July 16, 2024

বাড়ির টবে ধনেপাতা চাষ অসাধারণ পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ সুগন্ধি ধনেপাতাকে খুব সহজেই বাড়ির টবে চাষ করা সম্ভব। এর ফলে সারাবছর বাড়িতেই প্রাকৃতিক উপায়ে ধনেপাতা পাওয়া যাবে।

অধিকাংশ রান্নাতে মশলা হিসেবে ধনে ব্যবহার করা হয়। তবে ধনেপাতার গুণাগুণও কোন অংশে কম নয়। কিন্তু মরশুম চলে গেলে এর মূল্যবৃদ্ধি ঘটে। তাই অনেক বাড়িতেই এর ব্যবহার কমে যায়। এই পাতার মধ্যে রয়েছে ১১ রকমের এসেনশিয়াল অয়েলের গুণ। এ ছাড়ারয়েছে ফাইবার ,ম্যাগনেসিয়াম , ফসফরাস, ক্লোরিন , জিঙ্ক এবং ক্যালসিয়াম প্রভৃতি। ধনে পাতা খেলে খারাপ কোলেস্টোরল কমে যায় এবং শরীরে ভালো কোলেস্টোরলের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য এটি খুব উপকারী। তাছাড়া এই পাতার অ্যান্টি-সেপটিক উপাদান মুখের আলসার নিরাময়ে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ এই পাতা চাষের উপযুক্ত সময় হচ্ছে সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর। তবে টবের মধ্যে সারা বছরই চাষ করা যাবে।

১. ধনেপাতা সব মাটিতেই ভালো হলেও মূলত এঁটেল এবং দোআঁশ মাটিতে এর ফলন ভালো হয়।

২. ধনে পাতা চাষের জন্য সার হিসাবে গোবর সার ,পচা পাতা কিংবা রান্নাঘরের ফেলে দেওয়া সবজির খোসা ব্যবহার করা যেতে পারে।

৩.দোকান থেকে অথবা ভালো কোন নার্সারি থেকে ধনে বীজ কিনে এনে রাত্রিবেলা ভিজিয়ে রাখতে হবে। পরের দিন মাটিতে বীজ পুঁতে দিতে হবে। ট্রে কিংবা থালার মতো কোন ছড়ানো পাত্রের ন্যায় টব ব্যবহার করল এই ক্ষেত্রে ভালো হবে।

৪.বীজগুলি মাটিতে ছড়িয়ে দেওয়ার পরে হালকা মাটি চাপা দিতে হবে এবং মাটিকে ভালো করে ভিজিয়ে নিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যাতে এর মধ্যে পিঁপড়ে না আসে। পিঁপড়ে থেকে মাটিকে বাঁচানোর জন্য চারপাশে পিঁপড়ের ওষুধ ছড়িয়ে দিতে হবে।

৫. কিছুদিনের মধ্যে বীজ থেকে চারাগাছ জন্মালে তাকে অন্য একটি টবে লাগানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

৬. গাছের গোড়ায় আগাছা জমতে দেওয়া যাবে না। এমনকি বৃষ্টির জল না জমা গাছের পক্ষে উপকারী। আগাছা নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে এবং গাছের গোড়ায় যাতে জল না জমে তার দিকে খেয়াল রাখতে হবে।

সঠিক পদ্ধতিতে বাড়ির টবে ধনে পাতার চাষ করতে পারলে এর উপকারিতা ঘরে বসেই লাভ করা যাবে। প্রাকৃতিক উপায়ে পাওয়া এই পাতার পুষ্টিগুণ বাজাররের পাতার থেকে যে অনেকটাই বেশ সেটা বলাই বাহুল্য।