Categories
লাইফ স্টাইল

এইভাবে কাতলা মাছ রান্না করলে স্বাদ হবে দুর্দান্ত, হাত চাটবে আট থেকে আশি, শিখে নিন রেসিপি

মাছ (Fish) বাঙালিদের এক অন্যতম প্রধান খাবার। মাছের ঝোল ও ভাত বাঙালিদের রোজকার খাবারের তালিকায় নিয়মিত থাকে। কিন্তু রোজ যদি এক‌ই ধরণের মাছের ঝোল খাওয়া হয় তবে তা স্বাভাবিকভাবেই আর ভালো লাগবে না। আজকের এই প্রতিবেদনে তাই আপনাদের সঙ্গে কাতলা মাছের এক দুর্দান্ত রেসিপি। এই রেসিপি অবলম্বন করে খুব সহজেই বাড়িতে বানিয়ে নেওয়া যাবে ‘কাতলা মাছের পাঁচফোড়ন দেওয়া তেল-ঝাল’।

উপকরণ:
১) কাতলা মাছ
২) নুন
৩) হলুদ গুঁড়ো
৪) তেল
৫) গোটা জিরে
৬) গোটা গোলমরিচ
৭) আদাকুচি
৮) জল
৯) পাঁচফোড়ন
১০) শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো
১১) চিনি
১২) কাঁচালঙ্কা

প্রণালী:

প্রথমেই কাতলা মাছের ছয়-সাতটি টুকরো কেটে ভালো করে ধুয়ে জল ঝরিয়ে নিতে হবে। এরপরে ওই টুকরোগুলো পরিমাণ অনুযায়ী নুন, হলুদ গুঁড়ো ও তেল মাখিয়ে ম্যারিনেট করার জন্য ১৫-২০ মিনিট রাখতে হবে। অন্যদিকে, রান্নায় ব্যবহার করার জন্য মিক্সার গ্রাইন্ডারে ১.৫ চামচ গোটা জিরে, ১ চামচ গোটা গোলমরিচ, কিছু পরিমাণ আদাকুচি ও সামান্য জল দিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে।

এবারে গ্যাসে কড়াই বসিয়ে পরিমাণ অনুযায়ী তেল দিয়ে গরম করে নিতে হবে। তেল গরম হয়ে গেলে তার মধ্যে আগে থেকে ম্যারিনেট করে রাখা মাছের টুকরোগুলো দিয়ে উল্টেপাল্টে খুব ভালো করে ভেজে নিতে হবে।

মাছ ভাজা হয়ে গেলে টুকরোগুলো তেল ঝরিয়ে অন্য পাত্রে তুলে রাখতে হবে। এরপর ওই তেলেই কিছু পরিমাণ পাঁচফোড়ন দিয়ে খানিকক্ষণ নেড়ে নিতে হবে। কিছুক্ষণ পর কড়াইয়ে আগে থেকে বানিয়ে রাখা মশলার পেস্ট, মিক্সার ধোওয়া সামান্য জল, পরিমাণ অনুযায়ী হলুদ গুঁড়ো, শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো ও স্বাদ অনুযায়ী নুন দিয়ে সবকিছু একসাথে মিশিয়ে নিতে হবে।

৪-৫ মিনিট ধরে সবকিছু একসাথে ভালো করে কষিয়ে নিতে হবে। কষিয়ে নেওয়ার সময়েই কড়াইতে ঝোলের পরিমাণ বুঝে গরম জল, স্বাদের ব্যালেন্সের জন্য চিনি, ইচ্ছে অনুযায়ী গোটা কাঁচালঙ্কা দিয়ে আরো কিছুক্ষন ফুটিয়ে নিতে হবে।

এরপর কড়াইয়ে আগে থেকে ভেজে রাখা মাছের টুকরোগুলো দিয়ে হালকা হাতে ঝোলের সঙ্গে মিশিয়ে দিতে হবে। এবারে ৬-৭ মিনিট সময় নিয়ে রান্না করলেই প্রস্তুত হয়ে যাবে ‘কাতলা মাছের পাঁচফোড়ন দেওয়া তেল-ঝাল’।

Categories
লাইফ স্টাইল

এইভাবে কাতলা মাছ রান্না করলে হাত চাটবে আট থেকে আশি, শিখে নিন সিক্রেট রেসিপি

কথায় বলে মাছে ভাতে বাঙালি। সেই মাছের ঝোলের রেসিপি নিয়ে বাঙালি এক্সপেরিমেন্টের শেষ নেই। তাই আজ একদম অন্যরকম স্বাদের একটি মাঝের ঝোলের একটি রেসিপি শেয়ার করে নেব। যা খেতে একেবারেই একঘেয়ে লাগবে না।

উপকরণঃ
১.কাতলা মাছের টুকরো ৫ টি
২.নুন স্বাদমত
৩.হলুদ ১/২ চামচ
৪.চিনি সামান্য
৫.পেঁয়াজ ছোট ১ টি, বাটা
৬.আদা ছোট ২ টুকরো
৭.রসুন ৭-৮ কোয়া
৮.ধনে গুঁড়ো ১/২ চামচ
৯.জিরে গুঁড়ো ১ চামচ
১০.লঙ্কা গুঁড়ো ১/২ চামচ
১১.এলাচ ২ টি
১২.টকদই ৪ চামচ
১৩.কাশ্মীরি লঙ্কা গুঁড়ো ১/৪ চামচ
১৪. চেরা কাঁচালঙ্কা ৪ টি
১৫.কসুরি মেথি ১/২ চামচ
১৬.গরম মসলা গুঁড়ো সামাণ্য
১৭.ঘি ১ চামচ
১৮.সরষের তেল ৫ চামচ

প্রণালী:

প্রথমেই কড়াইতে ৫ চামচ সরষের তেল গরম করে তাতে গোল গোল করে কেটে রাখা পেঁয়াজ ও ২ টুকরো আদা, ৭-৮ টা রসুন কোয়া, ১/২ চামচ ধনে গুঁড়ো, ১/২ চামচ জিরে গুঁড়ো, সামান্য হলুদ গুঁড়ো, ১/২ চামচ লঙ্কার গুঁড়ো দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ২ মিনিট ভেজে তুলে নিতে হবে।

এরপর ওই তেলের মধ্যেই ৫ পিস নুন, হলুদ দিয়ে মেখে রাখা কাতলা মাছ দিয়ে ভেজে তুলে নিতে হবে। এরপর ভেজে রাখা মসলা ঠান্ডা করে একটি মিক্সার গ্রাইণ্ডারে নিয়ে পেস্ট করে নিতে হবে। তারপর ভেজে রাখা মাছের তেলেই ২ টো এলাচ ফোড়ন দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে বেটে রাখা মসলা দিয়ে মিশিয়ে নিতে হবে।

তারপর মিনিট দুয়েক রান্না করে ৪ চামচ টক দই, ১/৪ চা চামচ কাশ্মীরি লঙ্কা গুঁড়ো দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ৪ টে কাঁচালঙ্কা, স্বাদমতো নুন, চিনি, সামান্য কসুরি মেথি দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে আরো মিনিট দুয়েক রান্না করে নিতে হবে।

এরপর পরিমাণমতো জল দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ঝোল ফুটে উঠলে মাছ দিয়ে মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর আরো মিনিট পাঁচেক রান্না করে সামান্য গরম মসলা গুঁড়ো ও এক চামচ ঘি দিয়ে আবারও মিনিট দুয়েক রান্না করে নিলেই একেবারে তৈরি অসাধারণ স্বাদের কাতলা মাছের ঝোল। যা একবার খেলে বারবার খেতে ইচ্ছা করবে।