Categories
অফবিট নিউজ

এবার চাঁদের মাটিতেও তৈরি হবে বাড়ি, নতুন জায়গার সন্ধান পেল বিজ্ঞানীরা

পৃথিবীর একমাত্র উপগ্রহ চাঁদ। বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন সময় চাঁদে অভিযান করেছেন। বিজ্ঞানীরা চাঁদে বসতি স্থাপনের জন্য গবেষণা করছেন। সূর্যের বিপজ্জনক রশ্মি চাঁদে পড়ে। এজন্য চাঁদের তাপমাত্রা বসতির জন্য উপযুক্ত নয়। কিন্তু সম্প্রতি নাসার এক বিজ্ঞানী চাঁদে বসতি স্থাপনের একটি উপায় খুঁজে পেয়েছেন।

বিজ্ঞানীরা চাঁদে এমন এক জায়গা আবিষ্কার করেছেন যেখানে তাপমাত্রা বসবাসের জন্য উপযুক্ত। ওই অংশটি ছাড়া চাঁদের বাকি অংশের তাপমাত্রা খুবই অস্বাভাবিক। দিনের বেলা চাঁদের তাপমাত্রা পৃথিবীর তুলনায় ১৫ গুণ বেশি। অর্থাৎ প্রায় ১২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাতের বেলা তাপমাত্রা মাইনাস ১৭৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে যায়। বিজ্ঞানীরা চাঁদে একটি গর্ত পেয়েছেন। যেখানে তাপমাত্রা ১৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা বসতির স্থাপনের উপযুক্ত। চাঁদে গর্তের আবিষ্কার খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

২০০৯ সালে চাঁদের এই গর্তগুলি বা moon hole আবিষ্কার হয়েছিল। তারপর থেকেই চাঁদের ওই জায়গাতে বসতি করা যাবে কিনা, তা নিয়ে বিজ্ঞানীরা গবেষণা করছিলেন। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন চাঁদের পৃষ্ঠের গর্তগুলি ফাঁপা গুহার মতো। মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার বিজ্ঞানী নোয়া পেত্রো (Noah Petro) চাঁদের গর্তের এই বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করে বলেছেন “এই গর্তগুলিতে একটি স্থিতিশীল বায়ুমণ্ডল আছে। চাঁদের এই বৈশিষ্ট্যগুলি আমাদের আবিষ্কারের সম্ভাবনাকে চিহ্নিত করতে সহায়তা করবে।”

এই গবেষণার নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিজ্ঞানী টাইলার হরভাথ (Tyler Horvath)। তিনি বলেছেন “২০০ টির বেশি গর্তের মধ্যে প্রায় ১৬ টি লাভা টিউব।” বিজ্ঞানীরা গবেষণার জন্য একটি ৩২৮-ফুট গভীর গর্তের দিকে মনোনিবেশ করছেন। যা মের ট্রানকুলিটাটিস (Mer Tranquillitatis) নামে পরিচিত। শিলার তাপীয় বৈশিষ্ট্য নির্ধারণ করতে কম্পিউটার মডেল ব্যবহার করা হয়েছে। এতে বিজ্ঞানীরা দেখেন গর্তে যেখানে ছায়া থাকে, সেখানে তাপমাত্রা ১৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।