে হবে। আলুর টুকরোগুলো একই পদ্ধতিতে ভেজে তুলে রাখতে হবে।

এরপর ১/২ চা চামচ পাঁচফোড়ন, ১/২ চা চামচ জিরে, ১/২ চা চামচ মৌরি ভালো করে বেটে নিতে হবে। এবার কড়াইতে শুকনোলঙ্কা এবং পাঁচফোড়ন ফোড়ন দিয়ে ভেজে নিয়ে তাতে বেটে রাখা পাঁচফোড়ন, জিরে, মৌরি দিয়ে দিতে হবে। এরপর আদাবাটা, লঙ্কাগুঁড়ো, হলুদগুঁড়ো, স্বাদমতো নুন দিয়ে একটু নাড়াচাড়া করে তাতে জল দিয়ে দিতে হবে। জল না দিলে হলুদ কিন্তু পুড়ে যাবে।

এরপর আগে থেকে বেঁচে রাখা আলু এবং পটল কড়াইতে দিয়ে ভালো করে কষতে হবে তরকারি ভালো করে কষা হয়ে গেলে তাতে পরিমাণ মতো জল দিয়ে ঢাকা দিয়ে দিতে হবে। আলু এবং পটলগুলো ভালো করে সিদ্ধ হয়ে গেলে ঢাকনা খুলে তার মধ্যে আগে থেকে ভেজে রাখা বাটা মাছগুলো দিয়ে একটু নাড়াচাড়া করে গ্যাস বন্ধ করে দিতে হবে। ব্যাস কিছুক্ষণের মধ্যেই তৈরি হয়ে যাবে বাঙালির অতিপ্রিয় ‘বাটা মাছের ঝোল’।

Categories
লাইফ স্টাইল

এইভাবে মশলা দিয়ে মাছ ভাজলে স্বাদ হবে দুর্দান্ত, হাত চাটবে আট থেকে আশি, শিখে নিন রেসিপি

ইলিশের ঝোল, ভাপা, ভাজা তো অনেক খেয়েছেন। কিনতু মসালা ইলিশ ভাজা খেয়েছেন কখনো? যদি না খেয়ে থাকেন তবে আজই ট্রাই করুন এই নতুন রেসিপিটি। যা স্বাদে অতুলনীয়। চলুন দেখে নিই রেসিপিটি।

উপকরণঃ

১. ৫০০ গ্রাম ইলিশ মাছ
২. আদা ১ ইঞ্চি
৩. রসুন ৪-৫ কোয়া
৪. কাঁচালঙ্কা ২-৩টি
৫. ধনেপাতা পরিমাণ মত
৬. কারিপাতা পরিমাণ মত
৭. হলুদ ১/২ চা চামচ
৮. লাল লঙ্কাগুঁড়ো ১ চা চামচ
৯. জিরেগুঁড়ো ১ চা চামচ
১০. ধনেগুঁড়ো ১ চা চামচ
১১. নুন পরিমাণ মত
১২. গরম মসলাগুঁড়ো ১/২ চা চামচ
১৩. লেবুর রস ২ টেবিল চামচ
১৪. সাদা তেল ৪ টেবিল চামচ

প্রণালীঃ

প্রথমে মাছ ধুয়ে নিয়ে আলাদা করে রাখুন। এইবার মিক্সিতে আদা, রসুন, কাঁচালঙ্কা, কারিপাতা, ধনেপাতা একটু জল দিয়ে বেটে নিতে হবে।

এইবার একটা পাত্রে এই বাটা দিয়ে তার উপরে হলুদ, লঙ্কাগুঁড়ো, জিরেগুঁড়ো, ধনেগুঁড়ো, গরমমসলাগুঁড়ো, নুন, লেবুর রস, তেল দিয়ে ভাল করে মেখে নিতে হবে।

এইবার মাছের টুকরোগুলোয় এই মসলা ভালভাবে মাখাতে হবে। ম্যারিনেট করার জন্য মাছ এক ঘন্টা রেখে দিতে হবে। এবার প্যানে ২ টেবিল চামচ তেল দিয়ে গরম হলে মাছ দিয়ে দুই দিক ভেজে তুলে নিলেই তৈরি মসালা ইলিশ ভাজা।

Categories
লাইফ স্টাইল

এইভাবে কাতলা মাছ রান্না করলে স্বাদ হবে দুর্দান্ত, হাত চাটবে আট থেকে আশি, শিখে নিন রেসিপি

মাছ (Fish) বাঙালিদের এক অন্যতম প্রধান খাবার। মাছের ঝোল ও ভাত বাঙালিদের রোজকার খাবারের তালিকায় নিয়মিত থাকে। কিন্তু রোজ যদি এক‌ই ধরণের মাছের ঝোল খাওয়া হয় তবে তা স্বাভাবিকভাবেই আর ভালো লাগবে না। আজকের এই প্রতিবেদনে তাই আপনাদের সঙ্গে কাতলা মাছের এক দুর্দান্ত রেসিপি। এই রেসিপি অবলম্বন করে খুব সহজেই বাড়িতে বানিয়ে নেওয়া যাবে ‘কাতলা মাছের পাঁচফোড়ন দেওয়া তেল-ঝাল’।

উপকরণ:
১) কাতলা মাছ
২) নুন
৩) হলুদ গুঁড়ো
৪) তেল
৫) গোটা জিরে
৬) গোটা গোলমরিচ
৭) আদাকুচি
৮) জল
৯) পাঁচফোড়ন
১০) শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো
১১) চিনি
১২) কাঁচালঙ্কা

প্রণালী:

প্রথমেই কাতলা মাছের ছয়-সাতটি টুকরো কেটে ভালো করে ধুয়ে জল ঝরিয়ে নিতে হবে। এরপরে ওই টুকরোগুলো পরিমাণ অনুযায়ী নুন, হলুদ গুঁড়ো ও তেল মাখিয়ে ম্যারিনেট করার জন্য ১৫-২০ মিনিট রাখতে হবে। অন্যদিকে, রান্নায় ব্যবহার করার জন্য মিক্সার গ্রাইন্ডারে ১.৫ চামচ গোটা জিরে, ১ চামচ গোটা গোলমরিচ, কিছু পরিমাণ আদাকুচি ও সামান্য জল দিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে।

এবারে গ্যাসে কড়াই বসিয়ে পরিমাণ অনুযায়ী তেল দিয়ে গরম করে নিতে হবে। তেল গরম হয়ে গেলে তার মধ্যে আগে থেকে ম্যারিনেট করে রাখা মাছের টুকরোগুলো দিয়ে উল্টেপাল্টে খুব ভালো করে ভেজে নিতে হবে।

মাছ ভাজা হয়ে গেলে টুকরোগুলো তেল ঝরিয়ে অন্য পাত্রে তুলে রাখতে হবে। এরপর ওই তেলেই কিছু পরিমাণ পাঁচফোড়ন দিয়ে খানিকক্ষণ নেড়ে নিতে হবে। কিছুক্ষণ পর কড়াইয়ে আগে থেকে বানিয়ে রাখা মশলার পেস্ট, মিক্সার ধোওয়া সামান্য জল, পরিমাণ অনুযায়ী হলুদ গুঁড়ো, শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো ও স্বাদ অনুযায়ী নুন দিয়ে সবকিছু একসাথে মিশিয়ে নিতে হবে।

৪-৫ মিনিট ধরে সবকিছু একসাথে ভালো করে কষিয়ে নিতে হবে। কষিয়ে নেওয়ার সময়েই কড়াইতে ঝোলের পরিমাণ বুঝে গরম জল, স্বাদের ব্যালেন্সের জন্য চিনি, ইচ্ছে অনুযায়ী গোটা কাঁচালঙ্কা দিয়ে আরো কিছুক্ষন ফুটিয়ে নিতে হবে।

এরপর কড়াইয়ে আগে থেকে ভেজে রাখা মাছের টুকরোগুলো দিয়ে হালকা হাতে ঝোলের সঙ্গে মিশিয়ে দিতে হবে। এবারে ৬-৭ মিনিট সময় নিয়ে রান্না করলেই প্রস্তুত হয়ে যাবে ‘কাতলা মাছের পাঁচফোড়ন দেওয়া তেল-ঝাল’।

Categories
লাইফ স্টাইল

টমেটো দিয়ে এইভাবে বানিয়ে ফেলুন দুর্দান্ত স্বাদের মৌরলা মাছের তরকারি, শিখে নিন সিক্রেট রেসিপি

আমরা সকলেই কমবেশি মাছ খেতে ভালবাসি। কিন্তু ছোট মাছ খেতে অনেকেই পছন্দ করেন না। আবার প্রতিদিন বড় মাছ খেতে খেতে একঘেয়েমি ও হয়ে যায়। তাই আজকের এই প্রতিবেদনে একটু অন্যরকম স্বাদের টমেটো দিয়ে মৌরলা মাছের চচ্চড়ি রেসিপি শেয়ার করা হলো। যা সকলেই দুপুরবেলা ভাতের পাতে চেটেপুটে খাবে।

উপকরণ :
১) মৌরলা মাছ
২) হলুদ গুঁড়ো
৩) কাশ্মীরি লঙ্কাগুঁড়ো
৪) পেঁয়াজ বাটা
৫) রসুন বাটা
৬) সর্ষের তেল
৭) পেঁয়াজ কুঁচি
৮) চেরা কাঁচা লঙ্কা
৯) টমেটো
১০) নুন
১১) ধনেপাতা কুঁচি

প্রণালী:

বাজার থেকে কিনে আনা মৌরলা মাছ প্রথমে ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে। এরপর তাতে হলুদ গুঁড়ো, লঙ্কাগুঁড়ো, পেঁয়াজ বাটা, রসুন বাটা দিয়ে ভালো করে ম্যারিনেট করে কিছুক্ষণের জন্য রেখে দিতে হবে।

এরপর একটি কড়াইতে সর্ষের তেল গরম করে তাতে পেঁয়াজ কুঁচি, চেরা কাঁচালঙ্কা ও ম্যারিনেট করা মৌরলা মাছগুলি দিয়ে খুব সাবধানে হালকা ভাবে ভেজে নিতে হবে। তারপর লম্বা করে কেটে রাখা টমেটো গুলো দিয়ে আবারো হালকা করে ভেজে নিতে হবে।

এরপর এতে পরিমাণ মতো নুন ও জল দিয়ে ঢাকা দিয়ে হালকা ভাবে নেড়ে নিয়ে ১০-১৫ মিনিট মতো ফুটিয়ে নিতে হবে। ১০ মিনিট পর জলটা কিছুটা শুকিয়ে গেলে ওপর থেকে ধনেপাতা কুঁচি দিয়ে আবারো দু মিনিট মতো ঢেকে রান্না করে নিতে হবে।

এরপর গরম গরম পরিবেশন করুন এই দুর্দান্ত স্বাদের টমেটো দিয়ে মৌরলা মাছের চচ্চড়ি রেসিপিটি।

Categories
লাইফ স্টাইল

এইভাবে কাতলা মাছ রান্না করলে হাত চাটবে আট থেকে আশি, শিখে নিন সিক্রেট রেসিপি

কথায় বলে মাছে ভাতে বাঙালি। সেই মাছের ঝোলের রেসিপি নিয়ে বাঙালি এক্সপেরিমেন্টের শেষ নেই। তাই আজ একদম অন্যরকম স্বাদের একটি মাঝের ঝোলের একটি রেসিপি শেয়ার করে নেব। যা খেতে একেবারেই একঘেয়ে লাগবে না।

উপকরণঃ
১.কাতলা মাছের টুকরো ৫ টি
২.নুন স্বাদমত
৩.হলুদ ১/২ চামচ
৪.চিনি সামান্য
৫.পেঁয়াজ ছোট ১ টি, বাটা
৬.আদা ছোট ২ টুকরো
৭.রসুন ৭-৮ কোয়া
৮.ধনে গুঁড়ো ১/২ চামচ
৯.জিরে গুঁড়ো ১ চামচ
১০.লঙ্কা গুঁড়ো ১/২ চামচ
১১.এলাচ ২ টি
১২.টকদই ৪ চামচ
১৩.কাশ্মীরি লঙ্কা গুঁড়ো ১/৪ চামচ
১৪. চেরা কাঁচালঙ্কা ৪ টি
১৫.কসুরি মেথি ১/২ চামচ
১৬.গরম মসলা গুঁড়ো সামাণ্য
১৭.ঘি ১ চামচ
১৮.সরষের তেল ৫ চামচ

প্রণালী:

প্রথমেই কড়াইতে ৫ চামচ সরষের তেল গরম করে তাতে গোল গোল করে কেটে রাখা পেঁয়াজ ও ২ টুকরো আদা, ৭-৮ টা রসুন কোয়া, ১/২ চামচ ধনে গুঁড়ো, ১/২ চামচ জিরে গুঁড়ো, সামান্য হলুদ গুঁড়ো, ১/২ চামচ লঙ্কার গুঁড়ো দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ২ মিনিট ভেজে তুলে নিতে হবে।

এরপর ওই তেলের মধ্যেই ৫ পিস নুন, হলুদ দিয়ে মেখে রাখা কাতলা মাছ দিয়ে ভেজে তুলে নিতে হবে। এরপর ভেজে রাখা মসলা ঠান্ডা করে একটি মিক্সার গ্রাইণ্ডারে নিয়ে পেস্ট করে নিতে হবে। তারপর ভেজে রাখা মাছের তেলেই ২ টো এলাচ ফোড়ন দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে বেটে রাখা মসলা দিয়ে মিশিয়ে নিতে হবে।

তারপর মিনিট দুয়েক রান্না করে ৪ চামচ টক দই, ১/৪ চা চামচ কাশ্মীরি লঙ্কা গুঁড়ো দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ৪ টে কাঁচালঙ্কা, স্বাদমতো নুন, চিনি, সামান্য কসুরি মেথি দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে আরো মিনিট দুয়েক রান্না করে নিতে হবে।

এরপর পরিমাণমতো জল দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ঝোল ফুটে উঠলে মাছ দিয়ে মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর আরো মিনিট পাঁচেক রান্না করে সামান্য গরম মসলা গুঁড়ো ও এক চামচ ঘি দিয়ে আবারও মিনিট দুয়েক রান্না করে নিলেই একেবারে তৈরি অসাধারণ স্বাদের কাতলা মাছের ঝোল। যা একবার খেলে বারবার খেতে ইচ্ছা করবে।