Categories
লাইফ স্টাইল

বাড়িতে এই ৪টি গাছ কখনোই রাখবেন না, বাড়তে পারে অর্থনৈতিক সংকট

বাস্তু মতে অর্থনৈতিক সংকট এড়াতে কিছু গাছ আছে বাড়িতে লাগানো একেবারেই উচিত নয়। এতে সংসারের অশান্তি যেমন বৃদ্ধি পায় তেমনি অর্থের সংকটও গ্রাস করে। আজ জেনে নেব তেমনি কিছু গাছের কথা।

বনসাই গাছ : বাস্তুশাস্ত্র অনুযায়ী বনসাই গাছ বাড়ির অর্থনৈতিক সংকটকে বাড়িয়ে তোলে। তাই বাড়িতে এইরকম গাছ লাগানো একেবারেই উচিত নয়।

খেজুর গাছ : খেজুর গাছও বাড়ির পক্ষে অশুভ। এই গাছ বাড়িতে থাকলে অর্থের সংকট দেখা দিতে পারে। খেজুর নিঃসন্দেহে শরীরের জন্য পুষ্টিদায়ক একটি শুকনো ফল। বাজারজাত খেজুরের চেয়ে যদি বাড়ির খেজুর পাওয়ার আশায় এই গাছ লাগানো হয় তাহলে ভালো ফল পাওয়া যাবে না।

কাঁটা জাতীয় গাছ : ক্যাকটাস কিংবা ফণীমনসা জাতীয় কাঁটা গাছও বাড়িতে লাগানো উচিত নয়। অনেকেই এই গাছ বাড়ির টবে লাগিয়ে সৌন্দর্য বৃদ্ধি করেন। এতে করে বাড়ির সৌন্দর্য বাড়লেও জীবনে কুপ্রভাব পরে। সেই কারণে এই রকমের গাছ যদি আপনাদের বাড়ির শোভা বৃদ্ধি করে তাহলে অবিলম্বে কেটে ফেলুন।

বট অথবা অশ্বত্থ গাছ : মন্দিরের আশেপাশে অনেকসময় বট অথবা অশ্বত্থ গাছ দেখতে পাওয়া যায়। এই সমস্ত গাছ মন্দিরের পক্ষে শুভ। বাস্তু শাস্ত্র মতে এই ধরণের গাছ গৃহের পক্ষে অশুভ। বাড়ির উঠানে কিংবা বাগানে এইরকম গাছ থাকলে এখনই কেটে ফেলা উচিত। এতে গৃহ শান্তি বজায় থাকবে।

বাড়িতে অনেকেরই গাছ লাগানোর শখ রয়েছে। গাছের পরিচর্যা করতে অনেকেই ভালোবাসেন। গাছ বাড়ির শোভা বাড়ালেও সব গাছ শুভ হয় না । বাস্তু শাস্ত্র অনুসরণ করে গৃহশান্তি বজায় রাখার জন্য তাই এইসব গাছ বাড়িতে রাখা উচিত নয়।

Categories
লাইফ স্টাইল

Lifestyle: অর্থনৈতিক সংকট চিরতরে দূর করতে শুকনো লঙ্কার সবচেয়ে সহজ ও ঘরোয়া টোটকা

শুকনোলঙ্কা। আমাদের রান্নাঘরের তাকে যা সারাবছর থাকে। সেই সাধারণ শুকনোলঙ্কা কি কামাল করতে পারে জানলে চমকে যাবেন। বিশ্বাস হচ্ছেনা? আসুন তাহলে দেখে নিই শুকনোলঙ্কার কয়েকটি প্রয়োগ যা আপনার জীবন বদলে দেবে।

যদি অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি পেতে চান তাহলে আজই বাড়িতে শুকনোলঙ্কার এই ছোট্ট টোটকাটি ব্যবহার করে দেখতে পারেন। শুকনোলঙ্কা আমরা রান্নার কাজে ব্যবহার করি। রান্নায় রং আনতে এবং স্বাদ বাড়াতে শুকনোলঙ্কা বহু প্রাচীনকাল থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এছাড়াও আপনি যদি মনে করেন আপনার উপর বা আপনার পরিবারের কোন সদস্যের উপর কারো নজর লেগেছে তাহলে সেক্ষেত্রে শুকনোলঙ্কা ব্যবহার করা যেতে পারে।

অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি পেতে চান, তাহলে শুকনোলঙ্কার এই টোটকাটি বাড়িতে প্রয়োগ করে দেখুন। পরপর সাত দিন এই টোটকা প্রয়োগ করলে আপনার অর্থনৈতিক সংকট একেবারে দূর হয়ে যাবে। অর্থনৈতিক সংকট দূর করার জন্য বালিশের নিচে শুতে যাওয়ার সময় সাতটি শুকনোলঙ্কা রেখে দিতে পারেন। এতে আপনার অর্থনৈতিক সংকট দূর হবে। পাশাপাশি আপনি শারীরিকভাবে সুস্থ থাকতে থাকবেন।অর্থনৈতিক সংকট দূর করতে প্রতি বৃহস্পতিবার সাতটি শুকনোলঙ্কা একটি সাদা কাপড়ের মধ্যে জড়িয়ে এরপরে এই কাপড়টি মা লক্ষ্মীর সামনে রেখে দিতে হবে। আর মনে করে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যেবেলা লক্ষ্মীর পাঁচালী অবশ্যই পড়তে হবে।

এইভাবে যদি শুকনোলঙ্কার ঘরোয়া টোটকা নিয়মিত প্রয়োগ করতে পারেন, তাহলে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি তো আসবেই। শুধু তাই নয়, আপনি অনেক বেশি শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ সবল থাকতে পারবেন।

Categories
লাইফ স্টাইল

Lifestyle: রান্নাঘরের এই তিনটি উপকরণেই দূর হবে দাম্পত্য কলহ থেকে শারীরিক সমস্যা

আমাদের রান্নাঘরে যে শুধুমাত্র পেট পুজো হয় এমনটা নয়। এই রান্নাঘরেই লুকিয়ে আছে এমন অনেক সামগ্রী যা আপনার জীবনের বড় বড় সমস্যার সমাধান করে দিতে সক্ষম। অবাক হচ্ছেন তো? কথাটা ভুল নয়। বাস্তুবিদরা মনে করেন, রান্না ঘরে থাকা কয়েকটি ছোটখাট জিনিস আপনার জীবনকে বদলে দিতে পারে। যেমন তেজপাতা, লবঙ্গ আর নুন এই তিন বস্তু করতে পারে সমস্যার সমাধান। কীভাবে? চলুন দেখে নেওয়া যাক।

১) তেজপাতা – অমাবস্যার পরেরদিন থেকে পূর্ণিমার দিন পর্যন্ত প্রতিদিন আপনাকে এই কাজটা করতে হবে। তেজপাতা নিয়ে তার ওপরে চন্দন দিয়ে আপনার মনের ইচ্ছে লিখতে হবে প্রত্যেকদিন। এই তেজপাতাগুলোকে এক জায়গায় জমিয়ে রাখতে হবে। তারপরে পূর্ণিমার পরের দিন এগুলোকে একসঙ্গে পুড়িয়ে দিতে হবে। এই প্রক্রিয়াটি করলে আপনার জীবন সুখ-সমৃদ্ধিতে ভরে উঠবে।

২) লবঙ্গ – যদি আর্থিক সমস্যা ও সাংসারিক কলহ দূর করতে চান তবে একটি কাঁচের পাত্রের মধ্যে বেশ কয়েকটা লবঙ্গ নিয়ে ঘরের এক কোণে রেখে দিতে পারেন। এটি যদি আপনি নিয়ম করে করতে পারেন, তাহলে সাংসারিক কলহ একেবারে দূর হয়ে যাবে। তবে প্রত্যেক মাসে বাটির লবঙ্গ আপনাকে বদলাতে হবে।

৩) নুন- বাস্তু বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, ঘরের কোণে একটা বাটিতে একটু নুন রেখে দিতে পারেন। এটি আপনার গৃহে পজিটিভ এনার্জিকে অনেকাংশে টেনে আনতে পারে। তবে মাঝেমধ্যেই বাটির নুন আপনাকে বদল করতে হবে। বাথরুমের মধ্যে ছোট্ট একটা কাঁচের বাটিতে নুন রেখে দিতে পারেন। কারণ আমাদের ঘরের মধ্যে বাথরুমের মধ্যে সবচেয়ে বেশি নেগেটিভ এনার্জি থাকে।

তাহলে আর দেরী কেন! জীবনের সমস্যাগুলির চটজলদি সমাধান করে ফেলুন রান্নাঘরের মশলাপাতি দিয়ে।