Categories
বিনোদন

মারা গিয়েও বেঁচে ফিরে এল গুনগুন! নতুন ট্যুইস্ট ‘খড়কুটো’ ধারাবাহিকে

ষ্টার জলসার (Star Jalsha) জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘খড়কুটো’তে (Khorkuto) বড়োসড়ো ট্যুইস্ট। যদিও আগেই আভাস দিয়েছিলেন ‘গুনগুন’ খ্যাত তৃণা সাহা (Trina Saha)। সিরিয়ালের নতুন পর্ব দেখার পরেই দর্শকরা বেশ চমকে গিয়েছেন।

এই সিরিয়ালের মুখ্য দুই চরিত্র সৌজন্য (Soujanyo) এবং গুনগুনের (Gungun) মিষ্টি মধুর কেমিস্ট্রির জন্য অল্প দিনের মধ্যে দর্শকদের প্রিয় ধারাবাহিকে পরিণত হয়েছিল খড়কুটো। টিআরপি তালিকায় বেশ কিছুদিন প্রথম স্থানেও ছিল ধারাবাহিকটি। তবে একসময় অন্যান্য চ্যানেলের ধারাবাহিকের কাছে টিআরপি লড়াইয়ে হেরে যায় খড়কুটো। গুনগুনের অভিনয় দক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে। টিআরপি কমে যাওয়ায় সিরিয়ালটি বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন চ্যানেল কর্তৃপক্ষ।

গত বুধবার গুনগুনের মৃত্যু দিয়ে শেষ হয়েছিল খড়কুটো ধারাবাহিকটি। প্রিয় চরিত্রের এইভাবে চলে যাওয়াকে মেনে নিতে পারেননি ধারাবাহিক প্রেমী দর্শকরা। স্বভাবতই সবাই ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন লেখিকা লীনা গঙ্গোপাধ্যায়ের (Leena Gangopadhyay) উপরে। তবে শেষ পর্যায়ে ওস্তাদের মার অপেক্ষা করছিল দর্শকদের জন্য। মরে গিয়েও অবশেষে আবার ফিরে এসেছে গুনগুন। সিরিয়ালের নতুন পর্বে দর্শকদের সাথে পরিচয় ঘটেছে সৌজন্য এবং গুনগুনের ছেলে চাঁদের সাথে। তবে আসল চমক ছিল যখন আবার নতুন রূপে দর্শকদের সামনে এসেছে গুনগুন। চাঁদকে দেখতে হুবহু সৌজন্যের মতো। অঙ্কলজিস্ট চাঁদের সাথে দেখা হয় গুনগুনের। সৌজন্য-গুনগুনের পরে চাঁদ-গুনগুনের কেমিস্ট্রির দিকে তাকিয়ে রয়েছেন দর্শকরা। দর্শকদের সাথে আশায় বুক বাঁধছেন মুখার্জি পরিবারও। সব মিলিয়ে হ্যাপি এন্ডিং-এ খুশি সবাই।

সিরিয়ালের লেখিকা হিসেবে লীনা গঙ্গোপাধ্যায় ইতিমধ্যে বেশ খ্যাতি পেয়েছেন। বর্তমানে গুনগুনের মৃত্যু নিয়ে তাঁর উপরে মানুষের যে ক্ষোভ তৈরী হয়েছিল নতুন গুনগুনের কারণে সেটা অনেকটাই কমেছে।